Twitter

Follow palashbiswaskl on Twitter

Monday, February 25, 2013

বধ্যভূমিতে দাঁড়িয়ে শপথ,দ্বিতীয় মুক্তযুদ্ধের প্রথম স্বাধীনতা! প্রজন্ম্য মিছিলে হারিয়ে গেল মৌলবাদী হড়তাল! পলাশ বিশ্বাস

বধ্যভূমিতে দাঁড়িয়ে শপথ,দ্বিতীয় মুক্তযুদ্ধের প্রথম স্বাধীনতা! 

প্রজন্ম্য মিছিলে হারিয়ে গেল মৌলবাদী হড়তাল! 

পলাশ বিশ্বাস

পুনরুত্থানবাদী মৌলবাদের মুখে ঝামা ঘষে দিয়েছে দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধের স্বাধীনতা!

 বাঙ্গালি জাতি সত্তার এই প্রস্ফুটন বসন্তে আমরা কোথায় দাঁড়িয়ে?

ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য পশ্টিমবঙ্গে ক্ষমতাদখলের লড়াইয়ে পক্ষ বিপক্ষ যখন মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক রাজনীতি দিয়ে ব্রাহ্মণ্যতান্ত্রিক কর্তৃত্ব ও আধিপাত্য কায়েম রাখতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে, ঠিক তখনই প্রতিকূল পরিস্থিতিতে মৌলবাদী জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে প্রগতিশীল, ধর্মনিরপেক্ষ, সমতা, সামাজিক ন্যায় ও ভ্রাতৃত্বের প্রতূক একুশে চেতনায় উদ্বুদ্ধ বাঙ্গালি জাতিসত্তা! 

আমরা গর্ব বোধ করব না লজ্জা, ভাবনার বিষয় অবশ্যই!

কোন কবিতা লিখতে এত উত্তেজনা বোধ করেনি কোন কবি! যেন এক শতাব্দীর একসহস্র প্রেমের একশটি প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছি আমি! যেন একশ একটি নীলপদ্ম মাড়িয়ে শ্বেতপাথরের আলিশান প্রসাদ ছেড়ে নেমে এসেছি বিনম্র রাজপথে! কোন গান গাইতে এত উন্মাদনা বোধ করেনি কোন গায়ক! যেন রক্তাক্ত হাতে কোন বেহালাবাদক স্টেনগানের মত হাতে তুলে নিয়েছে তার প্রাণপ্রিয় বেহালাটিকে! গীটারের তালে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ এঁকে, প্রতিশোধের মন্ত্রণা দিচ্ছে তার ধর্ষিতা বোনটিকে! কোন ছবি আঁকতে এতোটা স্বপ্নালু হয়নি কোন চিত্রশিল্পী! যেন তরতাজা রক্তের প্যালেটে তুলি ডুবিয়ে উদার আকাশ শ্রদ্ধায় চুমু খেয়েছে শহীদ মিনারের পায়ে পড়ে! তিরিশ লক্ষ শহীদ আর এককোটি শরণার্থী একসঙ্গে পাড়ি দিচ্ছে ক্রোধাক্ত বঙ্গোপসাগর! শাহবাগ ছাড়া কোন রাজপথ দেখেনি এত মানুষের ঢল-কোলাহল! যেন আটটি স্বর্গ অট্টহাসিতে আটখানা হয়ে সপ্তনরকের টগবগে জলে স্বেচ্ছায় ভেঙে পড়েছে! যেন ইসরাফিলের শিঙার আওয়াজে প্রস্তুত হয়েছে একচল্লিশ বছরের সকল ক্রোধের ঘৃণাবসান! আর আমাদের এই দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধের ডানায় ভর করে রাত্রির আকাশে শুকতারা জ্বেলে, ফিনিক্সপাখির মত ছাই ফুঁড়ে বাংলার আকাশে অহংকারের দীপ্তি মেলে, অসংখ্য তরুণের তারুণ্যের জয়গানে আবারো জ্বলজ্বল করছে মহান স্বাধীনতা! (কবিতা-দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধের প্রথম স্বাধীনতা!)

এবার শাহবাগের এ আন্দোলন থেকে এদের প্রতি চ্যালেঞ্জ উচ্চারিত হয়েছে। কোটি মানুষের মনের দাবি, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি চাই। প্রতিনিয়ত স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হচ্ছে প্রজš§ চত্বর। দেশে এযাবৎকালে যত গণজাগরণ হয়েছে সবই ঘটেছে রাজনৈতিক নেতাদের আহ্বানে। এই প্রথম দেশে এরকম একটি আন্দোলন শুরু হয়েছে কারও ভাষণ, ঘোষণা ছাড়া।


ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতাল প্রত্যাখ্যান করে গতকাল গণমিছিল করেছে শাহবাগে গণজাগরণের আন্দোলনকারীরা। এতে বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মী, শিক্ষার্থীসহ নানা পেশা ও শ্রেণীর হাজার হাজার মানুষ অংশ নিয়েছেন। এছাড়া শাহবাগ চত্বরে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালিত হয়েছে। বিকেল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলনের ২০তম দিনে গতকাল শাহবাগ গণজাগরণ চত্বরে এসে জড়ো হতে থাকে হাজার হাজার মানুষ। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি না হওয়া পর্যন্ত তরুণ প্রজন্মের ওই আন্দোলন চলবে বলে গণজাগরণ মঞ্চ থেকে জানানো হয়। 
সকাল পৌনে ১০ টার দিকে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে মিছিলটি পল্টনের দিকে যাত্রা করে। এতে বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মী, শিক্ষার্থীসহ নানা পেশা ও শ্রেণীর হাজার হাজার মানুষ অংশ নিয়েছেন। মিছিলটি মৎস্য ভবন, প্রেসক্লাব, পল্টন হয়ে দৈনিক বাংলা মোড় পর্যন্ত গিয়ে ওই মোড় ঘুরে সকাল পৌনে ১১টার দিকে আবার শাহবাগ ফেরত আসে। মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা হরতালবিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি বন্ধ করার দাবি জানিয়ে সেস্নাগান দেন। এর আগে গতকাল ভোর থেকে সেস্নাগান শুরু হওয়া শাহবাগ চত্বরে সকাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল ও অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে জড়ো হয়। শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া সকালে ওই সমাবেশে সংহতি জানান।
শাহবাগের গণজাগরণ চত্বরে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে চলমান গণআন্দোলনের অংশ হিসেবে গতকাল পালন করা হয় গণস্বাক্ষর কর্মসূচি। সকাল সাড়ে ৯টা থেকে স্বাক্ষর দেয়ার জন্য মানুষ শাহবাগের মিডিয়া সেলে আসে। এ সময় সেখানে ভিড় করে হাজার হাজার জনতা। জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় গণআন্দোলনের কার্যক্রম। 
চলমান আন্দোলনের ২০তম দিন গতকাল বিকেলে স্বরূপে ফিরে আসে শাহবাগ গণজাগরণ চত্বর। বাড়তে থাকে মানুষ। এ সময় তারা বিভিন্ন সেস্নাগান দিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি করতে থাকে। কর্মদিবস শেষে চাকরিজীবীরাসহ বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ জড়ো হয়। 
উল্লেখ্য, বস্নগে কিছু লোক ইসলাম সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করছে দাবি করে গত শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিলের নামে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ব্যাপক তা-ব চালায় ইসলামী দলগুলো। ইসলামপন্থি দলগুলোর ওই বিক্ষোভে পুলিশ গুলি চালায়। এরপর ওই দিন রাতে হরতাল ডাকে ওই সমমনা ইসলামী দলগুলো। শনিবার বিরোধীদল বিএনপি ওই হরতালে সমর্থন জানায়। এদিকে গণজাগরণ মঞ্চের ব্যানারে তরুণ প্রজন্মের ওই দিন শুক্রবার শাহবাগে ফের জমায়েত হয়ে ইসলামী দলগুলোর তা-বের প্রতিবাদ করে। জামায়াতই এই হরতালের পৃষ্ঠপোষক বলে অভিযোগ করে তারা। তরুণ প্রজন্ম জনগণের প্রতি এই হরতাল প্রতিহতের জন্য গত শনিবার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে গতকাল পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গণমিছিল করে তারা।

মিছিলেই ভাসল হরতাল, সংঘর্ষে নিহত ৫
গ্নিপরীক্ষায় সফল, এ এক আধুনিক বাংলাদেশ! হাতে জাতীয় পতাকা। মাথায় বাঁধা জাতীয় পতাকা। উত্তাল মিছিলে মৌলবাদীদের ডাকা হরতাল বানচাল করে দিলেন বাংলাদেশের নতুন, ধর্মনিরপেক্ষ, প্রগতিশীল প্রজন্ম। 
শুক্রবার জামাতে ইসলামির সমর্থক ১২টি মৌলবাদী দল অতর্কিত হামলা চালিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক অশান্তি বাধায়। ঢাকার শাহবাগ চত্বরে আন্দোলনের সমর্থনে বাংলাদেশের প্রতি জনপদে যে গণজাগরণ মঞ্চ গড়া হয়েছিল, মৌলবাদী দুষ্কৃতীরা সেগুলি নিশানা করে ভাঙচুর করে। কয়েক জায়গায় ভাষা শহিদ মিনারও ভাঙা হয়, ছেঁড়া হয় জাতীয় পতাকা। তার পরেই রবিবার হরতালের ডাক দেয় মৌলবাদীরা। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি ও জামাতে ইসলামি হরতালকে সমর্থন করে। 
অন্য দিকে শাহবাগের বিক্ষোভকারীরা এই হরতাল উপেক্ষা করে জনজীবন স্বাভাবিক রাখার আবেদন জানায়। গত কাল শহিদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতিসৌধে শপথ নিয়ে শাহবাগের বিক্ষোভকারীরা বলেন, "লাখো শহিদের রক্তের বিনিময়ে একাত্তরে যে পতাকা আমরা অর্জন করেছিলাম, তাতে ওরা আগুন দিয়েছে, অসম্মান করেছে আমরা এর বিচার চাই আমাদের প্রাণের পতাকার, সম্মান অক্ষুণ্ণ রাখতে চাই।" 
অন্য বার হরতালের আগের সন্ধে থেকেই জামাতের দুষ্কৃতীরা যানবাহন পুড়িয়ে সন্ত্রাস শুরু করে।
রবিবারের ঢাকা। —নিজস্ব চিত্র
হরতালের দিন সকালেও তারা পথচলতি মানুষ ও গাড়ির ওপর হামলা চালায়। এর আগে গত সোমবার মানুষ রাস্তায় নেমে জামাতের ডাকা হরতাল ব্যর্থ করে দিয়েছিলেন। তার পরে এ দিন। হরতালকারীদের বদলে সকাল থেকেই ঢাকা-সহ গোটা দেশের পথের দখল নেন জাতীয় পতাকা হাতে মিছিলের মানুষ। তাঁদের অনেকের মাথাতেও জাতীয় পতাকা বাঁধা। কোথাও কোথাও মৌলবাদীরা জড় হওয়ার চেষ্টা করলেও পুলিশ ও বিজিবি তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। মানিকগঞ্জে সশস্ত্র জামাত কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে ৪ জন প্রাণ হারিয়েছেন কক্সবাজারেও সংঘর্ষে ১ জন মারা গিয়েছেন।
ঢাকায় সকালে মানুষ যে ভাবে পথে নামেন, সেই অনুপাতে গাড়িঘোড়া ছিল কম। তার পরে বেলা একটু গড়াতে হরতালকারীরা একেবারেই উধাও হয়ে যান। ট্রেন ও লঞ্চ চলে স্বাভাবিক ভাবে। 
এই প্রথম হরতালের দিনেও চালু ছিল হাইকোর্ট। ব্যাঙ্ক ও অফিস-আদালতে স্বাভাবিক কাজ হয়েছে। শেয়ারবাজারে লেনদেনও হয়েছে আর পাঁচ দিনের মতোই। 
রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বিশ্ববিদ্যালয়, স্কুল-কলেজ, এমনকী সমস্ত প্রাথমিক স্কুলও এ দিন ছিল খোলা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা শান্তিতে পরীক্ষা দিয়ে শাহবাগ স্কোয়্যারে এসে জড়ো হন। সকালে শাহবাগের তরুণরা হরতাল বানচাল করার ডাক দিয়ে কয়েক কিলোমিটার মিছিল করেন। সামিল হন বিভিন্ন ছাত্র ও যুব সংগঠনের কর্মীরা। এই মিছিলে মেয়েদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।
ঢাকার বাইরেও চিত্রটা ছিল একই। মানুষ হরতাল উপেক্ষা করে রাস্তায় নেমেছেন। কোথাও কোথাও গাড়িঘোড়া সকালের দিকে কম থাকায় তাঁদের ভোগান্তিও হয়। চট্টগ্রামে গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙে শুক্রবার প্রেস ক্লাবেও ভাঙচুর করেছিল দুষ্কৃতীরা। আজ সকাল থেকেই হাজার হাজার মানুষ প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান করেন। নতুন মঞ্চ বানানো হয় খুলনা, বগুড়া, রংপুর ও রাজশাহিতেও। হাজারো মানুষের প্রতিরোধে গোটা দিন মৌলবাদীদের রাস্তায় দেখা যায়নি। 
হরতাল বানচাল করার জন্য সরকার ও আওয়ামি লিগ মানুষকে অভিনন্দন জানিয়েছে। আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুনল ইসলাম বলেন, গণজাগরণের যে ঢেউ উঠেছে, তার বিরোধিতা করে কেউই সুবিধা করতে পারবে না। 
মৌলবাদীদের হরতাল সমর্থন করে নিজেদের মুখোস বিএনপি নিজেই খুলে ফেলেছে। কিন্তু বিএনপি-র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভি অভিযোগ করেছেন, আওয়ামি লিগ ও প্রশাসন সর্বত্র হামলা চালিয়ে শান্তিপূর্ণ হরতাল বানচাল করেছে। হরতালকারীরা অশান্তি এড়াতেই রাস্তায় নামেননি। মানিকগঞ্জে ৪ জনের প্রাণহানির প্রতিবাদে মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ কর্মসূচিও নেওয়া হয়েছে। 
হরতালের সমর্থন করলেও বিএনপি-র কর্মীরা তা সফল করতে কেন সে ভাবে মাঠে নামেনি, সে প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে যান রিজভি।
http://www.anandabazar.com/25bdesh1.html

মিছিলে নেমেই মৌলবাদী
বন্‌ধ ভাঙলো বাংলাদেশ

আতাউর রহমান

ঢাকা, ২৪শে ফেব্রুয়ারি— ছিলো প্রবল অশান্তির উসকানি। হরতালের সমর্থনে মুসলিম মৌলবাদীদের চোখ রাঙানিও ছিল সর্বত্র। সমস্ত কিছু উপেক্ষা করেই রবিবার পথে নামলো বাংলাদেশ। ফুৎকারে প্রত্যাখ‌্যান করলো জামাত-সহ ইসলামী দলগুলির ডাকা এদিনের হরতাল। এদিন আরো একবার জানান দিলো মৌলবাদের বিরুদ্ধে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের তীব্র জেহাদ। 

কয়েক জায়গায় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ ছাড়া তেমন কোনো আঁচড়ই কাটতে পারলো না এদিনের হরতাল। রাস্তায় নেমে জামাত-সহ ইসলামী দলগুলির ডাকা হরতালকে প্রত্যাখ‌্যান করল গোটা দেশের সাধারণ মানুষ। গোটা দেশের জনজীবনে তেমন প্রভাব পড়েনি হরতালের। 

অন্যান্যদিনের মতই ব্যস্ত ছিল রাজধানী ঢাকা। শহরে দোকানপাট খুলেছে, রাস্তায় যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক। শহরজুড়ে ছিল কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিভিন্ন রাস্তায় নিরাপত্তারক্ষীরা টহল দিয়েছেন। বাস, অটো, রিকশা চলেছে। লঞ্চের চলাচলও স্বাভাবিক ছিল। ঢাকা ও চট্টগ্রাম শেয়ার বাজারের স্বাভাবিক কাজ হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরেও কোনো প্রভাব পড়েনি এদিনের হরতালের। ব্যাঙ্ক সহ সমস্ত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানই খোলা ছিল। 

হরতাল প্রত্যাখ্যান করে ঢাকায় মিছিলে শামিল হন কয়েক হাজার মানুষ। হরতালের বিরুদ্ধে পথে নামতে শনিবারই ডাক দিয়েছিল গণজাগরণ মঞ্চ। শাহবাগ আন্দোলনকে ঘিরে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চের ডাকা এদিনের মিছিলে হেঁটেছেন বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের সদস্যরা। মিছিলে ছিলেন সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর এবং নানান পেশার মানুষ। স্লোগানে, গানে উদ্দীপ্ত এই মিছিল শুরু হয় সকাল পৌনে দশটা নাগাদ। শহরে বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে ১১টা নাগাদ শাহবাগে শেষ হয় এই মিছিল। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে ও জামাত-সহ তার ছাত্র সংগঠন, ছাত্র শিবিরকে নিষিদ্ধ করার দাবিতে দৃপ্ত কন্ঠে স্লোগানে গলা মেলান হাজার হাজার মানুষ। 

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামাতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় প্রত্যাখ্যান করে ফাঁসির দাবিতে ফেব্রুয়ারির ৫তারিখ থেকে এই আন্দোলন শুরু হয়। এই দাবি প্রথমে উত্থাপন করে ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট নেটওয়ার্ক। পরে তা জনতার আন্দোলনে ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেশে। আন্দোলনের উৎকেন্দ্র হয়ে ওঠে শাহবাগ চত্বর। বাংলাদেশের গ্রাম থেকে শহর — সর্বত্র জামাত সহ মৌলবাদ বিরোধী আন্দোলনের অনন্য নজির তৈরি করতে চলছে মনে করছে অভিজ্ঞমহল। 

এদিকে, ইসলামী দলগুলির ডাকা হরতালকে ঘিরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটলো মানিকগঞ্জ জেলায়। এদিন মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলায় গোবিন্ধল গ্রামে সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে একজন মহিলা আছেন বলে পুলিস সূত্রে জানা গেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন অন্তত ৫০জন। আহতদের মধ্যে ১৬জন পুলিস কর্মীও আছেন। জামাত সহ ১২টি ইসলামী দলগুলির ডাকা এদিনের হরতালকে সমর্থন জানায় প্রধান বিরোধীদল বি এন পি। তবে, কয়েকটি বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ ছাড়া এদিনের ধর্মঘট দেশজুড়ে কোনো প্রভাবই ফেলতে পারেনি 

এদিন সকাল সাতটা নাগাদ মানিকগঞ্জ-সিঙ্গাইর সড়কে অবরোধ করে হরতালকারীরা। রাস্তার ওপর থেকে অবরোধ ওঠাতে গেলে পুলিসের সঙ্গে তাঁদের সংঘর্ষ হয়। পুলিসের দিকে ইটপাটকেল ছোঁড়ে অবরোধকারীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিস লাঠি চালায়। পুলিস রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসও ছোঁড়ে। কিন্তু তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় পুলিস বেশ কয়েক রাউণ্ড গুলি ছোঁড়ে। সংঘর্ষে অন্তত ৩৫জন আহত হয়েছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার মানিকগঞ্জ জেলায় হরতালের ডাক দিয়েছে ইসলামী দলগুলি। ওই দিন গোটা দেশে প্রতিবাদ আন্দোলন হবে বলে জানানো হয়েছে দলগুলির পক্ষ থেকে। 

এদিনের হরতালকে ঘিরে বিভিন্ন জায়গায় ভাঙচুর চালায় ইসলামী দলগুলির কর্মী সমর্থকরা। তাদের হামলায় বেশ কয়েকটি দোকান, বাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কয়েকটি জায়গায় আগুন ধরিয়ে দেওয়ারও চেষ্টা করে। কক্সবাজারেও সংঘর্ষ হয়। স্থানীয় একটি টি ভি চ্যানেলের সূত্রে জানা গেছে, এখানে হরতালকারীদের সঙ্গে আওয়ামি লিগের সমর্থকদের সঙ্ঘর্ষে অন্তত ১৫জন আহত হয়েছে। গোটা দেশে অবরোধ ও হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে অন্তত ৫০জন গ্রেপ্তার হয়েছে। 

শাহবাগের আন্দোলনে রাজাকারদের ফাঁসি ও জামাতকে নিষিদ্ধ করার দাবি দেশজুড়ে আলোড়ন তুলছে। তার পালটা জবাব দিতেই এদিনের হরতালের ডাক দেয় মৌলবাদীরা। তাদের পাশে বি এন পি দাঁড়িয়ে যাওয়ায় হরতালকে ঘিরে প্রবল আশান্তির আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিলো গোটা দেশেই। সমস্ত কিছু আতঙ্ক কার্যত দুরমুশ করেই মৌলবাদকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিল বাংলাদেশ। শাহবাগের বাংলাদেশ। 

http://ganashakti.com/bengali/news_details.php?newsid=36436

বাংলাদেশ কোন পথে?



বাংলাদেশ ফের উত্তাল৷ লক্ষ লক্ষ মানুষ, যাঁদের এক বিরাট অংশ যুবা, গত দু' সপ্তাহ ধরে পথে নেমেছেন৷ দাবি, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় যাঁরা পাকিস্তানের সেনার সঙ্গে হাত মিলিয়ে সে দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিলেন এবং মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার ষড়যন্ত্রে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন তাঁদের মৃত্যুদণ্ড চাই৷ যদিও এই আন্দোলনের শিকড় দীর্ঘ, বর্তমান গণ-অসন্তোষের শুরু ৫ ফেব্রুয়ারি৷ এই সব অপরাধে অভিযুক্তদের- বাংলাদেশে যাঁদের 'রাজাকার' বলা হয়- বিচারের জন্য বাংলাদেশ সরকার-গঠিত 'আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল' ওই দিন জামাত-ই-ইসলামি দলের নেতা আব্দুল কাদের মোল্লাকে ১৯৭১-এ গণহত্যা-সহ একাধিক অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করে তাঁকে যাবজ্জীবন কারাবাসে দণ্ডিত করে৷ আন্দোলনকারীদের মতে এই শাস্তি যথেষ্ট নয়৷ তাঁরা মোল্লা ও রাজাকারদের প্রাণদণ্ড চান৷ এই দাবি নিয়ে রাজধানী ঢাকার শাহবাগ স্কোয়ার-সহ দেশের বিভিন্ন শহরে লক্ষাধিক মানুষ প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন৷ তাঁদের আরও দাবি ধর্মীয় দল জামাত-ই-ইসলামি-র রাজনৈতিক কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করতে হবে৷ আন্দোলনের ছ' দিনের মাথায় ক্ষমতাসীন আওয়ামি লিগ সরকার জানায় যে সংবিধানে এমন কিছু পরিবর্তন আনা হবে, যার মাধ্যমে ট্রাইবুনালের কাছে মোল্লার প্রাণদণ্ড চেয়ে ফের আবেদন এবং জামাত-কে নিষিদ্ধ করা সম্ভব হবে৷ কিছু গড়িমসির পর বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি (বি এন পি)ও আন্দোলনকারীদের সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ সমস্যা হল, বাংলাদেশে এখনও বিপুল সংখ্যক জামাত সমর্থক আছেন৷ মোল্লার সমর্থনে এবং জামাত-কে নিষিদ্ধ করার চেষ্টার বিরোধিতা করে পথে নেমেছেন তাঁরাও৷ 

বাংলাদেশ গঠনের সময় থেকেই রাজাকারদের বিচারের দাবি ওঠে৷ বস্ত্তত ট্রাইবুনালটি গঠন করা হয় ১৯৭৩-এ৷ কিন্ত্ত ১৯৭৫-এ সে দেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রাণপুরুষ ও প্রথম প্রেসিডেন্ট মুজিবুর রহমানের হত্যার পরে এই বিচার আর সম্পূর্ণ হয়নি৷ ২০০৮-এ আওয়ামি লিগ ক্ষমতায় আসার পরই বিষয়টি ফের এগিয়ে নিয়ে যাওয়া শুরু হয়৷ এই প্রেক্ষিতেই ৫ ফেব্রুয়ারির গণ-উত্থান ও পাল্টা আন্দোলন৷ মোল্লা ও তাঁর সহযোগীদের প্রাণদণ্ডের দাবিদারদের প্রধান যুক্তি, আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামি লিগ পরাজিত হয়ে জামাত-এর প্রতি 'নরম' বলে পরিচিত বি এন পি ক্ষমতায় এলে দোষীদের শাস্তি মকুব হয়ে যেতে পারে৷ কোনও গণতান্ত্রিক দেশের 'যুদ্ধাপরাধীদের' কী ভাবে বিচার হবে তা সম্পূর্ণ নির্ভর করে নির্বাচিত সরকারের সিদ্ধান্তের উপর, যদিও এ নিয়ে স্পষ্ট আন্তর্জাতিক আইনও আছে৷ তা ছাড়া বিষয়টির সঙ্গে জড়িয়ে আছে সে দেশের মানুষের বিপুল ভাবাবেগ, যাঁদের অনেকেই ১৯৭১-এ পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের অত্যাচারে হত প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষের নিকটাত্মীয়৷ সহজ আইনের যুক্তি দিয়ে বিষয়টির বিচার হয়তো তার অতিসরলিকরণ করা হবে৷ তবু, গণ-আন্দোলনের মঞ্চ থেকে আদালতের রায় ঠিক করা হলে তাতে গণতন্ত্রের কতটা মঙ্গল হবে, বাংলাদেশের নাগরিকদের ভেবে দেখতে হবে তাও৷ একই সঙ্গে তাঁদের ভেবে দেখতে হবে যুদ্ধাপরাধ ও অন্যান্য বর্বর ক্রিয়াকলাপের জন্য দোষীদের শাস্তি আদৌ মুকুব করা উচিত কি না? এই আন্দোলন ও পাল্টা আন্দোলনের জেরে এর মধ্যেই তিন জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবরে প্রকাশ৷ একাধিকবার সামরিক শাসনের মধ্যে দিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের গণতন্ত্র সবে কিছুটা স্থিতিশীল হতে শুরু করেছে৷ সব রাজনৈতিক দল ও নাগরিকদের বর্তমানে প্রধান কর্তব্য হওয়া উচিত সেই গণতন্ত্রকে সুরক্ষিত রাখা৷ তার প্রধান শর্ত- শান্তি৷

এখানে রাজাকারদের তালিকা সম্পর্কে তথ্য প্র্দান করা হয়েছে।
সম্পাদনায়ঃ শাহবাগে সাইবার যুদ্ধ 
৭১'এর ঘাতক-দালাল ও এদেশী দোসর (রাজাকার,আল-বদর)দের বিচারের সময় এসেছে।যারা ৭১'এর রক্ত পিয়াসী সেইসব হায়েনাদের কোন ক্ষমা নেই।৭১এর সেই সব রাজাকার,আল-বদরদের নির্মমতায় স্থব্ধ হয়ে গিয়েছিল মানবতা।ইসলামের লেবাস পড়ে চরম অনৈতিক,ইসলাম বিরোধী কাজে মত্ত হয়েছিল এদেশীয় রাজাকার,আল-বদর বাহিনী।কি অপরাধ তারা করে নাই।খুন,ধর্ষণ,হামলা,নির্যাতন,অগ্নিসংযোগ,লুন্ঠণ।তারাই আজ ইসলামের সেবক সাজে ।৭১এর এই সব কুলাঙ্গারদের বিচারের দাবী সোচ্চার এই প্রজন্ম ।সর্বত্রই এদের বিচারের দাবী উঠছে।সেইসব জাতির শত্রুদের চিনুন

৭১'এর ঘাতক-দালালদের বিচারের সময় এসেছে।এদের কোন ক্ষমা নেই।৭১এর এই সব কুলাঙ্গারদের বিচারের দাবী সোচ্চার এই প্রজন্ম ।সর্বত্রই এদের বিচারের দাবী উঠছে।সেইসব জাতির শত্রুদের চিনুন

১৯৮৮ সালের তথ্য আনুসারে কিছু কিছু আপডেট করা হয়েছিল ২০০৩ সালে তারপর আর আপডেট হয়নি।ফলে অনেকের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি।আসুন সবাই মিলে চেষ্টা করি তাদের (৭১এর ঘাতক-দালালদের )বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানতে।দেশে-বিদেশের সবাই (ব্লগারগণ)মিলে যদি চেষ্টা করি তবে অনেকেরই (৭১এর ঘাতক-দালালদের )বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানা যাবে

৭১'এর ঘাতক-দালাল কে কোথায়….১ম পর্ব(কেন্দ্রীয় শান্তি কমিটি)

৭১'এর ঘাতক-দালাল কে কোথায়…২য় পর্ব(পূর্ব পাকিস্তান (বাংলাদেশ)শান্তি কমিটি)

(তথ্যসূত্র : একাত্তরের ঘাতক ও দালালরা কে কোথায়, প্রকাশনা মুক্তিযুদ্ধ চেতনা বিকাশ কেন্দ্র, তৃতীয় সংস্করণ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৮)

Splash Screen
যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে দাঁড়িয়ে নতুন করে শপথ নিয়েছেন প্রজন্ম চত্বরের আন্দোলনকারীরা। বধ্যভূমির গণজাগরণ সমাবেশে উপস্থিত হাজারো মানুষকে এ শপথ পাঠ করান ব্লগার অ্যান্ড অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট নেটওয়ার্কের আহ্বায়ক ইমরান এইচ সরকার। একই সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের সকল অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন বর্জনের আহ্বান জানান তিনি। সারা দেশের পাড়া-মহল্লা থেকে মিছিল বের করে আজকের হরতাল প্রতিহত করারও ডাক দেয়া হয় সমাবেশ থেকে। বিকাল সাড়ে ৩টায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে গণজাগরণ সমাবেশ শুরু হয়। জাতীয় পতাকা হাতে হাজারো মানুষ অংশ নেন এই সমাবেশে। বেলা ২টা থেকেই ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, ঝিগাতলা, রায়েরবাজার এলাকা থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে স্কুল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আসতে থাকেন। ওই সব এলাকার লোকজনও জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে মিছিল সহকারে সমাবেশে যোগ দেন। শাহবাগের প্রজন্ম চত্বর থেকেও আন্দোলনকারীরা জাতীয় পতাকা নিয়ে মিছিল করে যোগ দেন সমাবেশে। এতে সংহতি প্রকাশ করেন রাজধানীর বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তি, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন। তবে বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। তারা বিদ্যালয়ের পোশাকে সমাবেশে যোগ দেয়। সমাবেশকে ঘিরে নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। শতাধিক র‌্যাব-পুলিশের সমন্বয়ে পুরো বধ্যভূমি নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়।  বিকাল ৩টার দিকেই বধ্যভূমি চত্বর কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ ফাঁসির দাবিতে স্লোগানে স্লোগানে কেঁপে ওঠে বধ্যভূমি এলাকার বাতাস। স্লোগানের ফাঁকে ফাঁকে জাগরণের গান পরিবেশন করে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। ছাত্রনেতাদের বক্তব্য শেষে কাদের মোল্লার নির্যাতনের শিকার সখিনা খাতুন ৭১-এ তার নির্যাতনের কাহিনী তুলে ধরেন। একপর্যায়ে তিনি আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবি করে তিনি কিছু সময় স্লোগান দেন। তখন সখিনা খাতুনকে ব্লগারদের ফান্ড থেকে ১০ হাজার টাকা অর্থিক সহায়তার ঘোষণা দেয়া হয়। এরপর আন্দোলনের অন্যতম নেতা ইমরান এইচ সরকার সমবেত জনতাকে শপথ পাঠ করান। সবাই দাঁড়িয়ে হাত তুলে তার সঙ্গে সুর মিলিয়ে শপথ করেন। শপথে তিনি বলেন, কাদের মোল্লাসহ একাত্তরের সব যুদ্ধাপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না। যুদ্ধাপরাধীদের সকল অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান, সামাজিক সংগঠন এবং তাদের গণমাধ্যমগুলো আমরা বর্জন করবো। শপথকে কাজে পরিণত করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জামায়াত-শিবির যাতে বাংলাদেশের এক ইঞ্চি মাটিতে দাঁড়াতে না পারে সেজন্য সামাজিকভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন। এছাড়া সারা দেশের পাড়ায়-মহল্লায় মিছিল বের করে ইসলামী সমমনা দলগুলোর ডাকা আজকের হরতাল প্রতিহত করার আহ্বান জানান তিনি। শপথ পাঠের আগে ডা. ইমরান সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আমরা ১৮ দিন ধরে আন্দোলন করছি। আমাদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে ছাত্র-শিক্ষক, চিকিৎসক, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদসহ দেশের সব শ্রেণী-পেশার মানুষ শরিক হয়েছেন। গণমানুষের এই আন্দোলন বৃথা যায়নি। তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই আমরা অনেক কিছুই অর্জন করেছি। সারা দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ফলে জাতীয় সংসদে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন সংশোধনের বিল পাস করা হয়েছে। একই সঙ্গে যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামায়াত-শিবিরের বিচারের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল জামায়াত-শিবির সারা দেশে তাণ্ডব চালিয়ে জাতীয় পতাকা পুড়িয়ে দিয়েছে। তাদের প্রতিহত করার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তিনি বলেন, ৭১ সালে আমাদের পুলিশ বাহিনী প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল। এজন্য তারা জামায়াত-শিবিরের টার্গেটে পরিণত হয়েছে। তাই পুলিশ বাহিনীকে বলতে চাই, আপনারা ভয় পাবেন না। আপনাদের সঙ্গে দেশের ১৬ কোটি মানুষ আছে। গত শুক্রবারের সহিংসতায় আহত সাংবাদিকদের দ্বিতীয় প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অভিহিত করেন তিনি। ডা. ইমরান বলেন, ২০১৩ সালের গণজাগরণের আন্দোলন যদি দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ হয় তাহলে গণমাধ্যম কর্মীরাও একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ সাংবাদিক সিরাজউদ্দিনের উত্তরসূরি। আপনার ভয় পাবেন না। এ লড়াইয়ে সারা বাংলাদেশের মানুষ আছে। আমাদের সংগ্রাম কোন ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ দাবিতে আমরা সবাই একাত্ম।
উল্লেখ্য, গত ২১শে ফেব্রুয়ারির শাহবাগ চত্বরের মহাসমাবেশ থেকে রায়েরবাজার বধ্যভূমি, মিরপুর গোলচত্বর, মতিঝিল শাপলা চত্বর এবং যাত্রাবাড়ীতে গণজাগরণ সমাবেশ করার কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে প্রথম সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আগামীকাল মিরপুর গোলচত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। 

ছাত্রনেতারা যা বললেন
ছাত্রলীগ সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ বলেন, বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণভাবে ইসলাম কায়েম হয়েছিল। কিন্তু একটি মহল মিথ্যা তথ্য দিয়ে আলেম সমাজকে বিভ্রান্ত করছে। ধর্মের নামে জামায়াত-শিবির ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, গত শুক্রবার জামায়াত-শিবির সারা দেশে তাণ্ডব চালিয়েছে। আমরা এর নিন্দা জানাই। আমি আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বলতে চাই, আপনারা ভয় পাবেন না। আমরা ছাত্র-জনতা আপনাদের সঙ্গে আছি।  তিনি বলেন, যারা পবিত্র মসজিদে বোমাবাজি করেছে তাদের শরীয়া আইনে বিচার করতে হবে। আমাদের দাবি একটাই- রাজাকারদের ফাঁসি দিতে হবে। এই দাবির প্রতি আমরা সবাই একাত্ম হয়ে আন্দোলন করছি। কিন্তু বিরোধী দল বিএনপি বিভ্রান্তিকর তথ্য দিচ্ছে। তারা বলেছে, গণজাগরণ সমাবেশ নাকি আওয়ামী লীগের সমাবেশ। আমি তাদের উদ্দেশে বলতে চাই, এখানে এসে দেখে যান এটা কাদের সমাবেশ। বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনি বলেছেন এই আন্দোলনের দাবির সঙ্গে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংযুক্ত করার জন্য। কিন্তু আপনি কেন জিয়া হত্যা, ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা, কিবরিয়া হত্যা, আহসানউল্লা মাস্টার হত্যা, সাগর-রুনির হত্যার বিচার চান না?  আপনি যদি মুখ বন্ধ না করেন তাহলে আপনার বিচার জনতার আদালতে হবে। ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হুমায়ুন আজাদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ফারুক ও বিশ্বজিৎসহ সব হত্যার বিচার হবে। এখানে বিভ্রান্তি ছড়ানোর কোন সুযোগ নাই। ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম বলেন, বাংলাদেশ দু'ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছে। একটা মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি। আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধ শক্তি। অনেক বড় বড় নেতা এই গণজাগরণের বিরুদ্ধে কথা বলছেন। শাহবাগ চত্বরের আন্দোলন নিয়ে মন্তব্য করায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকাকে 'সাবেক মুক্তিযোদ্ধা' হিসেবে তিনি আখ্যায়িত করেন। সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জাসদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল ইসলাম সুমন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তমাল, ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক তানভীর ওসমান, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল রায়, ছাত্র আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর রহমান মিঠু, ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক সালমান খান, ছাত্রনেতা রাশেদুল হাসান, ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সামিয়া রহমান।

সংহতি প্রকাশ 
রায়েরবাজার বধ্যভূমির গণজাগরণ সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করেন স্কুল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে মন্ত্রী-সংসদ সদস্য পর্যন্ত। বিকালে সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করতে উপস্থিত হন স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান, সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, নারীনেত্রী শিরিন আক্তার, অভিনেতা নাদের চৌধুরী, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচীসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ। এছাড়া শিকদার মেডিকেল কলেজ, ওয়েস্ট ধানমন্ডি ইউসুফ হাইস্কুল,  সেইফ স্কুল, ঢাকা আইডিয়েল ক্যাডেট স্কুল, কিশলয় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ঝিগাতলা বিকাশ কেন্দ্র, জাফরাবাদ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়,  চেতনা বিকাশ উচ্চ বিদ্যালয়, বাংলাদেশ কিন্ডার গার্টেন ফাউন্ডেশন, শ্যামলী ক্লাব সংহতি প্রকাশ করে।
   
শাহবাগ চত্বরে চলছে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ
টানা ১৯তম দিনে প্রবেশ করেছে শাহবাগের আন্দোলন। দেশব্যাপী ইসলামী সমমনা ১২ দলের শুক্রবারের বিক্ষোভের পর প্রজন্ম চত্বর আন্দোলন ফের দানা বেঁধে ওঠে। গতকাল সকালে থেকে লোক সমাগম কম হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে বাড়তে থাকে জনসাধারণের উপস্থিতি। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে ওঠে চত্বর। একই সঙ্গে চলে গণস্বাক্ষর অভিযান। মূল সড়ক ছেড়ে একটু দক্ষিণে অস্থায়ী সাব পুলিশ কন্ট্রোল রুমের পশ্চিমে রাস্তায় বসে স্লোগান দেন আন্দোলনকারীরা। কিন্তু দুপুরে ১টার পর সংখ্যা কম থাকলেও  বিকালে গড়াতে তা আবার বাড়তে থাকে। সারাদিন কোন মাইক না থাকলেও বিকাল পাঁচটা ৪০ মিনিটে মাইক দিয়ে স্লোগান দেন আন্দোলনকারীরা। এদিকে রায়েরবাজারে নির্ধারিত কর্মসূচি থাকায় প্রজন্ম চত্বরে কোন ব্লগার ছিলেন না। চত্বর থেকে বক্তারা জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ এবং সব যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি জানান। একই সঙ্গে জাতীয় পতাকা ছিঁড়ে ফেলা, শহীদ মিনার ভাঙচুর, সাংবাদিক নির্যাতন ও গণজাগরণ মঞ্চে আগুন দেয়ার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন প্রজন্ম চত্বরের আন্দোলনকারীরা। অন্যদিকে গতকারও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ তাদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ অব্যাহত রেখেছেন। শুক্রবার বিকেল থেকে শাহবাগ চত্বর দিয়ে সব যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয় পুলিশ প্রশাসন। তা গতকালও অব্যাহত থাকে। এদিকে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে প্রজন্ম চত্বরের মিডিয়া সেলে চলছে গণজাগরণ মঞ্চের গণস্বাক্ষর কর্মসূচি। দ্বিতীয় দিনের মতো সকাল ১০টা থেকে তা শুরু হয়। চলবে ৭ই মার্চ পর্যন্ত। পাশে মুক্তিযুদ্ধ কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটি এবং যুদ্ধাহত ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সন্তান কেন্দ্রীয় কমিটিও গণস্বাক্ষর অভিযান চালাচ্ছেন।

ধর্মভিত্তিক কয়েকটি দলের ডাকা গতকালের হরতাল প্রত্যাখ্যান করে গণমিছিল করেছেন শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরের আন্দোলনকারীরা। এতে বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের নেতা-কর্মী, শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণী-পেশার হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন। সকাল পৌনে ১০টার দিকে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে মিছিলটি পল্টনের দিকে যাত্রা করে। মিছিলটি মৎস্যভবন প্রেস ক্লাব-পুরানা পল্টন-দৈনিক বাংলা হয়ে আবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে শাহবাগে ফেরত আসে। মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা হরতালবিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি বন্ধ করার দাবি জানিয়ে স্লোগান দেয়। মিছিলের আগে সকাল থেকেই শাহবাগ স্কয়ারের জমায়েত হতে থাকে সর্বস্তরের মানুষ। সকালে উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিতি বাড়তে থাকে। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে ও মানুষকে উজ্জীবিত করতে টানা স্লোগান চলে শাহবাগ স্কয়ারে। মাইকে একজন ঘোষণা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাতে অংশ নেন অন্যরা। আন্দোলনের অন্যতম উদ্যোক্তা ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক হাসান তারেক বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আমরা আন্দোলন করছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। তিনি বলেন, আমাদের আন্দোলনে সর্বস্তরের মানুষ সমর্থন দিচ্ছে। আজকের (গতকাল) মিছিলই তার প্রমাণ। মিছিলে হাজার হাজার মানুষ অংশ নিয়েছে। কোন ধরনের সহিংস ঘটনা ঘটেনি। অথচ শুক্রবার জামায়াত-শিবির দেশব্যাপী তাণ্ডব চালিয়েছে। তিনি বলেন, কোন ধর্মের বিরুদ্ধে আমরা আন্দোলন করছি না। অথচ আমাদের আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করতে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। জাসদ ছাত্রলীগের সভাপতি হুসাইন আহমেদ তফসির বলেন, আমাদের দাবি স্পষ্ট। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। তিনি বলেন, আমাদের দাবি নিয়ে কেউ কেউ প্রশ্ন তুলছে। আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই এখানে প্রশ্ন তোলার কোন সুযোগ নেই। আমরা ২০ দিন ধরে আন্দোলন করে আসছি। এখানে সব পেশার মানুষ সমর্থন জানাচ্ছে। যারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিপক্ষে তারাই শাহবাগের আন্দোলন নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বলে মন্তব্য করেন তফসির। 
স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি: স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে শাহবাগ স্কয়ার লোকারণ্য। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ম্যাজিক গতিতে বাড়তে থাকে উপস্থিতি। সকাল আটটার দিকে শাহবাগ স্কয়ারে দেখা যায় উপস্থিতি কম। মাইকে চলছে স্লোগান। পাশে লোকজন বসে ও দাঁড়িয়ে স্লোগানে অংশ নিচ্ছে। সবার দাবি একদফা। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে সবাই এক। সব শ্রেণীর মানুষ অংশ নিচ্ছে শাহবাগ স্কয়ারে। সেইসঙ্গে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে দেয়া হচ্ছে স্লোগান। 
২০তম দিনেও ক্লান্তি নেই: গতকাল শাহবাগ আন্দোলনের ২০তম দিন অতিবাহিত হয়েছে। ক্লান্তি নেই কারও চোখে-মুখে। চাকরিজীবী ও শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণ বাড়ছে শাহবাগ গণজাগরণ চত্বরে। তীব্র রোদের কারণে যারা আসেননি, রোদের তীব্রতা কমার সঙ্গে সঙ্গে তারাও আসতে শুরু করেছেন। স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে উঠছে হরতালের প্রতিবাদ ও আন্দোলনের ভাষা। উল্লেখ্য, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে গণজাগরণ চত্বরের এ গণআন্দোলনের ঢেউ দেশের সীমানা ছাড়িয়ে পৌঁছে গেছে প্রবাসেও। নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ এ দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করছেন। প্রতিদিনই বাড়ছে এ গণজোয়ারে আসা মানুষের সংখ্যা। কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন সাজার রায় প্রত্যাখ্যান করে গত ৫ই ফেব্রুয়ারি বিকালে শাহবাগ মোড়ে এ বিক্ষোভের সূচনা করে ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট ফোরাম। এরপর বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের জনতা এ গণআন্দোলনে যোগ দেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ লড়াই চলবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।
বিদেশীদের সংহতি: যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগ গণজাগরণ চত্বরে চলমান আন্দোলনের ২০তম দিনে সংহতি প্রকাশ করেছে ভারত, মিয়ানমার ও চীন থেকে আসা ৩ বিদেশী। কার র‌্যালি নিয়ে ভারতের কলকাতা থেকে বাংলাদেশ হয়ে চীন যাওয়ার পথে গতকাল দুপুরে ৮০ জনের দল থেকে ৩ জন প্রতিনিধি এসে সংহতি প্রকাশ করেন। এ সময় ভারতের প্রতিনিধি টাইমস অব ইন্ডিয়ার সাংবাদিক শুভ্র নিয়োগী বলেন, বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম নতুন ইতিহাসের জন্ম দিয়েছে। আমরা প্রতিনিধি হয়ে সংহতি প্রকাশ করতে এসেছি। 
জামায়াত সমর্থিত পত্রিকা বয়কটের আহ্বান: জামায়াত-শিবির সমর্থিত পত্রিকা বয়কটের আহ্বান জানিয়েছে ব্লগার ডা. ইমরান এইচ সরকার। এছাড়া হকারদের জামায়াত-শিবির সমর্থিত পত্রিকা বিক্রি না করতেও আহ্বান জানান। শনিবার রাতে গণজাগরণ মঞ্চে তিনি এ আহ্বান জানান। ডা. ইমরান এইচ সরকার বলেন, আমাদের আন্দোলন যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে। কোন ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। অথচ জামায়াত-শিবির সমর্থিত পত্রিকা এটা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নানা ধরনের মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করছে। 
মিডিয়া সেলে ভিড়: যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগের গণজাগরণ চত্বরে চলমান গণআন্দোলনের অংশ হিসেবে গণস্বাক্ষরতা কর্মসূচিতে গতকালও মিডিয়া সেলে ভিড় করছেন গণআন্দোলনে অংশগ্রহণকারীরা। সকাল ১০টা থেকে স্বাক্ষর গ্রহণ কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সকাল সাড়ে ৯টা থেকেই ভিড় করে স্বাক্ষর দেয়া শুরু করেন জনতা। ভোর সাতটা থেকেই আন্দোলনকারীরা জড়ো হন গণজাগরণ চত্বরে। জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় গণআন্দোলনের কার্যক্রম। এর পর পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে দফায় দফায় হরতালবিরোধী গণমিছিল বের করা হয়।

ভারতে পত্রপত্রিকায় গত রোববার বড় জায়গা করে নেয় বাংলাদেশের খবর। বর্তমান, আনন্দবাজার, সংবাদ প্রতিদিন, কলম, দৈনিক আজকাল, এই সময়, খবর ৩৬৫ দিন সহ অন্য দৈনিকগুলোতে লেখা হয়েছে -
'উত্তাল বাংলাদেশ৷ সে দেশের 'ইসলামি- সমর্থকদের' সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। দৈনিক বর্তমান লিখেছে— 'বাংলাদেশে গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতি, উদ্বিগ্ন ভারত।'

আনন্দবাজার লিখছে 'কী করবে সরকার? জরুরি অবস্থা জারির কথা কি ভাবা হচ্ছে?

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু আনন্দবাজার পত্রিকাকে বলেন, 'কখনওই না। স্বাধীনতাবিরোধীদের হাঙ্গামা ঠেকাতে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীর উপরে সরকারের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। দরকারে বিজিবি'র মতো আধাসামরিক বাহিনীর সাহায্য নেয়া হবে। কিন্তু জরুরি অবস্থা জারির কথা বিবেচনা করা হচ্ছে না।' ইনুর দাবি, শুক্রবার মৌলবাদীরা অতর্কিত হামলা চালানোতেই তা প্রতিরোধ করা করা হয়েছিল। কিন্তু সর্বত্র নিরাপত্তা বাহিনী দারুণ কাজ করেছে। বামপন্থী এই নেতা বলেন, 'আগের হরতাল মানুষই রাস্তায় নেমে ব্যর্থ করেছিলেন। এবারও তাই হবে। প্রশাসন পাশে থাকবে।' তথ্যমন্ত্রীর কথায়, বাংলাদেশে এখন একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ বা বাহান্নর ভাষা আন্দোলনের মতো আবেগ তৈরি হয়েছে। বিরোধিতা করে আর সুবিধা হবে না। তিনি বলেন, 'মানুষ বুঝে গিয়েছেন, এই লড়াইয়ে পরাজয়ের অর্থ তালিবানের হাতে দেশকে তুলে দেয়া। ইসলাম আর তালিবান এক নয়।'

বিএনপি'র মহাসচিব ফখরুল মির্জা কিন্তু শাহবাগের আন্দোলনকে 'সরকারি বিক্ষোভ' বলেই অভিহিত করেছেন। তার কথায়, শাহবাগের শাক দিয়ে অপশাসনের মাছ ঢাকতে চায় আওয়ামী লীগ।

'টইমস অফ ইন্ডিয়া' ও 'এই সময়' লিখেছে 'বাংলাদেশে সংবেদনশীল অঞ্চলে আরও জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা৷ পুলিশ-জামায়াত সংঘর্ষ, ৭ জনের মৃত্যু এবং ৩০০ জন আহত হওয়ার খবর স্বীকার করেছেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামিম আহমেদ৷ এক বিবৃতিতে তিনি জানান, অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগে অনেককে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

এ দিকে, শুক্রবারের 'তাণ্ডবের' জন্য চট্টগ্রামে, রাজশাহী, সিলেট ও চাঁদপুর জেলায় জামায়াতের বিরুদ্ধে পুলিশ মামলা করেছে৷ চট্টগ্রামে গণজাগরণ মঞ্চ এবং প্রেস ক্লাবে হামলা ও আগুন লাগিয়ে দেয়ার অভিযোগে প্রায় সাড়ে তিন হাজার জামায়াত সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ পুলিশের কাজে বাধা এবং পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে চট্টগ্রামে জামায়াত সংগঠনের বিরুদ্ধে দু'টি মামলা করা হয়েছে৷ দ্রুতবিচার ও সন্ত্রাস দমন আইনের আওতায় এই মামলা দু'টি করা হয়েছে৷

রাজশাহীতে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার জামায়াত সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে৷ উল্লেখ করা হয়েছে ১০০ জনের নাম৷ চাঁদপুরে জাতীয় পতাকার অবমাননার জন্য দু'টি মামলা করা হয়েছে৷ অভিযোগ আনা হয়েছে ১,২০০ জনের বিরুদ্ধে৷ প্রধান বিরোধী সংগঠন বাংলাদেশ ন্যাশনাল পার্টির (বিএনপি) চাঁদপুর সদরের সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান গাজিসহ ৪৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

শহীদ মিনারে হামলা, ভাংচুর এবং কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে সিলেটে দু'টি মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ ৭০ জনের নাম উল্লেখ করা ছাড়া অভিযোগ আনা হয়েছে মোট ৫ হাজার জনের বিরুদ্ধে৷ দু'টি মামলাতেই এ পর্যন্ত ৫৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে সিলেট পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে৷

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস লিখেছে-'ইসলামী রাজনীতি নিষ্ক্রিয় করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগে বাংলাদেশে ১২ ঘণ্টা হরতালের ডাক দিয়েছে বারোটি ইসলামি দল। হরতালকে সমর্থন করছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি।

সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। আজকের হরতালকে জামায়াত-শিবিরের হরতাল বলে উল্লেখ করে তা প্রতিহত করার আহ্বান জানিয়েছেন শাহবাগের স্বাধীনতা প্রজন্ম চত্বরের আন্দোলনকারীরা। গণমিছিলের ডাক দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ। একদিকে যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তি দাবি, অন্যদিকে বিচার বাতিলের দাবি জামায়াতের। সব মিলিয়ে এই মুহূর্তে অগ্নিগর্ভ বাংলাদেশের পরিস্থিতি। গতকাল, পাবনায় জামায়াতে ইসলামীর কর্মীদের হিংসাত্মক হামলা ঠেকাতে গুলি চালায় পুলিশ। গুলিতে দু'জন জামায়াত সমর্থকের মৃত্যু হয়। প্রতিদিনই মৃত্যু বাড়ছে।'

দুর্গম গিরি কান্তার-মরু দুস্তর পারাবার হে লঙ্ঘিতে হবে রাত্রি নিশীথে যাত্রীরা হুঁশিয়ার

ভাই এই আন্দোলনে  ইসলামকে ভুল ভাবে আমাদের বিরুদ্ধে উপস্থাপন করবেনা, আমরাও নামজ পরি, রোজা করি। বেশির ভাগ বাংলাদেশের মানুষ তাই করে, ঠিক আপনি যেভাবে করেন। কিন্তু যারা ইসলাম ধর্মকে দেশের সাথে গুলিয়ে ফেলছেন তাদেরকে বলি, ইসলামের কথাও দেশের সাথে গাদ্দারিকে সমর্থন করেনি। আমরা যাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি তারা দেশের সাথে গাদ্দারি করতে গিয়ে অনেক মুসলমানকেও হত্যা করেছে ১৯৭১ সালে। যে নবীর উপর ইহুদিরা পাথর মেরে তাঁর দাত মোবারক শহিদ করেছিল, সে সময় তিনি চাইলে পুরা দুনিয়াকে উল্টায়ে দিতে পারতেন, তিনি তা না করে আল্লাহর কাছে তাদের জন্য হেদায়েত চেয়েছিলেন। সেই মহান নবীর ধর্মের নাম বাবহার করে জামাত যেভাবে রাস্তায় মানুষ মারছে আমরা তার প্রতিবাদ জানিয়েছি। ইসলামকে নয় জামাতকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছি, যারা এই ২০১৩ সালে এসেও তাদের ডাকা হরতালের সময় মানুষ মারছে আমরা তাদেরকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছি। কারণ আমরা ভাই ইসলামের মধ্যে কোনো হিংস্রতা খুজে পাইনা, আর যারা হিংস্র তাদেরও ইসলামের সাথে মিলাইনা। 

আমরা যেমন রাস্তায় নেমে এই দুই লক্ষ্য মানুষ আমাদের সামনেই চিকিত্সা নেয়া যুদ্ধাপরাধীদের গায়ে একটা ফুলের টোকাও দেইনা, তেমনি কোনকিছুই গায়ের জোরে দাবি বাস্তবায়নও করতে চাই  না। আমরা চাচ্ছি যে গণরায়ের মাধ্যমে এই যুদ্ধপরাধীদের বিচারে তাদের প্রাপ্প সর্বোচ্চ শাস্তি যাতে তারা পায়, যারা এই ২০১৩ সাল পর্যন্ত ১৯৭১ সালের তাদের কৃতকর্মের জন্য একবারও ক্ষমা চায়নি। বরং বারবার তারা হুঙ্কার দিয়ে বলেছিল যে ১৯৭১ সালে নাকি শুধু একটা গন্ডগোল হয়েছিল আর কিছুনা। আপনি যদি আপনার দেশের সৃষ্টিকে একটা সাধারণ গন্ডগোল হিসেবে পার পেতে দেন তাহলে এই লক্ষ লক্ষ শহীদের রক্তের সাথে কিভাবে বিচার করবেন?

আমরা তাদের বিরুদ্ধে "বজ্র কন্ঠ" যারা আরব দেশের মানুষের উপর দ্রোন হামলার বিরুদ্ধে সোচ্চার না, যারা তাদের ১৯৭১ সালের লুন্ঠন করা টাকা আর সেসব টাকা দিয়ে করা বাব্সার টাকায়  বিভিন্ন বিদেশী গোষ্ঠীদের লবিস্ট নিয়োগ করেছে, যেসব লবিস্ট বা হিউমান রাইটস প্রতিষ্ঠান গুলো গুয়াতেমালা বে কারাগারের পক্ষে সাফাই গায়, যারা আরব দেশের মাটি থেকে বিভিন্ন ক্ষেপনাস্ত্র নিক্ষেপ করে মুসলমানদের যারা মারছে তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার না।

যারা ১৯৭১ সালের আমাদের দেশের অনেক মুসলমানদের মারার জন্য সরাসরি দায়ী, তাদের এখনকার ইসলামী তাগিদ কোথায় ছিল তখন? যখন ১৯৭১ সালে মুসলমানদের  হত্যা করা হয়েছিল তারা কি তখন কথাও কোনো খানে একটা প্রতিবাদ করেছিল? তাদের তো অনেক প্রচার মাধ্যম ছিলো তখনো। আমরা তাদের বিচার চাইছি।

আমরা কোনো নিরাপরাধ বেক্তির ফাঁসি চাচ্ছিনা, আমরাতো কোনো হিংসাত্মক রাস্তায় আমাদের দাবি করছিনা। এই আন্দোলনে আমরা সবইকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। এটা যেহেতু কোনো ধর্মের বিরুদ্ধে না এখানে সবাই এসেছে। এখানেতো রাজাকারের সন্তানরাও তাদের বাবার বিচার চাইতে এসেছিল, কই রাজাকারের সন্তান হিসেবেতো তাদের কিছু বলা হয়নাই।

ইসলামের নামধারী আর কিছু অমুসলিম রাষ্টের কিছু সংগঠন যারা "অবটাবাদে"  তাদের শক্তির মহড়া দিয়ে একটা মুসলিম দেশের উপর দিয়ে একটা মুসলমান অধষিত এলাকায় একজন মুসলমানকে মারতে গিয়ে কোরান শরিফ পাদিয়ে সরিয়ে ইসলামের অবমাননা করেছিল, সেই সব অতিমানবরা আমাদের বিরুদ্ধের মানবাধিকারের কথা বলছে।

আমরা কোনো হিংসাত্মক রাস্তায় বিশ্বাসী না, কিংবা আমাদের ধর্ম অথবা অন্য কোনো ধর্মের অবমাননায় বিশ্বাসীনা। আমরা চাই এইদেশ যেন কোনো আফগানিস্তান কিংবা পাকিস্তান না হয়। যে দেশে তার জন্মের সময়কার  অন্যায়ের বিচার হয়না সেইদেশে কখনো কোনো ধর্ম প্রতিষ্ঠিত হয়না। এক অন্যায়ের বিচার না হওয়া এক লক্ষ্য অন্যায়ের জন্ম দেয়। আমরা আমাদের সাথে হওয়া প্রতিটা অন্যায়ের বিচার চাই, সে যেই করুক।

আমি একজন সাধারণ মানুষ আমারও অনেক ভুলত্রুটি থাকতে পারে কিন্তু আমি যদি অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলার সৎ সাহস হারিয়ে ফেলি তাহলে আর মানুষই থাকলাম কই? আমাদের উচিত সবাই সবার ভুলত্রুটি ক্ষমা চেয়ে দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে অন্যায়ের বিরুদ্ধে যারা লড়ছে তাদের সাথে থাকা।

দুর্গম গিরি কান্তার-মরু দুস্তর পারাবার হে
লঙ্ঘিতে হবে রাত্রি নিশীথে যাত্রীরা হুঁশিয়ার

দুলিতেছে তরী, ফুলিতেছে জল, ভুলিতেছে মাঝি পথ
ছিঁড়িয়াছে পাল, কে ধরিবে হাল, আছে কার হিম্মত

কে আছ জোয়ান হও আগুয়ান, হাঁকিছে ভবিষ্যত্

জয় বাংলা

আমি শাহবাগ থেকে বলছি

আমি শাহবাগ থেকে বলছি
আমি  শাহবাগ থেকে বলছি

আমি শাহবাগ থেকে বলছি, যেখানে সব বয়সের মানুষ আজ এক হয়েছে একটা দাবিতে "ফাঁসি ফাঁসি ফাঁসি চাই রাজাকারের ফাঁসি চাই "।

এখানে যেসব  স্লোগান হচ্ছে তা  ১৯৬৯, ১৯৭১ কে টেনে এনেছে ২০১৩ সালে আর ছড়িয়ে দিচ্ছে বাঙালি রক্তের সেই পরিচিত বিদ্রোহী  আগুন। যে আগুনে পুড়ে শেষ হয়ে গিয়েছিল ইংরেজ আর  পাকিস্তানি জল্লাদ বাহিনী। পাকিস্তানি জল্লাদ পুড়েছে  কিন্তু তাদের যেসব ময়লা আমাদের দেশে রেখে গেছে  আজ তাদেরই ফাঁসির দাবিতে জনতা বীর-জনতা একসাত হয়েছে ।

এই ময়লা গুলোকে আমাদেরই কিছু রাজনৈতিক সংগঠন তাদের কিছু ভুল আর লোভের কারণে কখনো নিজেদের পাশে, কখনো সন্মান দেখিয়ে  কিংবা আমাদের জাতীয় পতাকা তাদের গাড়িতে উড়ানোর ব্যবস্তা করে দিয়ে এই পবিত্র পতাকাকে একটা ময়লার গাড়ির পর্দা বানিয়েছিলেন এবং নিজেদের গায়ে মেখেছেন দুর্গন্ধ।

আজকে আমরা সেইসব ময়লারদের ফাঁসি চাইতে জমায়েত হয়েছি। এখানে কোনো রাজনীতি নাই, কেউ রাজনীতি  করার স্পর্ধাও  দেখাতে পারবেনা। আমরা যেমন রাস্তায় আছি তেমনি আছি সকল মাধমে। এখানে কেউ ভুল করবেনা, করতেও পারবেনা কারণ এখানে কোনো নেতা নেই, হবেওনা আর তাই কোনো আতাত করার কিংবা  প্রতিশ্রুতি দেয়ারও কেউ  নাই, এখানে সবাই নেতা পুরো জাতি নেতা, এখানে পতিশ্রুতি নয় শুধু দাবি বাস্তবায়ন  করে দেখাতে হবে বিশেষ করে সরকারকে, এখানে সবাই দেখবে শুধু ফাঁসি হয়েছে সেই রাজাকারদের যারা ১৯৭১ সালে এইদেশে চালিয়েছিল নারকীয় হত্যা, এরা কখনই বাঙালি হতে পারেনা। কেউ  যদি এই আন্দোলনকে অন্য কোনো পন্থায়  নিতে চায় কিংবা যারা অন্য কোনো দিকে প্রভাবিত করতে চায় সেই লোকদের  সাহায্য করার চিন্তাও  করছে তাদের পরিনতিও একই রকম হওয়া ছাড়া অন্য কিছু হওয়ার কোনো কারণ নাই।

এখানে সবাই শুধু বসে আছে দাবি বাস্তবায়নের অপেক্ষায় আর স্লোগান হচ্ছে  

"কফিন রেডি বডি চাই , রাজাকারের ফাঁসি চাই "

এদের বিচার করতে গিয়ে এইদেশের গরিব চাষীর ট্যাক্স এর টাকার বিদ্দুত, পানি, সরকারী আমলার বেতন, জ্বলানী আর জেলের ভাত অপচয়ের মানে কি ?

১৯৭১ সালে তারা কোন আইনে বাংলাদেশের মানুষদের, বুদ্ধিজীবিদের হত্যা করেছিল যে তাদের জন্য আইন করে জাতীয় সংসদে টাকা খরচ অধিবিশন করছি। কিছুদিন আগে যে কিবরিয়া সাহেবের মতো এতো বড় জাতীয় সম্পদকে খুন করা হলো, কোথায় কি হয়েছে? সেখানে এই কিটদের মারলে দেশের ভাবের মূর্তি কোথায় গিয়ে ভেঙ্গে পড়বে?

আজকে আমাদের আগের প্রজন্মের ভুলের কারণে বাংলাদেশের জাতীয় পুলিশ বাহিনীর গায়ে যখন ৭১ এর ময়লার ডিম গুলো হাত তুলেছে তখন কোথায় ছিল আইন, যারা বংলাদেশকে মানেনা এবং বাংলাদেশের আইন মানেনা তাদের কোন আইনে শাস্তি হচ্ছে সেটা অমূলক।
আমি জানি আমাদের রাজনীতিতে যারা আছেন তাদের কাছে হয়ত ক্ষমতায় যাওয়াটা খুব জরুরি, কিন্তু আপনাদের এই আকাঙ্ক্ষায় যদি দেশটাই শেষ হয়ে যায়। তাহলে কোন দেশের ক্ষমতায় যাবেন আপনারা? তাই সবার কাছে আমাদের প্রত্যাশা খুব তাড়াতাড়ি যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি কার্যকর করার বেবস্থা করে জাতির আর আপনাদের মাথায় যে বের্থতার কালি আছে তা মুছে ফেলবেন।

আজকে দেশে দুই জন প্রধান  বেক্তি যার একজন জাতির পিতার মেয়ে আর একজন স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা পাঠকারীর পত্নী, আমাদের বিশ্বাস আমাদের চেয়েও এই দাবি তাদের প্রানের দাবি।  সুতরাং আমরা চাই খুব তাড়াতাড়ি দাবির বাস্তবায়ন।

"আমাদের এক দাবি, যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসি "

"পদ্মা মেঘনা যমুনা তোমার আমার ঠিকানা "

"জয় বাংলা, জয় বাংলা, জয় বাংলা, জয় বাংলা"

জাতীয় স্বার্থে ব্লগার অনলাইন এক্টিভিস্টের পক্ষ থেকে শাহবাগের ঘোষনা এবং সাত দফা দাবি উত্থাপন:

১। দ্রুততম সময়ের মধ্যে মিরপুরের জল্লাদ খ্যাত কশাই কাদেরের ফাঁসির লক্ষ্যে সরকারকে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নিতে হবে।

২। যে আইনের ভিত্তিতে ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠিত প্রয়োজনে সেই আইনকে ন্যুনতম সময়ের মধ্যে সংশোধন করে সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করতে হবে। তার জন্য এই মুহুর্তেই সংশোধনী এনে কাদের মোল্লার রায় পুনপর্যালোচনা করতে হবে। এই বিচারকার্যের সাথে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষিত, বিশেষজ্ঞ আইনজ্ঞ এবং শহীদ পরিবারদের অঙশগ্রহণে উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করতে হবে।

৩। ট্রাইবুনালকে একটি স্থায়ী রুপ দিতে হবে এবং সারাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ এবং বিচারের আওতায় আনতে হবে। একাত্তরে বাংলাদেশে মানবতাবিরোধী অপরাধের সকল ঘটনা নথিবদ্ধকরণের লক্ষ্যে সত্যানুসন্ধান কমিটি হঠন করতে হবে।

৪। অবিলম্বে সংবিধান সংশোধন করে অনুচ্ছেদ ৪৯ এ একটি নতুন উপধারা যুক্ত করতে হবে, যেন যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা ঘোষনার ক্ষমতা বাতিল করতে হবে।

৫। মুক্তিযুদ্ধে বিরোধীতাকারী দল এবং ব্যক্তিদের বাংলাদেশে রাজনৈতিক অধিকার নিষিদ্ধ করতে হবে।

৬। জামাত নিয়ন্ত্রিত সকল আর্থিক এবং বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান থেকে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অর্থায়নের অভিযোগ তদন্তের জন্যে সেই প্রতিষ্ঠানগুলোতে সরকারী প্রশাসক নিয়োগ দিতে হবে। এবং অভিযোগ প্রমাণিত হলে প্রতিষ্ঠানগুলোকে জাতীয়করণ করতে হবে।

৭। যুদ্ধাপরাধের বিচারে পাকিস্তানকে অর্ন্তভুক্ত করার জন্যে আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে ট্রাইবুনালের অধীনে আনতে হবে।

সৌজন্যে--- জাতীয় স্বার্থে ব্লগার অনলাইন এক্টিভিস্ট
হরতালে জনজীবন বিপর্যস্ত, মানিকগঞ্জে পুলিশের গুলিতে নিহত ৪

সোমবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩

স্টাফ রিপোর্টার: হরতালে উত্তপ্ত সারা দেশ। পুলিশের গুলিতে রক্তাক্ত মানিকগঞ্জের সিংগাইর। গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন ৪ জন। আহত হয়েছেন ৩০ জন। প্রতিবাদে মানিকগঞ্জে আজ আবারও সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা। সমমনা ইসলামী ১২ দল আহূত গতকালের হরতালে রাজধানী শহর শান্ত থাকলেও সহিংস হরতাল পালিত হয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। জনজীবন ছিল বিপর্যস্ত। হরতাল 
সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ঘটেছে দিনাজপুর, ঝিনাইদহ, চাঁদপুর, বগুড়া, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রামের হাটহাজারী, কক্সবাজারের পেকুয়াসহ বিভিন্নস্থানে। যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কোথাও কোথাও আওয়ামী লীগ কর্মীদের সঙ্গে হরতাল সমর্থকদের সংঘর্ষ ঘটেছে। রাজধানীতে হরতালবিরোধী লাঠি মিছিল করেছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। শাহবাগ স্কয়ার থেকে হরতালবিরোধী একটি বিশাল গণমিছিল শাহবাগ থেকে বের হয়ে প্রেস ক্লাব হয়ে দৈনিক বাংলার মোড় ঘুরে আবার শাহবাগে এসে শেষ হয়। 
মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষে এক মাদরাসাপড়ুয়া ছাত্রী মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন, পুলিশের গুলিতে নিহত  হয়েছেন ৪ জন। আহত হয়েছেন ৩০ জন। আহতদের বেশির ভাগকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। হরতাল সমর্থকদের হাতে আহত হয়েছেন সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ, সিংগাইর থানার ওসি লিয়াকত আলীসহ ১৫ পুলিশ সদস্য। বিক্ষুব্ধ জনতা জ্বালিয়ে দিয়েছে থানার দুই এসআইর মোটরসাইকেল। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আগুন ধরিয়ে দিয়েছে স্থানীয় বিএনপির কার্যালয়সহ হরতাল সমর্থকদের দু'টি দোকানে। পুলিশে গ্রেপ্তার করেছে ৬ হরতাল সমর্থককে। গ্রেপ্তার আতঙ্কে পুরুষশূন্য রয়েছে গোবিন্দল গ্রাম। 
মানিকগঞ্জ থেকে রিপন আনসারী/হাফিজউদ্দিন/আতাউর রহমান জানান, মানিকগঞ্জের সিংগাইরে হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশের গুলিতে জামায়াতের দুই কর্মীসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া পুলিশসহ ৩০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। নিহতরা হলেন গোবিন্দল ইউনিয়ন জামায়াতের অর্থ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, জামায়াত কর্মী নাজিম উদ্দিন, গোবিন্দল গ্রামের শাহ আলম, আলমগীর হোসেন।
মানিকগঞ্জে আজ হরতাল: পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, গতকাল সকাল ১০টার দিকে সিংগাইরের গোবিন্দল এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা রাস্তায় ব্যারিকেড দিলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদসহ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বাধা দেয়। কিছুক্ষণ পর হরতাল সমর্থনকারীরা বিক্ষোভ নিয়ে আবদুল মাজেদের ওপর হামলা চালায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ খবরে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা সিংগাইর উপজেলা বিএনপি কার্যালয়সহ আশপাশের দোকানপাটে ভাঙচুর চালায়। পরে হরতাল সমর্থনকারী ও উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা ঢাকা-মানিকগঞ্জ-সিংগাইর সড়কের প্রায় ২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে গাছের গুঁড়ি ও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে গোবিন্দল, কাশিমনগরসহ আশপাশের কয়েক গ্রামে হাজার হাজার নারী-পুরুষ রাস্তায় বেরিয়ে অবরোধ তৈরি করে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে গ্রামবাসী ও হরতাল সমর্থকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলিবর্ষণ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে কমপক্ষে ২০ জন নারী-পুরুষ গুলিবিদ্ধ হন। গুলিবিদ্ধ অবস্থায়  সিংগাইর হাসপাতালে নেয়ার পর দু'জন ও ঢাকা মেডিকেলে নেয়ার পথে আরও দু'জন মারা যান। মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলী মিয়া দাবি করে বলেন, পিকেটারদের  হামলায় ১৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেখানে র‌্যাব ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মাসুদ করিম জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সকল প্রকার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। 
গুলিবিদ্ধ হয় হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে আলী আকবর (১৮), লিংকন (২৫), নোয়াব আলী (১৪), সিদ্দিক (২৮), নাজিম উদ্দিন (১৮), কালূ (২০), আলমাস (৪০), দুলাল মিয়া (২২), আলমাস (৩৩), মানিক (২৬), মামুন (৩২), আনোয়ার (২৭), ওয়াজেদ (২৮), শাহিন (৩২), রুবেল (২৫), রউফ (৩৫) ও  শিশু লিটন। 
গুলিবিদ্ধ ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক:
সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধদের মধ্যে ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হচ্ছে রুবেল (২৫), হেলেনা (১৮), লিংকন (১৫), আলমাছ (৩২), নওয়াব আলী (১৪), মানিক (৩৫), আলী আকবর (১৮), দুলাল (২৬) ও সিদ্দিক (৩৫)।
সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের জরুরি চিকিৎসক ডা. মাহমুদুল হাসান জানান, সিঙ্গাইরের গুলিবিদ্ধ ৯জন তাদের হাসপাতালে এসেছে। তাদের অপারেশন করে গুলি বের করার পর একে একে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়েছে। 
প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য: সাব্বির হোসেন শুভ নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাদরাসার ছাত্ররা মিছিল করছিল। তখন পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পরে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে তারা মিছিল নিয়ে সামনের দিকে এগোতে থাকলে পুলিশ লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও গুলিবর্ষণ শুরু করে। তারা বাড়িতে ঢুকেও গুলি করেছে। যারা গুলিবিদ্ধ হয়েছে তারা মাঠে ক্ষেতে কাজ করছিল। তার বড় ভাই মামুনের ডান পায়ে গুলি বিদ্ধ হয়েছে।
সিংগাইর পৌরসভার কাউন্সিলর এস এম রিপন আক্তার ফজলু জানান, মাদরাসা ছাত্রসহ স্থানীয় লোকজন সিংগাইর-মানিকগঞ্জ সড়ক অবরোধ করতে গেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। একপর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তারা গুলি চালায়।
প্রত্যক্ষদর্শী হাফেজ মো. জাকারিয়া জানান, গোবিন্দল মাদ্রাসা থেকে হরতাল সমর্থনে মিছিল বের হলে প্রথমে পুলিশ বাধা দেয়। পরে পুলিশের সাথে ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু করে। 
নিহতরা জামায়াত ও খেলাফত মজলিস কর্মী: এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস জানিয়েছে, নিহত আলমগীর তাদের কর্মী।
এদিকে নিহত শাহ আলমকে নিজেদের কর্মী দাবি করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে মানিকগঞ্জ জেলা জামায়াত। মানিকগঞ্জ জেলা জামায়াতের বরাত দিয়ে কেন্দ্রীয় জামায়াতের এক নেতা দাবি করেন, নিহত নাসির উদ্দিন গোবিন্দল ইউনিয়ন জামায়াতের অর্থ সম্পাদক। আর নাজিম স্থানীয় জামায়াতের কর্মী।  
খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শফিক উদ্দিন এক বিবৃতিতে বলেছেন, হরতাল সমর্থকদের একদিকে পুলিশ বাধা দিচ্ছে, অন্যদিকে পুলিশ বেষ্টনীতে যুবলীগ-ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা রাস্তায় ত্রাসের সৃষ্টি করে। 
তবে এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা জানায়, নিহতরা কোন দল বা সংগঠনের সঙ্গে জড়িত নয়।
গ্রেপ্তার ৬: হাসপাতালে গুলিবিদ্ধের স্বজনদের মধ্য থেকে ৬ জনকে বিকালে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজ্জাদ রোমন জানান, পুলিশের সঙ্গে সংর্ঘষের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করে থানায় নেয়া হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবদ চলছে।
ওলামা মাশায়েখের হরতাল আহ্বান: এ ঘটনায় আজ মানিকগঞ্জ জেলায় হরতাল আহ্বান করেছে ওলামা মাশায়েখ দলসহ ইসলামী সমমনা ১২ দল। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে হরতাল সম্পর্কে কিছুই জানানো হয়নি।
জয়পুরহাট প্রতিনিধি  জানান, জয়পুরহাট ইসলামী সমমনা দলগুলোর ডাকে গাড়ি পোড়ানোর মাধ্যমে হরতাল চলছে। হরতালে সকালে শহরের ৭ কিলোমিটার দূরে কোমরগ্রাম এলাকায় জয়পুরহাট-বগুড়া সড়কে বগুড়া থেকে আসা একটি পত্রিকা বহনকারী মাইক্রোবাসে আগুন ধরিয়ে দেয় পিকেটাররা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও বগুড়ার আঞ্চলিক পত্রিকাসহ গাড়িটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। এছাড়া শহরে দূরপাল্লার কোন গাড়ি ছাড়েনি, দোকানপাট তেমন খোলেনি তবে শহরের কোথাও পিকেটারদের চোখে পড়েনি। শহরের সব এলাকাতেই অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 
স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকে জানান, ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার রানীবন্দর বাজারে হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। পিকেটারদের ইটপাটকেল নিক্ষেপে পুলিশের এক সদস্যসহ আহত হয়েছে ৩ জন। হরতালের শুরুতে সকালে ওই এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা ঝটিকা মিছিল বের করে। এ সময় তারা টায়ার জ্বালিয়ে  বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এতে পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। চলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। এ সময়  পিকেটারদের ইটপাটকেল নিক্ষেপে পুলিশের এক সদস্যসহ ৩ জন আহত হন। এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার দেবদাস ভট্টাচার্য। এদিকে বেলা বাড়ার সাথে সঙ্গে পিকেটারদের  মাঠে দেখা না গেলেও চোরাগোপ্তা হামলার ভয়ে বেশির ভাগ দোকানপাট, মিলকারখানা বন্ধ রয়েছে। অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমা, স্কুল-কলেজসহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও অজানা অতঙ্কে উপস্থিতি সংখ্যা কম রয়েছে। স্থবির হয়ে পড়েছে কার্যক্রম। রিকশা, অটোরিকশা, ভ্যানসহ সব ধরনের হালকা যানবাহন চলাচল করেছে। দূরপাল্লার বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে  ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক। নাশকতা ঠেকাতে শহরের বিভিন্ন স্থানে ভোর থেকেই অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। 
হাটহাজারী প্রতিনিধি জানান, ইসলাম বিরোধী নাস্তিক ব্লগারদের বিরুদ্ধে শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিলে পাঁচ মুসল্লি নিহত হওয়া, গণজাগরণ মঞ্চে ইসলাম নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে গতকাল সারা দেশে ইসলামী সমমনা ১২টি দলের ডাকে হরতাল পালিত হয়েছে। এ হরতালে সমর্থন দিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। সকালের নামাজের পর একটি বিক্ষোভ মিছিল দিয়ে হাটহাজারীতে শুরু হয় ইসলামী সমমনা দলগুলোর হরতাল কর্মসূচি। এর পর সারা দিনই ১৫ মিনিট অন্তর খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করতে থাকে হরতাল সমর্থনকারীরা। সকালে চট্টগ্রাম হতে হাটহাজারীতে পত্রিকা নিয়ে আসার সময় হাটহাজারীর ১১ মাইল নামক স্থানে হকার অনিল বাবুর সব পত্রিকা পুড়িয়ে দিয়েছে পিকেটাররা। হাটহাজারীর বিভিন্ন ইউনিয়নের সড়কগুলো অবরোধ করে রেখেছে হরতালকারীরা। আল্লামা আহম্মদ শফির ডাকে আগামীকাল হাটহাজারী পাব্বর্তী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সমাবেশের ডাক দিয়েছে, বিক্ষোভের সমর্থনের গত শনিবার থেকে হাটহাজারীর বিভিন্ন ইউনিয়নে বিক্ষোভ করে হাজার হাজার মুসল্লি। এদিকে সকাল থেকে অবরোধ অবস্থায় হাটহাজারী রেল স্টেশনে আটকা পড়ে আছে চট্টগ্রাম-নাজিরহাট যাত্রীবাহী ট্রেন। সকাল থেকে হাটহাজারী সদরের সব দোকানপাট বন্ধ করে দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। শুধুমাত্র কয়েকটা ওষুধের ফার্মেসি ও চায়ের দোকান খোলা রয়েছে। হাটহাজারী ওলামা পরিষদের পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন জানান, হাটহাজারীবাসীসহ দেশের সকল জনগণ এ হরতাল স্বতঃস্ফূর্তভাবে গ্রহণ করেছে।
স্টাফ রিপোর্টার  বগুড়া থেকে  জানান, বিএনপি-জামায়াতের সমর্থনে ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা গতকালের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালে বগুড়ার সদরের এরুলিয়ায় জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা রোববার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছিল। এতে পুলিশ বাধা দিলে তাদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করতে ২৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করেছে। অন্যদিকে সকাল সোয়া ৭টায় শহরের খান্দারে হরতালকারীরা মিছিল করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় উত্তেজনার সৃষ্টি হলে পুলিশ ২ রাউন্ড গুলি ছুড়লে তারা চলে যায়।  বগুড়া থেকে দূরপাল্লার কোন যানবাহন ছেড়ে যায়নি। শহরে রিকশা-ভ্যানসহ অভ্যন্তরীণ রুটে দু-একটি বাসসহ টেম্পো চলাচল করছে। ট্রেন যথারীতি ছেড়ে গেছে। শহরের সাতমাথাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন এবং র‌্যাব সদস্যরা টহল রয়েছে। বগুড়া সদর থানার ওসি সৈয়দ শহীদ আলম বলেন, নওগাঁ-বগুড়া মহাসড়কের এরুলিয়া নামক স্থানে পিকেটাররা যানচলাচলে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড শটগানের গুলি ছোড়ে। এ সময় ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদিকে খান্দারের পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ ২ রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে।
মেহেরপুর প্রতিনিধি জানান, মেহেরপুর সদর উপজেলা গাংনী উপজেলার পৃথক দু'টি স্থান থেকে শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে ৪ জামায়াত কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। এরা হলেন যাদবপুর গ্রামের নাছির উদ্দীন (৪৫), নতুন দরবেশপুরের মারুফ হোসেন (৪০) এবং গাংনী উপজেলার চৌগাছা গ্রামের ওহাদ আলী (৪০) ও আয়ুব আলী (৪১)।
রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  জানান, দেশব্যাপী ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা গতকালের সকাল-সন্ধ্যা হরতালে রামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ভাঙচুর ও সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধের মধ্য দিয়ে চলছে। এছাড়া রামগঞ্জ বাস টার্মিনাল, সমিতির বাজার, কচুয়া বাজার, লামচর গাজীপুর সড়কের মাথায়, রামগঞ্জ-সোনাইমুড়ী সড়কের আলীপুর ও রামগঞ্জ আলীয়া মাদরাসার সামনে হরতালের পক্ষে পিকেটিং ও টায়ারে অগ্নিসংযোগ করেছে হরতাল সমর্থিতরা। ঘটনাস্থলে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নাশকতার আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অপরদিকে নোয়াপাড়া নামক স্থানে হরতাল সমর্থক ও পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সকাল ১০টায় হরতাল সমর্থিতরা রামগঞ্জ পানিয়ালা সড়কের নোয়াপাড়া নামক স্থানে রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে ও গাছ ফেলে রামগঞ্জ-পানিয়ালা-শাহরাস্তি সড়ক অবরোধ করে রাখে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে হরতাল সমর্থকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে রামগঞ্জ থানার ওসি মঞ্জুরুল হক আকন্দ সকাল সাড়ে ১০টায় ৩নং ভাদুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদ ও খোকনসহ বহু নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তাদের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ যুবলীগের নেতা-কর্মীদের মোটরসাইকেল মহড়া দিতে দেখা গেছে।
মিরপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি জানান, কুষ্টিয়ার মিরপুরে থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৪ শিবির নেতা-কর্মীসহ ৭ জনকে আটক করেছে। শনিবার গভীর রাতে ও গতকাল সকালে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের সাতমাইল নামক এলাকায় হরতালের সমর্থনে শিবিরকর্মীদের পিকেটিংয়ের চেষ্টাকালে মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শিকদার মশিউর রহমানের নেতৃত্বে তাদের আটক করা হয়। অন্যদিকে চুরি মামলায় মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের চৌদুয়ার গ্রামের রতন মালিথার ছেলে আলিফ হোসেন (২৪), জীবন আরেফিন (১৮) ও নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার এজাহারভুক্ত পলাতক আসামি ইবি থানার পাটিকাবাড়ী গ্রামের বজলুর রহমান মোল্লাকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শিকদার মশিউর রহমান জানান, আটককৃতদের মধ্যে শিবির কর্মী নজরুল ইসলামের কাছ থেকে ১টি শক্তিশালী ককটেল বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। 
চাঁদপুর প্রতিনিধি জানান, চাঁদপুরে বিক্ষিপ্ত ঘটনায় মধ্য দিয়ে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হয়েছে। সকালে পুরানবাজার লোহারপুল এলাকায় একদল পিকেটার টায়ারে আগুন ধরিয়ে চাঁদপুর-হাইমচর সড়ক বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাদের বাধা দিলে পিকেটাররা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে উভয়ের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় কমপক্ষে ৩ জন আহত হয়েছে। চাঁদপুরের পুলিশ সুপার আমির জাফর জানান, হরতালে নাশকতার আশঙ্কায় পুলিশ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৫ জনকে আটক করেছে।  অন্যদিকে, হরতাল প্রতিহত করতে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. শামছুল হক ভূঁইয়ার নেতৃত্বে শহরের শপথ চত্বর থেকে একটি হরতাল বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ করে। এদিকে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শহরের শপথ চত্বর এলাকায় আমার দেশ পত্রিকায়  আগুন ধরিয়ে দেয় তারা। চাঁদপুর থেকে দূরপাল্লার কোন যান চলাচল না করলেও লঞ্চ ও ট্রেন চলাচল করছে।
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, কিশোরগঞ্জে হরতালবিরোধী পতাকা মিছিল করেছে গণজাগরণ মঞ্চ। গতকাল সকাল ৮টায় শহরের রংমহল চত্বরের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলে নেতৃত্ব দেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আবদুল মান্নান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ সেলিম কবীর, অধ্যক্ষ গোলসান আরা, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সদস্য সচিব আবদুল আউয়াল, জেলা সিপিবির সম্পাদক রফিউল আলম মিলাদ, সিরাজুল ইসলাম, আবদুর রহমান রুমি, জুনায়েদুল ইসলাম, ফয়সাল আহমেদ প্রমুখ। এছাড়া হরতালের সমর্থনে শহরের কোথাও কোন মিছিল-পিকেটিং হতে দেখা যায়নি। এদিকে হরতালের আগের রাতে শহরের নগুয়া বটতলা এলাকার একটি মেসে অভিযান চালিয়ে শিবিরের ৮ নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। পরে পুলিশের ওপর হামলা ও ভাঙচুরের মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, করিমগঞ্জের সুলতাননগর গ্রামের আল আমিন (২৫), মানিকপুর গ্রামের আবু সুফিয়ান (২৪), কামার দেহুন্দার আলমগীর (১৮), সুতারপাড়ার জিল্লুর রহমান (১৮), পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুর এলাকার মো. মাহমুদুল হাসান (৩০), নিকলীর মোহরকোনার কামরুল ইসলাম (১৮), নান্দাইলের কিসমত রসুলপুর গ্রামের আল মামুন (১৮) ও আগমুসুল্লির মিজানুর রহমান (১৮)। অন্যদিকে মহানবী (স.) সম্পর্কে অবমাননাকর বক্তব্যের প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জ উলামা পরিষদ আজ সোমবার বিকালে শহরের গণমিছিলের ডাক দিয়েছে। গণমিছিল বাস্তবায়নে আয়োজক ও বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের পক্ষ থেকে গত শুক্রবার থেকে বিভিন্ন তৎপরতা চালানো হচ্ছে। মিছিলে শহীদী মসজিদের খতিব মাওলানা আযহার আলী আনোয়ার শাহের নেতৃত্ব দেয়ার কথা রয়েছে।
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  জানান, লক্ষ্মীপুরে ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা সকাল সন্ধ্যা হরতাল ভাঙচুর ও টায়ারের অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধের মধ্য দিয়ে চলছে। সকাল ৭টার দিকে শহরের আলীয়া মাদরাসার সামনে মালবাহী ট্রাক ও মিয়ার রাস্তা মাথায় দু'টি বাস ভাঙচুর করেছে হরতাল সমর্থনকারীরা। এছাড়া বাসটার্মিনাল, মিয়ার রাস্তার মাথা ও আলীয়া মাদরাসার সামনে হরতালে পক্ষে পিকেটিং বিক্ষোভ মিছিল করেছে তারা। এ সময় ওই স্থানে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে।
অপরদিকে সকাল ১১টায় সদর উপজেলার দালাল বাজারে হরতাল সমর্থকদের হামলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোহন ও রাসেলসহ তিন আহত হয়েছেন। আহতদের লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দালাল বাজার থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। রামগঞ্জ উপজেলার পানিওয়ালার নোয়াপাড়ায় হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ ভ্যানে অগ্নিসংযোগ করে হরতাল সমর্থকরা। নাশকতার আশঙ্কায় শহরের অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
সাঁথিয়া (পাবনা) প্রতিনিধি জানান, দেশব্যাপী ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালের বিরুদ্ধে পাবনার সাঁথিয়ায় গতকাল দুপুর ১২টার দিকে সাঁথিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে হরতালবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ সময় মিছিলকারীদের মধ্যে কতিপয় যুবক বেশ কয়েকটি দোকানে ভাঙচুর করে। শেষে দলীয় কার্যালয়ে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ারের সভাপতিত্বে ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম বাচ্চুর পরিচালনায় বক্তব্য দেন যুগ্ম আহ্বায়ক হাসান আলী খান, রবিউল করিম হিরু, এস এম আলমগীর হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন, যুবলীগের সভাপতি আবদুল জলিল, ছাত্রলীগ নেতা লাভলু খান, রুবেল, স্বপন প্রমুখ। এদিকে হরতাল সমর্থনকারীরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিনের সাঁথিয়াস্থ বাসা এবং উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুশীল কুমার দাসের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।
স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার জানান, কক্সবাজারের পেকুয়া সদর ইউনিয়নের আশরাফুল উলুম মাদরাসা এলাকায় সকাল ১০টায় পিকেটিং চলাকালে জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে ছাত্রলীগের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ডা. হারুনুর রশিদ (৪০) ও মাওলানা হাবিবুর রহমান (৩০) নামের ২জন জামায়াত কর্মী আহত হয়। এসময় ওই মাদরাসার মসজিদ থেকে মাইকিং করে শিবির কর্মীরা বিএনপি-জামায়াতের কর্মীদের জড়ো করে পেকুয়া বাজারে আওয়ামী লীগ কর্মীদের ধাওয়া করে। ওই সময় বিএনপি-জামায়াত কর্মীরা ১০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ ও বাজার এলাকায় ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এতে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবদুল লতিফ চৌধুরী জুয়েল (২৯) গুলিবিদ্ধ হয়। এ সময় আওয়ামী লীগ ও জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ৩ দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ প্রায় ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
হরিণাকুণ্ডু (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডুতে জামায়াতের ডাকা সকাল সন্ধ্যা হরতাল ঢিলেঢালাভাবে পালিত হয়েছে। রাস্তঘাটে যানবাহন চলাচল ছিল সাভাবিক, দোকানপাট খোলাসহ স্কুল কলেজগুলোতে ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতি ছিল অন্যান্য দিনের মতো। ভোরে জামায়াতের উদ্যোগে একটি মিছিল বের হয়, নেতা-কর্মীরা পায়রা চত্বরে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করে। পরে সকাল ১১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিশাল হরতালবিরোধী মিছিল বের হয়। মিছিলে উপজেলা আহ্বায়ক মো. মশিউর রহমান জোয়ার্দার এবং পৌর মেয়র শাহীনুর রহমান রিন্টু নের্তৃত্ব দেন। মিছিলটি শহর প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পায়রা চত্বরের সমাবেশে আহ্বায়ক মো. মশিউর রহমান জোয়ার্দার এর সভাপতিত্বে ও ছাত্রলীগ উপজেলা সম্পাদক মো. রাফেদুল হক সুমনের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগ লালনশাহ কলেজ সভাপতি বিল্লাল হোসেন, সম্পাদক রুবেল রানা, ছাত্রলীগ উপজেলা নেতা জাফিরুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম, যুবলীগ পৌর সভাপতি আবু সাঈদ টুনু, শ্রমিকলীগ পৌর সভাপতি জহুরুল ইসলাম, শ্রমিকলীগ উপজেলা সভাপাতি আবদুল হান্নান, আওয়ামী লীগ উপজেলা নেতা সাব্দার হোসেন, আমীরুজ্জামান পলাশ প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা মোতাহার হোসাইনসহ জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীদের হরিণাকুণ্ডুতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে। উল্লেখ্য, মিছিলটি জামায়াত অফিসের সামনে পৌঁছলে ওই সময় বিক্ষুব্ধ জনতা অফিসের চেয়ার টেবিল আলমারিসহ জানালা দরজা ভাঙচুর করে। পরে নেতা-কর্মীদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
স্টাফ রিপোর্টার  পাবনা থেকে   জানান, পাবনায়  ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল দু'-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। সকাল ৯টার দিকে পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের রাজাপুর নামক স্থানে ইটপাটকেল ফেলে মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে পিকেটাররা। খবর পেয়ে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তারা পালিয়ে যায়। বেলা ১২টার দিকে ঈশ্বরদীর পাকশিতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা জামায়াতের অফিস ও জমায়াত সমর্থিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করে। এছাড়া কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবেই পালিত হয়েছে ইসলামী ১২ দলের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল। জেলা ও উপজেলা শহরের বেশির ভাগ দেকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। রিকশা ও হালকা যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও বাস-ট্রাক ও দূরপাল্লার যান চলাচল করেনি। শহরের বিভিন্ন স্থানে বিজিবি, র‌্যাব, গোয়েন্দা পুলিশ ছিল তৎপর। 
এদিকে গত শনিবার পুলিশের সঙ্গে হরতালকারীদের  সংঘর্ষে নিহত দু'জন শিবিরকর্মী সিরাজুল ইসলাম ও আলাল আমিনের লাশ ময়না তদন্ত শেষে শনিবার রাতে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। গতকাল তাদের নামাজে জানাজা সকাল ১০টায় সদর উপজেলার বাঙ্গাবাড়িয়া বিবি হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। তাদের জানাজায় এলাকার হাজার হাজার মুসল্লি অংশ নেন। পরে দু'জনের নামাজে জানাজা শেষে ধর্মগ্রাম কবরস্থানে আলাল আমিন ও রাঘবপুর কবরস্থানে সিরাজুল ইসলামের লাশ দাফন করা হয়।
অপর দিকে শনিবার পাবনায় জামায়াতের ডাকা আধাবেলা হরতাল চলাকালে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ, দু'জন নিহত, সড়ক অবরোধ ও ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক চারটি মামলা দায়ের করেছে। পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তদন্ত নুরে আলম সিদ্দিকী বাদী হয়ে তিনটি এবং এসআই সমর কুমার বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করেন। মামলাগুলোতে জেলা জামায়াতের শীর্ষ কয়েক নেতার নাম উল্লেখ করে দু'হাজার অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে।  
স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে জানান, ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালে চট্টগ্রামে রেললাইনের স্লিপার খুলে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে কোন দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। একই সঙ্গে হরতাল সমর্থকরা নগরীতে টেম্পোতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করেছে। 
গতকাল সকাল থেকেই মোড়ে মোড়ে বিছিন্নভাবে পিকেটিং করেছেন ধর্মীয় রাজনীতির নেতারা। শহরের রাস্তায় যানবাহন চলাচল ছিল অনেক কম। বেশির ভাগ দোকানপাট ছিল বন্ধ। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে লোকবল সঙ্কট থাকায় গুরুত্বপর্ণ কাজ হয়নি।  
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হরতালের সমর্থনে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা মিছিল সমাবেশ করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। বেশির ভাগ জায়গায় তারা ঝটিকা মিছিল বের করে। হরতালে সব ধরনের নাশকতা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন ছিল বেশি। চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসার একদল ছাত্র গতকাল ভোরবেলায় নাজিরহাট রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। তারা সেখানে রেল লাইনের স্লিপার খুলে ফেললে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়। পরে দীর্ঘক্ষণ পর বেলা ১২টার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে। 
অন্যদিকে নগরীর রাস্তায় লোকজনের চলাচল কম হওয়ায় সর্বত্র ফাঁকা চিত্র দেখা গেছে। সকালে সিনেমা প্যালেস এলাকায় মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। এরপর তারা মিছিলটি নিয়ে আন্দরকিল্লার মোড়ের দিকে যেতেই ধাওয়া দেয় পুলিশ। সেখানে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে হরতালকারীরা একটি টেম্পোতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করে। পরে আশপাশের জনতা এগিয়ে এলে হরতালকারীরা পালিয়ে যায়। হরতালের বিরুদ্ধে জামালখান প্রেস ক্লাব থেকে মিছিল করেছে ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা। জানতে চাইলে নগরীর কোতোয়ালি থানার ওসি মহিউদ্দিন সেলিম মানবজমিনকে বলেন, বড় ধরনের কোন ঘটনা আমরা শুনিনি। তবে বিছিন্নভাবে হরতালকারীরা মিছিল করেছে। তবে এর আগের দিন শনিবার রাতে বায়েজীদ এলকায় আকস্মিকভাবে মিছিল করে গাড়ি ভাঙচুর করেছে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা। সেখান থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।
এদিকে চট্টগ্রামসহ সারা দেশে পুলিশের গুলি, গণগ্রেপ্তার বন্ধ ও আটককৃতদের মুক্তি দাবি করেছে নগর জামায়াতের নেতারা। এক বিবৃতিতে তারা জানান, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, বগুড়া, ঢাকা, কুমিল্লাসহ সারা দেশে পুলিশ ও আওয়ামী ছাত্রলীগ-যুবলীগের গুলিতে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মী, নিরীহ ব্যবসায়ী, দোকান কর্মচারী এবং সাধারণ মানুষ নিহত হচ্ছে। কেবল তাই নয়, আওয়ামী লীগ সরকার পুলিশকে দলীয় কর্মীর মতো ব্যবহার করছে। পুলিশ নিরস্ত্র মানুষকে গুলি করে এ পর্যন্ত কুমিল্লার মুহাম্মদ ইব্রাহীমসহ ১৬ জনকে শহীদ করেছে। কর্মী হত্যা, নির্যাতন, মারাত্মক আহত, শ' শ' নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ সরকার পতনকে ত্বরান্বিত করছে।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ মনে করছেন, সরকারদলীয় ক্যাডারদের দিয়ে খুন, গুম, অপহরণ, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বাণিজ্য করছে। সরকার জনদুর্ভোগ দূর করতে দ্রব্যমূল্য আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ এবং দুর্নীতি ও আওয়ামী দুঃশাসন থেকে দেশবাসীর দৃষ্টি ভিন্নদিকে প্রবাহিত করার জন্য জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও সাজানো মামলা দিয়ে কারাগারে আটক করে জুলুম-নির্যাতন চালাচ্ছে। অবিলম্বে জামায়াতের আমীর দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ সকল শীর্ষ নেতৃবৃন্দ ও গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। নইলে আন্দোলন আরও কঠোর হবে। বিবৃতিতে রয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর  মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম এমপি।
মতিঝিল ফকিরাপুল
মতিঝিল ও ফকিরাপুল এলাকায় ইসলামী দলগুলোর ডাকা হরতাল তুলনামূলক শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। বেশির ভাগ দোকানপাট ছিল বন্ধ। রাস্তায় পিকেটারদের চোখে না পড়লেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং হরতালবিরোধীদের তৎপরতা চোখে পড়েছে। বিএনপির প্রধান কার্যালয়সহ রাস্তার মোড় ও অলিগলিতে টহল দিয়েছে র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা। আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সকাল থেকেই রাজপথ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। তারা কিছুক্ষণ পরপরই হরতালবিরোধী মিছিল বের করে। সকাল ১০টার দিকে ফকিরাপুল পানির ট্যাঙ্কি এলাকায় একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। পুলিশ মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেন, আমার অধীনস্থ থানা এলাকাগুলোকে কোন বলার মতো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছি। পানির ট্যাঙ্কি এলাকায় একটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটলেও কেউ আহত হয়নি। এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তারও করা যায়নি। কারণ, ফাঁকা জায়গায় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পিকেটাররা দ্রুত স্থান ত্যাগ করেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি- জামায়াত-শিবিরের সদস্যরা এ বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। এদিকে পল্টন ও মতিতিঝিল থানার ডিউটি আফিসার পৃথকভাবে জানিয়েছে, কোন ধরণের অনাকাঙিক্ষত ঘটনা ছাড়াই হরতাল পালিত হয়েছে। গতকালের হরতালকে কেন্দ্র করে কোন মামলা হয়নি। গ্রেপ্তারও করা হয়নি কাউকে।
মগবাজারে 'আমার দেশ' পত্রিকায় আগুন
স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর মগবাজারে দৈনিক আমার দেশ পত্রিকা পুড়িয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। গতকাল সকালে সাড়ে ১০টার দিকে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ইসলামী সমমনা দলগুলোর ডাকা হরতাল প্রতিরোধে মগবাজারের বিভিন্ন এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করেন। তারা মিছিল নিয়ে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে এসে জড়ো হন। মিছিলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হাতে জাতীয় পতাকা বহন করেন। এ সময় তারা জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেন। একপর্যায়ে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে 'আমার দেশ' পত্রিকার অনেকগুলো কপিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় চারদিকে পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কড়া নিরাপত্তা পাহারায় ছিলেন। ভোর থেকেই মগবাজার, ওয়্যারলেস, মৌচাক, মালিবাগ মোড়ে কয়েক প্লাটুন র‌্যাব, পুলিশ ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা অবস্থান নেন। ওইসব এলাকায় পিকেটারদের রাস্তায় পিকেটিং করতে দেখা যায়নি। যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেটকার খুব কম চললেও রাজত্ব ছিল তিন চাকার যানের। রাজপথে ইচ্ছাখুশি মতো রিকশাগুলো চলাচল করেছে। কোথাও কোন সিগন্যালে বেড়াজালে আটকাতে হয়নি। ফলে কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
মিরপুরে হরতালবিরোধী মিছিল
স্টাফ রিপোর্টার: হরতাল চলাকালে গাবতলী থেকে দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি। ঢাকা-সাভার, মানিকগঞ্জ, ধামরাই, সাটুরিয়া রুটের বেশ কিছু লোকাল বাস চলাচল করেছে। ঢাকা-খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, যশোর, কালিগঞ্জ. মাদারীপুর-ফরিদপুরের দূরপাল্লার কোন পরিবহন টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যায়নি। উল্লেখযোগ্য যাত্রী না থাকায় বিভিন্ন বাস কাউন্টারগুলো বন্ধ ছিল। টার্মিনাল চত্বরে বাসের জন্য অনেক যাত্রীকে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। সকাল থেকে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন রাজবাড়ি সদর থানার হেলাল আহম্মেদ। দু'বছর পরে দেশে ফিরেছেন। গতকাল ভোরে দুবাই ফ্লাইটে শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছেন। তিনি ঢাকায় পৌঁছে জানতে পারেন হরতাল। বিমানবন্দর থেকে সকাল ৮টায় গাবতলী এসেছেন। হরতালের কারণে তাকে ট্যাক্সিক্যাবের ভাড়া গুনতে হয়েছে ১৫০০ টাকা। এ ঘটনায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এদিকে মিরপুরে হরতাল চিত্র ছিল স্বাভাবিক। হরতাল সমর্থক কোন পিকেটারকে রাস্তায় দেখা যায়নি। কম সংখ্যক যানবাহন চলাচল করেছে। সকাল সাড়ে ৯টায় ১০ নম্বরের গোল চত্বর থেকে সংসদ সদস্য কামাল মজুমদারের নেতৃত্বে একটি হরতাল বিরোধী মিছিল বের হয়।

http://www.mzamin.com/details.php?nid=NDQwNTY=&ty=MA==&s=MTg=&c=MQ==


গণজাগরণে সমাবেশের ইতিহাস গড়ল শাহবাগ : ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন চলবে
 বিশ্ববিদ্যালয় বার্তা পরিবেশক
কাদের মোল্লাসহ সব যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে টানা ১১ দিন যাবত চলা আন্দোলনে পরিবর্তন আনা হয়েছে। আজ শনিবার থেকে চূড়ান্ত ফাঁসির রায় না আসা পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল তিনটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত শাহবাগ চত্বরে অবস্থান কর্মসূচি চালানোর ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এছাড়া আগামীকাল রোববার সকাল ১০টায় দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একযোগে জাতীয় পতাকা এবং জাতীয় সংগীত গাওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। গতকাল শাহবাগের জাগরণ সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে ঘোষণাপত্র পাঠ করেন বস্নগার অ্যান্ড অনলাইন এক্টিভিস্ট নেটওয়ার্কের আহ্বায়ক ডা. ইমরান এইচ সরকার।
ঘোষণাপত্রে বলা হয়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে জামায়াত-শিবিরের নাশকতা যেখানেই দেখা যাবে সেখানে প্রতিহত করতে হবে, চতুর্দিকে সতর্ক দৃষ্টি অব্যাহত রাখতে হবে, দেশের সর্বত্র মানুষের মাঝে প্রজন্ম চত্বরকে ছড়িয়ে দিতে হবে। ঘোষণাপত্রে আরো বলা হয়, গণজাগরণ মঞ্চ থেকে যে আন্দোলন শুরু তা বাংলাদেশের ঐতিহাসিক আন্দোলনে পরিণত হয়েছে। গত ৫ ফেব্রুয়ারি কসাই কাদের মোল্লার রায়ে এ দেশের মানুষ কষ্ট পেয়েছে, জামায়াতের মুখ থেকে গৃহযুদ্ধের হুমকি শুনে মানুষ আহত হয়েছে, তাদের গৃহযুদ্ধ মানে ধর্ষণ করা, নিরীহ মানুষকে হত্যা করা। এই জামায়াত বাঙালির ভেতর জ্বালিয়েছে সাম্প্রদায়িকতা। বাংলাদেশের প্রতিটি মাটিতে জড়িয়ে আছে '৭১-এর মুক্তিযোদ্ধার রক্ত। স্বাধীনতাকে পরিহাস করে তারা গড়ে তুলেছে সম্পদের পাহাড়। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে ট্রাইবুন্যালকে দিয়েছে হুমকি, সাধারণ মানুষকে দিয়েছে নাশকতার হুমকি। মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যাশা অনুযায়ী জামায়াত শিবিরসহ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারসহ জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা। কিন্তু এই আন্দোলনের মাধ্যমে প্রমাণ হয়ে গেছে বাংলাদেশের মানুষ আপোসহীন কণ্ঠে এদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে সক্ষম। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু এবং সম্পাদক রাশেদুল হাসান, বস্নগার অঞ্জন রায়ের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্র সংগঠনের নেতারা। বিকেল চারটায় জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় এ গণজাগরণ সমাবেশ। সভাপতিত্ব করেন বস্নগার অ্যান্ড অনলাইন এক্টিভিস্ট নেটওয়ার্কের আহ্বায়ক ডা. ইমরান। 
সমাবেশে বাংলাদেশ ছাত্র আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম বলেন, 'আমরা আহ্বান জানাচ্ছি, জামায়াত-শিবিরের সব প্রতিষ্ঠানকে বয়কট করব।' ছাত্র সমিতির আহ্বায়ক জাহিদুর রহমান খান বলেন, 'তরুণ প্রজন্ম আজ সোচ্চার। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবেই করবে। ট্রাইব্যুনালের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি নিশ্চিত করুন।' ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি প্রবীর সাহা বলেন, 'দ্বিতীয় মুক্তযুদ্ধ শুরু হয়েছে। এ আন্দোলনের ফলে, রোববার বিল পাস হলে এটাই হবে আমাদের বিজয়।' 
ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু বলেন, এই বাংলাদেশ মাথা নত করতে জানে না, শাহবাগ এটা প্রমাণ করে দিয়েছে। যেখানেই জামায়াত-শিবির পাওয়া যাবে সেখানেই গণধোলাই দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। জামায়াত-শিবিররা আমাদের এই আন্দোলন বানচাল করার জন্য তাদের মিডিয়াগুলো অপপ্রচার চালাচ্ছে। তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা জামায়াতের মিডিয়াগুলো বন্ধ করে দিন। আমাদের এ আন্দোলন চলছে, চলবে।
ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম বলেন, আজকে আমাদের বিজয় শুরু হতে শুরু করেছে। মহান জাতীয় সংসদে আইন সংশোধনের বিল উপস্থাপন করা হয়েছে, আশা করি এটা পাস হয়ে যাবে। এ বিল পাস হবে আমাদের শাহবাগ আন্দোলনের বিজয়। মৌলবাদী জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের আন্দোলন চলবে। 
শাহবাগের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি এস এম শুভ বলেন, আমরা আন্দোলন করছি ন্যায় বিচারের জন্য। আমরা মুক্তিযুদ্ধের আদলেই এ আন্দোলন চালিয়ে যাব। 
জাসদ ছাত্রলীগের সভাপতি হোসাইন আহমদ তাফসির বলেন, 'আমরা প্রথম দিন থেকে বলেছিলাম ফাঁসি না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাব না। এই শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চের হাওয়া সারাদেশে ছড়িয়ে গেছে। জামায়াত-শিবিরের হামলায় যারা নিহত হয়েছে তারা এই গণজাগরণের শহীদ। '
গতকাল মহাসমাবেশে জনতার আগমনে শাহবাগ চত্বর জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছিল। দিনভর গতকালও সংহতি জানাতে এসেছিল নানা পেশা শ্রেণীর মানুষ। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগের গণজাগরণ চত্বরে নতুন প্রজন্মের সঙ্গে সংহতি জানাতে এসেছেন নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের মা আয়েশা ফয়েজ। গতকাল বেলা এগারোটার দিকে দুই সন্তান ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল ও আহসান হাবীব, দুই পুত্রবধূ ও নাতি-নাতনিদের নিয়ে শাহবাগে আসেন এই রত্মগর্ভা। আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে কড়া রোদ মাথায় সপরিবারে সবার সঙ্গে বসে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি সংবলিত সেস্নাগানে কণ্ঠ মেলায় হুমায়ূন পরিবার। এ সময় আয়েশা ফয়েজ সাংবাদিকদের বলেন, 'আমি যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি নিয়ে এখানে এসেছি।' ড. জাফর ইকবাল বলেন, 'তরুণদের নিয়ে আমাদের ভেতরে এক ধরনের শঙ্কা ছিল। সে শঙ্কা কেটে গেছে। দেশের প্রতিটি ক্রান্তি লগ্নে এদেশের তরুণ সমাজ আগেও যেমন হাল ধরেছিল, স্বাধীনতার ৪০ বছর পরে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, সামপ্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে তারা প্রমাণ করেছে, দেশের সত্যিকার ভবিষ্যৎ তাদের হাতে।' এছাড়াও আরো সংহতি জানাতে আসেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হাসান ইমাম, অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাতসহ আরো অনেকে।
জাগরণ সমাবেশে ঘোষণাপত্রে ইমরান এইচ সরকার আরো বলেন, আমাদের দাবি যুদ্ধাপরাধীদের বর্জন, সুবিচার আর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা। আমরা কাঁদতে আসিনি, ফাঁসির দাবির জন্য এসেছি। আমাদের আন্দোলন বাংলার ঘরে ঘরে পেঁৗছে দিয়ে দিয়েছি। আমরা দাবি করেছিলাম যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লার ফাঁসি হোক, আইনের দুর্বলতা দূর করা হোক, রাষ্ট্রপতির ক্ষমা করার ক্ষমতা যুদ্ধাপরাধীদের জন্য বাতিল করা হোক। বাংলাদেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি বন্ধ করা হোক। আমরা বাংলাদেশকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার আন্দোলন শুরু করেছি, সাম্প্রদায়িকতা দূর করার আন্দোলন শুরু করেছি। তবে এই আন্দোলনের ফলে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সংশোধন হচ্ছে, জাতীয় ঐক্য গড়া সম্ভব হয়েছে।
আন্দোলনকারীদের পক্ষে ঘোষণাপত্রে বলা হয়, 'আপনারা তাদের প্রতিষ্ঠানকে বয়কট করুন করুন এবং তাদের মুখোশ খুলে দিন। জনগণ এবং প্রজন্ম কাউকেই ক্ষমা করবে না। বিগত দশদিন ধরে আন্দোলন কতরছে বাংলাদেশের সব মানুষ। এ আন্দোলন এখন দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিদেশে ঠাঁই পেয়েছে। বিশ্বের সব জায়গায় একটাই দাবি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। শুধু বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নয়, পুরো পৃথিবীতে একটি দাবিতে এত বড় আন্দোলন হয়নি। জয় বাংলা সেস্নাগান মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হয়েছে। এই জয়বাংলা আজ বাংলাদেশের গণমানুষের সেস্নাগান। প্রজন্ম আজ সব জেনে গেছে। যেখানেই জামায়াত-শিবির সহিষ্ণুতা করবে সেখানেই বাংলাদেশের জনগণ প্রতিহত করবে। এরই মধ্যে বিভিন্ন স্থানে জামায়াতের প্রতিষ্ঠান বর্জন করা শুরু হয়েছে। এ বিজয় আমাদের সবার বিজয়। তবে আমরা আত্মতৃপ্ততে থাকব না। চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য যারা যার অবস্থান থেকে কঠোরভাবে আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। একই সঙ্গে আইন সংশোধনের ফলে ৭ দিনের মধ্যে যে কোন যুদ্ধাপরাধীর বিচার করতে হবে। দেশের স্বাধীনতাবিরোধী একাত্তরের হায়েনা শিবিরকে নিষিদ্ধ করার জন্য যে আন্দোলন গড়ে উঠেছে তা অব্যাহত রাখতে হবে। দৃঢ়কণ্ঠে হুশিয়ার করছি যতদিন দাবি আদায় না হবে ততদিন এই সংগ্রাম চলবে। '
প্রসঙ্গত, গত ৫ ফেব্রুয়ারি কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদ-ের রায় দেয়ার পর হাজারো জনতা একসঙ্গে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগ স্কয়ারে আন্দোলনে নামেন। গত ৮ ফেব্রুয়ারি প্রথম মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে আবার গতকাল দ্বিতীয় মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকে গতকাল আন্দোলন কর্মসূচির পরিবর্তনের ঘোষণা দেয়া হয়।


হিন্দুস্তান টাইমস-এর রিপোর্ট: বাংলাদেশে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ছে
রবিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩

মানবজমিন ডেস্ক: বাংলাদেশে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ছে। শুক্রবার জুমার নামাজের পর জামায়াত-শিবির পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হলে রাজধানী ঢাকা সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। ওই দিনের সংঘর্ষে কয়েক শ' মানুষ আহত হয়েছে। নিহত হন কমপক্ষে চারজন। সেই সহিংসতা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। গতকাল অনলাইন হিন্দুস্তান টাইমস এ খবর দিয়েছে। 'সিভিল ওয়ার ইরাপ্টস ইন বাংলাদেশ, ৪ কিল্‌ড'- শিরোনামে প্রকাশিত খবরে একথা বলা হয়। ইন্দ্রজিৎ হাজরার লেখা ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ১২টি ইসলামপন্থি সংগঠন জামায়াতে ইসলামীকে টার্গেটে পরিণত করার দায়ে সরকার ও মিডিয়াকে দায়ী করছে। তারা শুক্রবার যে প্রতিবাদ বিক্ষোভ করে তার মূল টার্গেট ছিলেন সংবাদকর্মীরা। ঢাকায় বায়তুল মোকাররম মসজিদের ভিতর থেকে তারা পুলিশ ও টেলিভিশন ক্যামেরাম্যানদের ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে হামলা চালায়। তাদের সহিংসতা বাইরেও ছিল। তারা বাইরে এসে যানবাহনে আগুন ধরিয়ে দেয়। জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের সদস্যরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের বিভিন্ন শহরে শহীদ মিনার ভাঙচুর চালায়। ঢাকায় পুলিশের এক মুখপাত্র বলেছেন, তারা ১৬৬ জনকে আটক করেছেন। গত ৫ই ফেব্রুয়ারি জামায়াত বিরোধী প্রতিবাদ চলছিল শাহবাগে। ২১শে ফেব্রুয়ারি সেখান থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি দেয়া হয়। এই শাহবাগ স্কয়ার থেকে কয়েক গজ দূরেই পুলিশ স্টেশন। মাহবুবুল খুররম নামে এক ব্যক্তি সেখানে গিয়ে দাবি করছিলেন- তার ভাই নিরপরাধ। পুলিশ তাকে পায়ে গুলি করে আহত করেছে। সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। সেখানেই তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। খুররম আরও বলেন, তার ভাই রেজাউল জামায়াত করে না। শুক্রবার মসজিদে নামাজ আদায় করে সে সবেমাত্র বেরিয়েছিল। 
ওদিকে জামায়াতবিরোধী ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দারকে গত ১৫ই ফেব্রুয়ারি হত্যা করা হয় ঢাকায়। এ জন্য জামায়াত শিবিরকে সন্দেহ করা হচ্ছে। ওদিকে শুক্রবার সকাল থেকেই শাহবাগ স্কয়ার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়। কিন্তু সন্ধ্যা নাগাদ প্রতিবাদী তরুণরা ফিরে আসেন সেখানে। এখানে গণজাগরণের অন্যতম প্রধান আয়োজক ইমরান সরকার বলেন, ইসলামপন্থি দলগুলোর সহিংসতা দেখে জনগণের ভীত হওয়া উচিত নয়। শুক্রবারের সহিংসতার পর শাহবাগ স্কয়ারের প্রতিবাদী জনতা প্রতিবাদ বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে এবং একই সঙ্গে দৈনিক আমাদের দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানায়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত ১-এর সাবেক চেয়ারম্যান মো. নিজামুল হক ও ব্রাসেলসে বসবাসকারী যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক আইনজীবী আহমেদ জিয়াউদ্দিনের মধ্যে স্কাইপ কথোপকথন তার পত্রিকায় প্রকাশ করেছিলেন। 

http://www.mzamin.com/details.php?nid=NDM4ODc=&ty=MA==&s=MTg=&c=MQ==


বাংলাদেশে ব্লগারদের বিরুদ্ধে ইসলামপন্থীদের আন্দোলন

সর্বশেষ আপডেট বৃহষ্পতিবার, 21 ফেব্রুয়ারি, 2013 17:32 GMT 23:32 বাংলাদেশ সময়

ঢাকায় ইসলামপন্থীদের বিক্ষোভ (পুরোনো ছবি)

বাংলাদেশের বিভিন্ন ইসলামপন্থী সংগঠন শাহবাগের চলমান আন্দোলনের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে।

কয়েকটি ইসলামপন্থী দল এবং সংগঠন শুক্রবারের জুম্মার নামাজের পর দেশের সকল মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিল এবং সমাবেশ করার কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।

সংগঠনগুলো বলছে, ইসলাম ধর্মকে 'অবমাননা' করে বিভিন্ন ব্লগে যেসব লেখা বের হচ্ছে সেগুলো বন্ধ এবং এর সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে তাদের বিক্ষোভ।

কর্মসূচি আহ্বানকারী দলগুলোর মধ্যে ইসলামী ঐক্য জোটের একাংশ এবং খেলাফত মজলিশ উল্লেখযোগ্য।

এই দু'টি দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটেও রয়েছে।

"শাহবাগের আন্দোলন অনেকদিন ধরে চলছে, তা নিয়ে আমরা এতদিন কোন মন্তব্য করিনি। কিন্তু ব্লগে ধর্মের অবমাননা করায় আমরা কর্মসূচি নিয়েছি"

আব্দুল লতিফ নিজামী

এই দলগুলো রাজপথে নামছে এমন সময়ে যখন বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে শাহবাগের চলমান সমাবেশ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

ইসলামী ঐক্য জোটের নেতা আব্দুল লতিফ নিজামী বলছেন, 'বিভিন্ন ব্যক্তি তাদের ব্লগে ইসলামের নবী মুহাম্মদ এবং ধর্মকে অবমাননা করে নানান ধরণের লেখা প্রকাশ করছে।

''এর প্রতিবাদেই আমরা দেশের সকল মসজিদে জুম্মার নামাজের পর মিছিল ও সমাবেশ করার কর্মসূচি নিয়েছি,'' তিনি বলেন।

এমন কর্মসূচির বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগির।

'আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ'

তিনি বলেছেন, কয়েকটি ইসলামপন্থী দলের বিক্ষোভ কর্মসূচির পিছনে জামায়াতে ইসলামীর ভূমিকা রয়েছে বলে তারা মনে করেন।

''ধর্ম নিয়ে কিছু দল যে নামছে, এর পিছনে জামায়াত এবং ছাত্র শিবির রয়েছে বলে আমরা মনে করি । এই দলগুলোর কর্মসূচির বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে,'' তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগির এটাও উল্লেখ করেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে শাহবাগে যে আন্দোলন চলছে,তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা থেকে এ ধরণের তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

তবে ইসলামী ঐক্যজোটের নেতা আব্দুল লতিফ নিজামী বলেছেন, তাদের কর্মসূচির সাথে জামায়াত বা অন্য কোন বিষয়ের কোন সম্পর্ক নেই।

''শাহবাগের আন্দোলন অনেকদিন ধরে চলছে, তা নিয়ে আমরা এতদিন কোন মন্তব্য করিনি। কিন্তু ব্লগে ধর্মের অবমাননা করায় আমরা কর্মসূচি নিয়েছি,'' তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেন।

ইসলামপন্থী দলগুলোর শুক্রবারের কর্মসূচির প্রেক্ষাপটে সারাদেশে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

একই সাথে ইসলামপন্থী ঐ দলগুলোর পদক্ষেপের বিরুদ্ধে জনগণের সচেতনতা সৃষ্টির বিষয়েও গুরুত্বারোপ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

http://www.bbc.co.uk/bengali/news/2013/02/130221_sm_islam.shtml

বাংলাদেশে নৈরাজ্যের প্রত্যাবর্তন

শ ফি ক রে হ মা ন


কিন্তু আপনারা নিশ্চয়ই স্বীকার করবেন যে, ঘৃণার চাইতে ভালোবাসার বাণী ভালো। হিংসার চাইতে অহিংসার আন্দোলন কাম্য। নির্মমের চাইতে মমতাময় আচরণ কাঙ্ক্ষিত। রূঢ়তার চাইতে নম্র ব্যবহারই সভ্য। এবং আরও ইম্পোরট্যান্ট হলো প্রতিশোধের চাইতে ক্ষমা এবং প্রতিহিংসার চাইতে দয়া—মানব সভ্যতার এই দুটি ধাপ পেরুনো। আমাদের সবাইকে মনে রাখতে হবে, এই সভ্যতার অস্তিত্ব বজায় রাখতে এবং তাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে দরকার যুদ্ধ নয়, দরকার শান্তি। যুদ্ধের কুিসত হুঙ্কার-স্লোগান মানুষ শুনতে চায় না—মানুষ শুনতে চায় শান্তির ললিত বাণী।
তাই ব্যক্তিগতভাবে আমি বেছে নিয়েছি ঘৃণা দিবস উদযাপনের পরিবর্তে ভালোবাসা দিন উদযাপনের বিভিন্ন পথ ও পন্থা।
গোলাপ ও চকলেট ভালোবাসার প্রকাশ
১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিনে আমার এই অনুভূতি প্রচারের জন্য আমি সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ছুটছিলাম এক টিভি স্টুডিও থেকে আরেক টিভি স্টুডিওতে। আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি বাংলাভিশন, আরটিভি, এশিয়াটিভি, দিগন্ত টিভি, এটিএন বাংলা, মোহনা টিভি প্রভৃতির কর্তৃপক্ষ ও কর্মকর্তাদের, যারা আমাকে ভালোবাসা তথা শান্তির বাণী প্রচারের সুযোগ দিয়েছেন। থ্যাংকস এ লট।
আপনারা নিশ্চয়ই স্বীকার করবেন যে, আমার হাতের গোলাপ ও চকলেট হচ্ছে মানুষের কোমল অনুভূতির সুন্দর প্রকাশ। কিন্তু আমি যদি আজ এখানে উপস্থিত হই রক্তাক্ত ছুরি চাপাতি নিয়ে, তাহলে সেটা হবে মানুষের নিষ্ঠুর অনুভূতির অসুন্দর প্রকাশ। একই সঙ্গে আমি বলতে পারি, ফাঁসিও মানুষের বর্বর আচরণের অসভ্য প্রকাশ।
রাজাদের আমলে প্রাণদণ্ড
সম্প্রতি বাংলাদেশে যে ফাঁসি চাই আন্দোলন চলছে, তার প্রেক্ষিতে আমি জানার চেষ্টা করেছি আমাদের এই ভূখণ্ডে অতীতে মানুষের প্রাণদণ্ড কীভাবে কার্যকর করা হতো।
যখন এই দেশে রাজাদের রাজত্ব ছিল, অর্থাত্ ১৮৫৮-তে ব্রিটিশরাজ শুরু হওয়ার আগে, তখন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় মাটিতে রাখা একটা পিঁড়িতে মাথা পাততে হতো। তারপর একটি হাতি তার শুঁড় দিয়ে ওই ব্যক্তির হাত-পা ছিঁড়ে ফেলতো। সবশেষে ব্যক্তির মাথা পিষ্ট করতো হাতির পা। কী বিতিকিচ্ছি দৃশ্য ছিল ভেবে দেখুন আপনারা। নিহত মানুষটির রক্ত, ঘিলু চারদিকে ছিটকে পড়ছে। 
অষ্টাদশ ও ঊনবিংশ শতাব্দীতে ব্রিটিশরাজ এ ধরনের মৃত্যুদণ্ড এখানে নিষিদ্ধ করে দেয়।
রাজাদের রাজত্বে আরেকটা পদ্ধতি ছিল মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে শূলে চড়ানো। কী ভয়ঙ্কর দৃশ্য ছিল ভেবে দেখুন। নিহত মানুষের গুহ্যদ্বার থেকে ধীরে ধীরে উপরের দিকে উঠে যাচ্ছে একটি লোহার শলাকা। আপনারা কি চিন্তা করতে পারেন, সেই সময়ে ওই ব্যক্তিটির মৃত্যুযন্ত্রণা কেমন ছিল? কেমন ছিল তার আর্তচিত্কার?
আরও আশ্চর্যের বিষয় ছিল, এসব মৃত্যু দেখতে বহু মানুষ জড়ো হতো, যেমনটা এই একবিংশ শতাব্দীতে মানুষ জড়ো হয় সউদি আরব, ইরান, আফগানিস্তানে শিরশ্ছেদ দেখতে। অর্থাত্, এখনও মানুষ কালেকটেড হয় মৃত্যু দেখতে এবং কালেকটিভলি মানুষ দেখে মৃত্যু। এটাকে যদি আপনারা অসভ্য বা বর্বর বলেন, তাহলে বর্তমান সময়ে কিছু ব্যক্তি বিচারবহির্ভূতভাবে কালেকটিভলি অপর কিছু ব্যক্তির ফাঁসি চাইছে, সেই দাবিকে আপনারা কি সভ্য অথবা মানবিক বলতে পারবেন? 
ফাঁসিতে একটি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ঘটনা আমি আজ আপনাদের মনে করিয়ে দিতে চাই। ইরাকে প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের শাসন আমলে প্রধান বিচারপতি ছিলেন আওয়াদ হামেদ আল-বন্দর। সাদ্দাম সরকারের পতনের পর তার বিচার হয়। মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার পর তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। তখন তার বয়স ছিল ৬২। ১৫ জানুয়ারি ২০০৭-এ তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। ফাঁসিতে ঝুলে যাওয়ার পরপরই দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় আল-বন্দরের মাথা এবং সেটা মেঝেতে গড়িয়ে কিছুটা দূরে চলে যায়।
এখন ধরুন, এই বয়সের এক ব্যক্তিকে যদি শাহবাগে ফাঁসি দেয়া হয়, তাহলে তার দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রক্তাক্ত মুণ্ডুটা ছিটকে এসে আপনার কোলে পড়ে, তাহলে কি আপনি আনন্দিত হবেন? নাকি আতঙ্কিত হবেন? উল্লসিত হবেন? নাকি ভীত হবেন? উত্তরটা আপনিই জানেন।
ব্রিটিশ আমলে প্রাণদণ্ড
ফিরে যাই অতীতে। ঊনবিংশ শতাব্দীতে ব্রিটিশরা সভ্য হওয়ার চেষ্টা করছিল। অতীতে নিজেদের দেশে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের শিরশ্ছেদ করা হতো কুড়াল দিয়ে টাওয়ার অফ লন্ডনে। কালক্রমে ব্রিটিশরা নিজেদের দেশে এবং তাদের উপনিবেশ ইনডিয়াতে, ফাঁসির ব্যবস্থা চালু করে। ফাঁসির পূর্বমুহূর্তে দণ্ডিত ব্যক্তির মাথায় যমটুপি বা কালো টুপি পরিয়ে দেয়া হতো যেন তার মৃত্যুযন্ত্রণার বীভত্স চেহারা উপস্থিত ব্যক্তিদের দেখতে না হয়। এসব ফাঁসি দেয়া হতো জেলখানায়, যেখানে সাধারণ মানুষ বা দর্শকের উপস্থিতি নিষিদ্ধ ছিল। সেখানে উপস্থিত থাকতেন শুধু জেল কর্তৃপক্ষ, ডাক্তার প্রমুখ সরকারি লোকজন। অর্থাত্ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতো, লোকচোখের আড়ালে। 
একদিকে ব্রিটিশরা আইন প্রয়োগ করে ফাঁসি দিলেও অন্যদিকে তারা আইনবহির্ভূত ফাঁসি বন্ধ করেছিল। ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে সারা ইনডিয়াতে ঠগী দস্যুরা নিরীহ মানুষকে রুমাল দিয়ে ফাঁসি দিত। ১৮৩৬ থেকে ১৮৪২-এর মধ্যে ব্রিটিশরা দি ঠাগিস অ্যান্ড ড্যাকোইটি সাপ্রেশন (ঠগী ও ডাকাতি দমন) আইনগুলো পাস করেছিল।
এই ছিল ব্রিটিশরাজের সময়ে ফাঁসির ব্যবস্থা। তখন প্রকাশ্যে ফাঁসি হতো না। প্রকাশ্যে ফাঁসির দাবিও উঠতো না।
আমি এতক্ষণ অতীতের কথা বললাম, এই কারণে যে আমরা বর্তমানে কোন ধরনের রাজ্যে বসবাস করছি, সে বিষয়ে আপনাদের সচেতন করতে। প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখছি, বর্তমানে ৯৭টি দেশ মৃত্যুদণ্ড বন্ধ করেছে। ৫৮টি দেশে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। আর বাদবাকি দেশে মৃত্যুদণ্ডের আইন থাকলেও সেটা খুব কমই কার্যকর করা হয়। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি হত্যার রেকর্ডধারী নরওয়ের ৩৪ বছর বয়স্ক অ্যানডার্স বেহরিং ব্রেভিক ২২ জুলাই ২০১১-তে নরওয়ের অসলো এবং উলেয়া-তে একদিনে, গাড়িবোমা ফাটিয়ে এবং গুলি চালিয়ে ৭৭ জনকে নিহত এবং ২৪২ জনকে আহত করে। বিচারের পর তাকে ২১ বছরের জেলদণ্ড দেয়া হয়। ফাঁসি নয়। তবে এই জেলদণ্ডের সময় বাড়ানোর সম্ভাবনা আছে।
চান্স এডিটরের অবস্থান ও দুরবস্থা
সিরামিকস ইনডাস্ট্রি বিশেষজ্ঞ, ইনভেস্টমেন্ট বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান, সরকারের সাবেক জ্বালানি উপদেষ্টা এবং বর্তমানে লেখক ও আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মি. মাহমুদুর রহমানের সদ্য প্রকাশিত বই গুমরাজ্যে প্রত্যাবর্তন বিষয়ে আমাকে কিছু বলার অনুরোধ করা হয়েছিল। ধন্যবাদ এই বইয়ের লেখক, প্রকাশক ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে। কারণ এই চান্সে আমি একজন চান্স এডিটরের, সাবেক বিচারপতি খায়রুল হকের ভাষায়, বর্তমান অবস্থান ও দুরবস্থা সম্পর্কে কিছু বলতে চাই।
প্রথমত, আপনারা জানেন মাহমুদুর রহমান বর্তমানে অবরুদ্ধ অবস্থায় তার পত্রিকা অফিসে দিনযাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন। অন্য সবকিছু বাদ দিলেও, এটা বলা যায়, একই অফিসে দিনের পর দিন কাটানো তার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো হতে পারে না। আমি মনে করি, এক্ষেত্রে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে এবং মাহমুদুর রহমান ও তার পরিবারের সার্বিক ও সম্পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। তারা যেন নিরাপদে তাদের বাড়িতে থাকতে পারেন এবং অফিসে যাতায়াত করতে পারেন, সেই ব্যবস্থা সরকারকেই নিতে হবে। এ প্রসঙ্গে আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই সরকারকে। আপনারা জানেন, শাহবাগ-জনতার উগ্র ঘোষণার পরপরই সরকার নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করেছিল, আমার দেশ পত্রিকার অফিস ভবনের নিচতলায়।
ডাবল স্ট্যান্ডার্ড নয়
দ্বিতীয়ত, আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ হয়তো জানেন মাহমুদুর রহমানের চরিত্র হননের ব্যর্থ চেষ্টায় কে বা কারা মাহমুদুর রহমানের কিছু টেলিফোন কথোপকথন ফেসবুকে তুলে দিয়েছেন। এসব কথা তিনি বলেছেন তার স্ত্রী পারভীন এবং তার কিছু শুভাকাঙ্ক্ষীর সঙ্গে। কথাপ্রসঙ্গে পারভীন বুঝিয়ে দিয়েছেন কীভাবে ফটোশপ পদ্ধতিতে শাহবাগের অতিরঞ্জিত ছবি দৈনিক প্রথম আলো প্রকাশ করেছে এবং সেটা শুনে মাহমুদুর রহমান প্রথম আলোকে একটা গালি দিয়েছেন। এতে মাহমুদুর রহমানের বিন্দুমাত্র বিব্রত বা লজ্জিত হওয়ার কারণ নেই। কারণ, এসব কথোপকথন বা ফোন কনভারসেশন শুনলেই বোঝা যাবে, মাহমুদুর রহমানের কোনো ডাবল স্ট্যান্ডার্ড বা দ্বিমুখী আচরণ নেই। তিনি যা প্রকাশ্যে এবং অপ্রকাশ্যে বলেন, সেসব তিনি টেলিফোনেও বলেছেন।
আর এখানেই ফাঁস করা এই টেলি কনভারসেশনের সঙ্গে আন্তর্জাতিক যুদ্ধ অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারপতি নিজামুল হকের সঙ্গে ব্রাসেলস প্রবাসী জনৈক বাঙালি আইনবিদের সঙ্গে তার স্কাইপ কনভারসেশন ফাঁস হয়ে যাওয়ার মৌলিক তফাত্। স্কাইপ কনভারসেশনে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণ হয়ে যায় বিচারপতি নিজামুল ডাবল স্ট্যান্ডার্ড বা দ্বৈতনীতি অনুসরণ করছেন। একদিকে তিনি প্রকাশ্যে নিরপেক্ষ ও ন্যায়পরায়ণ বিচারপতির ভূমিকায় অভিনয় করছেন; অন্যদিকে তিনি গোপনে পক্ষপাতদুষ্ট হয়ে সরকারের পক্ষে কীভাবে রায় দেয়া যায়, সেই বিষয়ে ব্রাসেলস নিবাসীর সঙ্গে আলোচনা করছেন। আপনারা জানেন, এই ডাবল স্ট্যান্ডার্ড ধরা পড়ে যাওয়ার পর ওই বিচারপতিকে ওই ট্রাইব্যুনাল থেকে বিদায় নিতে হয়। মাহমুদুর রহমান একই জায়গাতেই ছিলেন এবং আছেন। সুতরাং তাকে তার পদ ত্যাগ করতে হয়নি। 
মাহমুদুর রহমানের সঙ্গে বহু বিষয়ে আমার মতপার্থক্য আছে। তার রাজনৈতিক দর্শন আমার চাইতে ভিন্ন। কিন্তু এটা স্বীকার করতেই হবে, মন্ত্রী থাকাকালে তার দুর্নীতি-ঊর্ধ্ব ভূমিকা এবং চান্স এডিটর, আবারও সেই বিচারপতি খায়রুল হকের ভাষায়, মাহমুদুর রহমানের সাহস অনুকরণীয়।
বেঠিক শিরোনাম
তৃতীয়ত, মাহমুদুর রহমানের বইয়ের শিরোনামটি আমার কাছে মনে হয়েছে বেঠিক। বাংলাদেশ কি গুমরাজ্যে ফিরে গিয়েছে? না। বাংলাদেশ ফিরে গিয়েছে নৈরাজ্যে। ব্রিটিশরাজ নয়, ইনডিয়ান রাজা-বাদশাহদের রাজ্যে নয়, একেবারে সেই আদিম অন্ধকার যুগের নৈরাজ্যে। যেখানে সমাজ ছিল না, রাজ্যও ছিল না। যেখানে নিয়ম ছিল না, আইন ছিল না। আজকের এই নৈরাজ্যের পরিণতি হতে পারে আরও অসভ্যতা, বর্বরতা এবং আরও নৈরাজ্য।
তাই কখনোই যেন মাহমুদুর রহমানকে নৈরাজ্যে প্রত্যাবর্তন শিরোনামে কোনো বই লিখতে না হয়, সেই কামনা করছি। আরেকটি কথা, মাত্র কয়েকদিন আগে মাহমুদুর রহমান বাধ্য হয়েছেন দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার দাম বাড়াতে। পত্রিকাটির দাম এখন হয়েছে বারো টাকা। আপনারা অনেকেই জানেন পত্রিকার সার্কুলেশন বেশি হলে পত্রিকার ক্ষতি হয়, যদি না যথেষ্ট পরিমাণে বিজ্ঞাপন পাওয়া যায়। তখন প্রতি কপির দাম না বাড়িয়ে উপায় থাকে না। দৈনিক আমার দেশ-এ সরকারি বিজ্ঞাপন, সরকার সমর্থক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বিজ্ঞাপন এবং সরকারের ভয়ে ভীত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বিজ্ঞাপন আসছে না অথবা খুব কমে গেছে—সেহেতু শুধু সার্কুলেশনের ওপর বেঁচে থাকতে হলে কপির দাম তাকে বাড়াতেই হবে। অন্যথায় বর্ধিত জনপ্রিয়তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বর্ধিত পরিমাণ নিউজপৃন্ট কেনা সম্ভব হবে না। আর সেক্ষেত্রে আমার দেশ যে বার্তা ও মতামত প্রচার করছে, সেটা সীমিত হয়ে যাবে। তাই মাহমুদুর রহমানের গুণগ্রাহীদের কাছে আমার আবেদন, আপনারা আমার দেশ পত্রিকায় যেন বিজ্ঞাপন আসে সেদিকে প্রভাব খাটান। অন্তত এই দায়িত্বটুকু আপনারা পালন করুন। বিজ্ঞাপনদাতাদের আপনারা জানিয়ে দিন, ঢাকা ও সিলেটে আমার দেশ-এর সার্কুলেশন এখন মৃত্যুদণ্ডকামীদের পৃষ্ঠপোষক পত্রিকাগুলোর চাইতে বেশি। আর হ্যাঁ, আপনারা সবাইকে অনুরোধ করবেন মাহমুদুর রহমানের বইগুলো কিনতে। তা না হলে আজকের এই সমাবেশের লক্ষ্য ব্যর্থ হবে।
লন্ডনে ৩৫ বছরের অবস্থান আন্দোলন সফল হওয়ার কারণ
গত ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩-তে শাহবাগ স্কোয়ারে তরুণ-কিশোর-মাঝবয়সী এবং কিছু শিশুর যে সম্মিলন ঘটেছে, সেটা দেখে আমার মনে পড়েছে লন্ডনে ট্রাফালগার স্কোয়ারের পাশে অবস্থিত সাউথ আফৃকা ভবনের সামনে নেলসন ম্যানডেলার মুক্তির এবং সাউথ আফৃকাতে অ্যাপারথেইড বা বর্ণবাদ অবসানের জন্য ১৯৫৯ থেকে ১৯৯৪ পর্যন্ত জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সুদীর্ঘ ৩৫ বছর যাবত্ একটানা দিনরাত চব্বিশ ঘণ্টা জনসমাবেশ। শীত বরফ বৃষ্টি গরম উপেক্ষা করে এই জনসমাবেশে কখনো বা একটা ছোট তাঁবুর নিচে বিশ-পঁচিশজন আন্দোলনকারী, আবার কখনো বা ভালো আবহাওয়ার সময়ে কয়েকশ' মানুষ সমবেত হতেন। আমি সেই সময়ে লন্ডনে ছিলাম এবং কাছেই বিবিসিতে মধ্যরাতে নাইট ডিউটি সেরে ফেরার পথে একাধিক রাতে সাউথ আফৃকা ভবনের সামনে গিয়ে আন্দোলনকারীদের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছিলাম। শেষ পর্যন্ত এই আন্দোলনের লক্ষ্য অর্জিত হয়। রোবেন আইল্যান্ড ও পলসমুর পৃজনে সুদীর্ঘ সাতাশ বছর সশ্রম জেল খাটার পর ১৯৯০-এ নেলসন ম্যানডেলা মুক্তি পান। এবং ১৯৯৪-এ সাউথ আফৃকাতে বর্ণবাদের অবসান ঘটে। আন্দোলনকারীরা বাড়ি ফিরে যান লক্ষ্য অর্জিত হওয়ার পর। পক্ষান্তরে শাহবাগ আন্দোলনকারীরা বলেছিলেন, লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত তারা বাড়ি ফিরে যাবেন না; কিন্তু তারা ফিরে যান। শুধু তা-ই নয়, ১৭ দিন ফাঁসির দাবি তুলে বাড়ি ফেরার সময়ে যে ছয়টি দাবি তারা পেশ করেন, সেখানে ফাঁসির দাবি ছিল না।
সাউথ আফ্রিকার ওই আন্দোলন সফল হওয়ার অন্যতম কয়েকটি কারণ ছিল—
এক. এটি ছিল নির্যাতনকারী একটি সরকারের বিপক্ষে। 
দুই. এক বন্দি রাজনৈতিক নেতার মুক্তির লক্ষ্যে। এবং 
তিন. ঘৃণিত বর্ণবাদের অবসান ঘটিয়ে মানবতাবাদ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে।
বাংলাদেশে ব্যর্থ সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা
কিন্তু বাংলাদেশের শাহবাগ আন্দোলন চলেছে একটি ব্যর্থ সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায়। এর লক্ষ্য কারও মুক্তি নয়—লক্ষ্য কারও ফাঁসি এবং তাও বিচারবহির্ভূতভাবে। এর লক্ষ্য মানবতাবাদ প্রতিষ্ঠা নয়—ঘৃণাবাদ প্রচার করা। এ সবই অশুভ এবং তাই এই আন্দোলন শেষ পর্যন্ত সফল হবে না। সাউথ আফৃকার আন্দোলন সফল হয়েছিল কারণ সেটা ছিল অশুভর বিপক্ষে, শুভর পক্ষে। বন্দিত্বের বিপক্ষে, মুক্তির পক্ষে। মৃত্যুর বিপক্ষে, জীবনের পক্ষে।
তাই আশ্চর্য নয়, সাধারণ মানুষের মধ্যে শাহবাগ আন্দোলনের তীব্র সমালোচনা হয়েছে। তারা লক্ষ্য করেছে একটি পর্যায় থেকে শাহবাগ আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ করেছে আওয়ামী লীগ সরকার সমর্থকরা। আর সেজন্যই এই জনসমাবেশ থেকে আওয়ামী সরকারের বিভিন্ন ব্যর্থতা বিষয়ে কোনো দাবি ওঠেনি। এসব ব্যর্থতার মধ্যে রয়েছে পদ্মা সেতু দুর্নীতি, ডেসটিনি এবং ইউনিপেটুইউসহ প্রায় ত্রিশটি মালটি লেভেল মার্কেটিং কম্পানি দ্বারা আধা কোটির বেশি মানুষকে প্রতারণা করা, হলমার্ক এবং অন্যান্য কম্পানির মাধ্যমে বিশেষত সরকারি ব্যাংক লুটপাট করা, গ্রামীণ ব্যাংকে অবাঞ্ছিত সরকারি হস্তক্ষেপ, কুইক রেন্টাল দ্বারা বিদ্যুতের দাম কুইক বাড়িয়ে আওয়ামী সমর্থকদের কুইক ধনী করা, শেয়ারবাজারে প্রায় তেত্রিশ লক্ষ বিনিয়োগকারীকে নিঃস্ব করা, মিডল ইস্ট থেকে চাকরি হারিয়ে প্রায় দেড় লক্ষ শ্রমিকের দেশে ফেরা, গার্মেন্ট শিল্পে যথার্থ নিরাপত্তা বিধানে অসমর্থ হওয়া এবং নৌ ও স্থলপথে দুর্ঘটনা রোধে বিফল হওয়া।
আজই দৈনিক মানবজমিনের একটি রিপোর্ট বলেছে, চাঁদপুরের মেঘনা-পদ্মা-ডাকাতিয়ায় বারো বছরে বারোটি লঞ্চডুবিতে কয়েকশ' মানুষের মৃত্যু হয়েছে। শাহবাগ স্কোয়ারে সমাবেশের সময়েও লঞ্চডুবিতে বহু যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এই বারো বছরে গার্মেন্ট শিল্পে কতোজনের মৃত্যু ঘটেছে? রোড অ্যাকসিডেন্টে কতোজনের মৃত্যু ঘটেছে? কতো মানুষ পঙ্গু হয়েছে? এসব তথ্য জানার জন্য এবং প্রতিকার বিধানের জন্য শাহবাগ স্কোয়ার থেকে দাবি ওঠা উচিত ছিল। একজন মানুষের ফাঁসি দাবির পরিবর্তে হাজার হাজার মানুষের প্রাণরক্ষার আওয়াজ ওঠা উচিত ছিল। একজন জল্লাদের চাকরির পরিবর্তে বেকার মানুষের কর্মসংস্থানের দাবি করা উচিত ছিল। শাহবাগ আন্দোলনকারীরা এখনও তা-ই করতে পারেন এবং একইসঙ্গে জুড়ে দিতে পারেন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামের ঊর্ধ্বগতি বন্ধ করতে। এ সবই বর্তমান সময়ের সাধারণ মানুষের দাবি।
শাহবাগ আন্দোলনকারীরা বলতে পারেন, শাহবাগের জনসংখ্যাই সাধারণ মানুষের প্রতিনিধিত্বের পরিচায়ক। কিন্তু এই ধারণা ভুল। তারা হয়তো সাধারণ মানুষের একাংশের প্রতিনিধিত্ব করছেন, বৃহত্ অংশের নয়। আমার এই কথাটি যে ভুল, সেটা প্রমাণের জন্য তারা দুটি চ্যালেঞ্জ নিতে পারেন।
দুটি চ্যালেঞ্জ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি
এক. অভিযুক্ত বন্দি দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে একদিনের জন্য প্যারলে একটি জনসমাবেশ করার অনুমতি দিলে সেই সমাবেশে জনসংখ্যা কতো হয়, সেটা তারা দেখতে পারেন।
দুই. যেহেতু কোনো নির্দিষ্ট দিনে শুধু কিছু নির্দিষ্ট স্থানে জনসমাবেশ ঘটানো সম্ভব, সেহেতু এই চ্যালেঞ্জে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী বিজয়ী হলেও সামগ্রিকভাবে দেশে কোন পক্ষে কতো মানুষ আছে, সেটা জানার জন্য একটি নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে একই দিনে অবাধ ও সুষ্ঠু সাধারণ নির্বাচনের ডাক দিন।
সুকুমারবৃত্তির নয়, নিষ্ঠুরতার প্রকাশ
বস্তুত বিএনপিসহ অন্যান্য বিরোধী দল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে দাবি তুলেছে সেখান থেকে এবং আওয়ামী সরকারের সার্বিক ব্যর্থতা থেকে সাধারণ মানুষের চোখ সরানোর লক্ষ্যেই আওয়ামী সরকার শাহবাগ সমাবেশে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে, আইন ও আদালতবিরোধী এই জনসমাবেশকে সরকারি অনুমোদন দিয়েছে।
শাহবাগ আন্দোলনের কিছু বৈপরীত্য কল্পনাকে হার মানিয়েছে। মোমবাতি, আলপনা ও গান মানুষের সুকুমারবৃত্তির প্রকাশ মাধ্যম হতে পারে। কিন্তু সেখানে শোনা গেছে মোমবাতির নরম আলোর বিপরীতে আগুন জ্বালো, আগুন জ্বালো গরম স্লোগান। আলপনার সৌন্দর্যের বিপরীতে দেখা গেছে ফাঁসিকাঠের পুতুল ও ফাঁসির দড়ির নিষ্ঠুরতা। সারল্য ও নিষ্পাপতার প্রতীক শিশুদের মাথায় দেখা গেছে ফাঁসির নির্মম বাণীর হেডক্যাপ, তাদের হাতে দেখা গেছে ফাঁসি চাই লেখা কেক-পেসটৃ।
এই শিশুরা কি বোঝে ফাঁসি চাই কী? তাদের সুকুমারবৃত্তি এভাবে নষ্ট করে দেয়ার অধিকার কোনো পিতামাতার আছে কি?
প্রসঙ্গত আমি শাহবাগ আন্দোলনের অন্যতম নেতা ব্লগার রাজীবকে হত্যার তীব্র নিন্দা জানাতে চাই। এ ধরনের নিষ্ঠুর অকাল মৃত্যু কারও কাম্য হতে পারে না। মানুষের মৃত্যু নয়—জীবনই কাম্য।
রাজীব নয়, দায়ী তার সমর্থকরা
আমরা কেউ জানি না রাজীব কেন খুন হয়েছেন। তবে আমি বলতে চাই লেখার উত্তর লেখাতেই কাম্য। রাজীব তার ব্লগে যা লিখেছিলেন, তাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের অনুভূতি আহত হয়েছে। বিশ্বে এখন প্রায় সাতশ' কোটি মানুষ আছে, এদের মধ্যে যে কেউ ইন্টারনেটে ইসলামবিরোধী লেখা পোস্ট করতে পারে। তাতে বিচলিত হয়ে উগ্রমূর্তি ধারণ করলে ক্ষতি বই লাভ হবে না। এখানে যেটা বিবেচ্য সেটা হলো, রাজীবের আদর্শের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন জানিয়েছেন এই দেশের প্রধানমন্ত্রীসহ আরও কিছু ব্যক্তি। রাজীব ব্যক্তি হিসেবে যা করেছেন, তাকে দলগত সমর্থন জানিয়েছেন তারা এবং সেভাবেই তারা দেশগত ধর্মীয় অনুভূতিকে আহত করেছেন। এটা নিন্দনীয় এবং বিপজ্জনক। গোটা দেশকে আজ নাস্তিক বনাম আস্তিকের গৃহযুদ্ধের দিকে পরিকল্পিতভাবে ঠেলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও তার অনুসারীরা।
যারা সুস্থ মানুষ, যারা শান্তি ও অহিংসায় বিশ্বাস করেন, যারা মমত্ব ও ভালোবাসায় আস্থা রাখেন, তাদের ওপর আজ গুরুদায়িত্ব পড়েছে বর্তমান নৈরাজ্য থেকে দেশের মানুষকে মঙ্গলের দিকে, নিয়মের দিকে, আইনের দিকে ফিরিয়ে আনার।
যুদ্ধাপরাধীরূপে সন্দেহভাজনদের বিচার চাইতে পারেন শাহবাগ আন্দোলনকারীরা, কিন্তু বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ডের দাবি তারা তুলতে পারেন না। আশা করবো, ফাঁসির দাবি, তা-ও বিচারবহির্ভূত এবং সম্মিলিতভাবে তোলাটা যে কতো অসভ্যতা ও বর্বরতা, সেটা সবাই অচিরেই বুঝবেন এবং বিশ্ববাসীর সামনে বাংলাদেশকে কলঙ্কিত করা থেকে বিরত হবেন। 
মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে লেখা ও ম্যানিফেস্টো
আমি নিউজপেপার ও টেলিভিশনে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করবো তারা যেন একটু কষ্ট করে, পড়াশোনা করে জানার চেষ্টা করেন কেন এবং কখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছে। 
এপৃল ১৯৮০-তে সউদি আরবের একজন পৃন্সেস প্রেমে পড়েছিলেন এক সাধারণ সউদি যুবকের। সউদি রাজপরিবার এই বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ওই প্রেমিকযুগল দেশ থেকে পালানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তারা ধরা পড়েন এবং উভয়েরই শিরশ্ছেদ করা হয়। ওই ঘটনায় বিশ্ববাসীর বিবেক তাড়িত হয় এবং বিবিসি তখন ডেথ অফ এ পৃন্সেস নামে একটি ডকুমুভি প্রচার করে। ওই ঘটনা ও মুভি আমাকে খুব আলোড়িত করে এবং আমি যায়যায়দিন নামে একটি ধারাবাহিক কলাম লেখা শুরু করি সাপ্তাহিক সচিত্র সন্ধানীতে। এ ঘটনাই আমাকে রাজনৈতিক লেখকরূপে নিয়ে আসে। ওই লেখার সূচনাতেই আমি ওই মুভির ক্লিপ দেখে প্রাণদণ্ডের তীব্র সমালোচনা করি এবং এখনো করে যাচ্ছি।
আমি এটাও আশা করবো, যদি ক্ষমতার পটপরিবর্তন হয় এবং আজ যারা নিগৃহীত ও নির্যাতিত হচ্ছেন, তারা যদি ক্ষমতায় আসেন, তখন যেন তারা প্রতিহিংসা-প্রতিশোধ নেয়ার জন্য ফাঁসির দাবি না তোলেন। ফাঁসি যেন তারা বাংলাদেশে চিরনিষিদ্ধ করেন। আমি আশা করি বিএনপি, জামায়াত ও জাতীয় পার্টি আগামী নির্বাচনী ম্যানিফেস্টোতে মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধকরণের অঙ্গীকার করবে।
মৃত্যু নয় জীবনে, ঘৃণায় নয় ভালোবাসায়
গৃহযুদ্ধে নয় শান্তিতে
আমি মৃত্যুতে নয়, জীবনে বিশ্বাসী।
আমি ঘৃণায় নয়, ভালোবাসায় বিশ্বাসী।
আমি গৃহযুদ্ধে নয়, শান্তিতে বিশ্বাসী।
আমি ফাঁসির মঞ্চ ও দড়িতে নয়, গোলাপ ও চকলেটে বিশ্বাসী।
সবাইকে চকলেট উপহার দিচ্ছি।
সবাই এখন চকলেট খেলে খুশি হবো।
এতক্ষণ আমার কথা শোনার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।
থ্যাংক ইউ।

গুমরাজ্যে প্রত্যাবর্তন বই প্রকাশনা উপলক্ষে ভাষণ

জাতীয় প্রেস ক্লাব
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩


No comments:

Post a Comment

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Welcome

Website counter

Followers

Blog Archive