Twitter

Follow palashbiswaskl on Twitter

Monday, November 11, 2013

অতঃপর বাংলাদেশে নির্বাচনী সরকার,মন্ত্রীদের পদত্যাগ Bangladesh cabinet quits to allow all-party govt for polls

অতঃপর বাংলাদেশে নির্বাচনী সরকার,মন্ত্রীদের পদত্যাগ

Bangladesh cabinet quits to allow all-party govt for polls


পলাশ বিশ্বাস

ঢাকায় মন্ত্রী পরিষদের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন।


Ministers of the government have submitted their letters of resignation to Prime Minister Sheikh Hasina, paving the way for an all-party, poll-time government amid an 84-hour general strike by the Opposition and foreign diplomats' appeal for a dialogue between the rival forces.

The undated letters were placed at Monday's regular Cabinet meeting.


However, several senior ministers including Finance Minister AMA Muhith, Minister without Portfolio Suranjit Sengupta, and State Minister for Liberation War Affairs AB Tajul Islam had put in their papers earlier.


But Cabinet Secretary Muhammad Musharraf Hossain Bhuiyan said after the meeting that the Cabinet would not be dissolved.


The resignations were part of an exercise to enable the formation of an all-party government, he said.


The Prime Minister will not accept the resignations of ministers likely to be retained in the all-party Cabinet, and there would be no need for them to take fresh oath.


The letters of those not finding a berth in an interim Cabinet would be sent to the President.


A Cabinet notification will follow, the Cabinet Secretary said.


Several full and junior ministers told bdnews24.com that their letter bore no date.


Sheikh Hasina was reported to have directed the minister during her last Cabinet meeting to submit their resignations.


She thanked the ministers on Monday for submitting their resignation letters, ministers told bdnews24.com.


They said Hasina had instructed all ministers to set polling campaign rolling in their constituencies after buying nomination forms.


A Cabinet member said the ministers would discharge their official and executive duties until a notification is issued.


The Cabinet Secretary said this might well be the last Cabinet meeting of the Awami League-led Grand Alliance government.


He could not say about how many members there will be in the all-party Cabinet and when they would take oath.


He, however, said it would be a 'small' Cabinet.


The Secretary said the new ministers would have to take oath.


The new Cabinet will decide on types of job of the all-party Cabinet and whether it would take any major decision.


Information Minister Hasanul Haq Inu told reporters they would continue their effort to bring the BNP to the all-party government.


Hasina had proposed an all-inclusive interim government to supervise the polls.


But Opposition Leader Khaleda Zia rejected the idea and proposed an interim government comprising former caretaker government advisors.


The BNP has remained indifferent to the repeated calls by the ruling Awami League to join the all-party government.


It is now enforcing the third long strike, this time for 84 hours, in as many weeks to back its demand for a neutral caretaker administration.


But the Awami League appears to be pushing ahead with its plans.


Communications Minister Obaidul Quader had said the all-party interim government would be formed by the end of November.


The 10th national election is expected to take place within the Constitutional deadline of Jan 24, 2014.


বাংলাদেশের মন্ত্রীপরিষদের সদস্যরা সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোশারফ হোসেন ভূঁইয়া বলেছেন এই পদত্যাগের মাধ্যমে মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দেয়া হয়নি বরং নির্বাচনকালীন সরকারের জন্য সেটি পূর্ণগঠন করা হবে।বিবিসির খবর।

কিন্তু এখন প্রশ্ন হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রস্তাবিত নির্বাচনকালীন 'সর্বদলীয় সরকারে' কারা থাকছেন।


Bangladesh's cabinet ministers today tendered their resignations to pave the way for an all-party government to oversee general elections, with the BNP-led opposition adamant on the demand for a neutral non-party government amid a violent political standoff.


"The ministers and state ministers present at today's (regular) cabinet meeting have submitted their resignation letters to Prime Minister Sheikh Hasina," Prime Minister's press secretary Abul Kalam Azad told PTI.


He could not confirm if resignations of all the ministers were already received but previous media reports said at least 20 influential ministers handed over their resignation letters to the premier earlier.


An adviser to the premier said the resignation of some of the ministers would not be accepted under a government plan to keep them in the all-party government while the resignations of the rest were sent to the presidential palace for formal acceptance.


The development came as a nationwide 84-hour general strike enforced by BNP and its rightwing allies including fundamentalist Jamaat-e-Islami entered its second day.


The violent shutdown, which overnight claimed two more lives, is aimed to mount pressure on the government to accept the opposition's demand for constituting a non-party caretaker government led by an "acceptable" figure for election oversight.


The strike was enforced following two back-to-back 60-hour shutdowns since October 27 on the same issue. This will be the third prolonged strike in two weeks.


The BNP-led alliance called the first 60-hour shutdown from October 27 and second one from November 4 to press for the restoration of the neutral caretaker government system to oversee the polls scheduled to be held by January 25, 2014.


A total of 26 people have died in violence linked to the political turmoil since October 25.


Political analysts say the ministers' resignations reflect the government's firm stance for going ahead with the plan to constitute the all-party government for election oversight even if BNP declined to join the interim administration or decided to boycott the elections.


Business Standard - ‎5 hours ago‎

Unidentified elements hurled a handmade bomb at the office of the Assistant High Commission of India in Chittagong on Sunday after the opposition Bangladesh Nationalist Party (BNP) announced an 84-hour nation-wide strike, triggering protests across the ...

Bangladesh ministers quit to allow disputed all-party government

NDTV - ‎11 hours ago‎

Dhaka: Bangladesh cabinet ministers submitted their resignations on Monday to allow Prime Minister Sheikh Hasina to form an all-party government to prepare for polls, a plan rejected by the opposition which wants a neutral caretaker government. The move ...

1 dead in latest Bangladesh protest

Indiatimes.com - ‎7 hours ago‎

DHAKA, Bangladesh: Opposition activists in Bangladesh clashed with police and ruling party members on Sunday on the first day of a four-day general strike amid concerns by businesses that the country will suffer terribly if the ongoing chaos does not ...

One dead, dozens injured in Bangladesh violence

Zee News - ‎Nov 10, 2013‎

Dhaka: A man was killed and dozens, including police personnel, were injured Sunday in stray incidents of violence during the first day of a nationwide 84-hour non-stop general strike enforced by Bangladesh's main opposition alliance. Nirmal Das, 45, died ...

Protesters Clash With Police in Bangladesh

Wall Street Journal - ‎2 hours ago‎

DHAKA, Bangladesh—Scores of antigovernment demonstrators were injured and one was killed during clashes with security forces Monday as political tensions soared after the weekend arrest of five opposition leaders. Riot police were deployed on the ...

1 killed, 100 injured as protest for neutral govt during elections continue in ...

Indian Express - ‎Nov 10, 2013‎

At least one person was killed and nearly 100 injured in Bangladesh as opposition activists clashed with police and ruling party members as a four-day nationwide shutdown demanding a neutral caretaker government to oversee the next general election ...

Bangladesh ministers resign to make way for all-party government

ABC Online - ‎8 hours ago‎

Bangladesh cabinet ministers have handed in their resignations to allow Prime Minister Sheihk Hasina to form an all-party government to prepare for polls. The move comes amid a four-day nationwide general strike to force Ms Hasina's ruling Awami League ...

Bangladesh govt warns of Zia`s arrest if anarchy continues

Zee News - ‎Nov 10, 2013‎

Dhaka: Bangladesh government on Sunday warned Opposition Leader Khaleda Zia that she may also face arrest like other top BNP leaders if her party continues "vandalism and terrorist activities" amid a four-day nationwide shutdown. "If the BNP continues ...

Bangladesh`s five opposition leaders jailed over violence

Zee News - ‎Nov 9, 2013‎

Dhaka: Bangladesh opposition's five top leaders, who were detained late Friday night and early Saturday, have been sent to jail in connection with two cases slapped on them for attempting to kill policemen and creating violence in the capital city, Xinhua ...

Top BNP leaders arrested in poll-bound Bangladesh

IBNLive - ‎Nov 10, 2013‎

Five top Bangladesh Nationalist Party (BNP) leaders were arrested in Bangladesh ahead of a nationwide shutdown to press for a neutral caretaker government to oversee the next general election, prompting the opposition to increase the duration of the strike ...

Bangladesh warns of tougher action against opposition

Business Standard - ‎Nov 10, 2013‎

Bangladesh's State Minister of Law Qamrul Islam Sunday said Bangladesh Nationalist Party's (BNP) top leaders, including former prime minister Khaleda Zia, would be arrested if the opposition continues "vandalism and terrorist activities". "If the BNP ...

Politics of Egos

Daily Star Online - ‎1 hour ago‎

It's true with the two most powerful women in today's Bangladesh. Surely, there are two sides of the story and both of them have to take the blame for leading our politics to a disaster threatening democracy for which they fought together over two decades ago.

Khaleda calling hartals to save war criminals

Daily Star Online - ‎1 hour ago‎

There's no place for war criminals in the independent and sovereign soil of Bangladesh. The verdicts of war crimes trial are coming out and those will be executed…their trial will continue," said Hasina, also the AL president. Mentioning that BNP knows how to ...

Bangladesh govt gets tough on opposition; 5 BNP leaders attested

Zee News - ‎Nov 9, 2013‎

Dhaka: Five top leaders of Bangladesh's main opposition BNP have been arrested, hours after Khaleda Zia-led BangladeshNationalist Party announced a 72-hour nationwide strike from Sunday demanding a neutral caretaker government to oversee the next ...

Developments In Bangladesh Are Cause For Serious Concern - Analysis

Eurasia Review - ‎1 hour ago‎

The AL led government under Sk. Hasina had many redeeming features. Statistics need not be quoted ad nauseum. Bangladeshwas beginning to be seen much beyond its borders. News from Bangladesh was no longer about terrorism but counter terrorism.

Bangladesh Oppn calls yet another shutdown

Indian Express - ‎Nov 8, 2013‎

Opposition parties in Bangladesh Friday announced a 72-hour nationwide strike from Sunday, demanding restoration of a neutral caretaker regime to oversee the next general election, after enforcing two back to back 60-hour shutdowns since October 27 on ...

One killed, scores hurt in latest Bangladesh protest

TVNZ - ‎Nov 10, 2013‎

Opposition activists in Bangladesh have clashed with police and ruling party members on the first day of a four-day general strike, amid concerns by businesses that the country will suffer terribly if the ongoing chaos does not immediately stop. At least one ...

Senior opposition leaders arrested in poll-bound Bangladesh

Business Standard - ‎Nov 9, 2013‎

Five top BNP leaders were arrested in Bangladesh ahead of a nationwide shutdown to push for the restoration of a neutral caretaker set-up to oversee the next general elections, prompting the opposition to increase the duration of the strike from 72 to 84 ...

Bangladesh cracks down on oppn party, arrests top leaders

Hindustan Times - ‎Nov 9, 2013‎

Bangladeshi authorities have arrested three senior leaders of the main opposition party amid increasing tensions ahead of next year's elections, an official said Saturday. Police detectives arrested Moudud Ahmed, MK Anwar and Rafiqul Islam Mia on late ...

PM blasts opposition for destructive politics

Daily Star Online - ‎5 hours ago‎

"So, we won't let anyone play ducks and drakes with the fate of the country's people. There's no place for war criminals in the independent and sovereign soil of Bangladesh. The verdicts of war crimes trial are coming out and those will be executed…their trial ...

Violence in Bangladesh over crackdown on opposition

Business Standard - ‎Nov 9, 2013‎

The arrested include Moudud Ahmed, M.K. Anwar and Rafiqul Islam, who are members of the standing committee of the main opposition Bangladesh Nationalist Party (BNP), in connection with anti-government protests last week, Xinhua reported.

BNP leaders held on strike-eve

Calcutta Telegraph - ‎Nov 9, 2013‎

9 (PTI): Five top Bangladesh Nationalist Party (BNP) leaders were arrested on the eve of a nationwide shutdown called to push for the restoration of a neutral caretaker government for the general elections. This prompted the Opposition parties to increase the ...

Bangladesh cabinet ministers resign

www.worldbulletin.net - ‎8 hours ago‎

The 18-party opposition alliance led by the Bangladesh Nationalist Party (BNP) of former premier Khaleda Zia insists on the formation of a non-partisan caretaker government to hold and supervise the elections. The opposition launched on Sunday a four-day ...

Arrests in Bangladesh as violence escalates

Financial Times - ‎Nov 10, 2013‎

The Bangladesh government arrested five senior opposition leaders at the weekend following violent general strikes launched in protest at the handling of the country's upcoming general elections. Three leaders of the opposition Bangladesh Nationalist party ...

Bangladesh opposition calls 72-hour non-stop strike

Zee News - ‎Nov 8, 2013‎

Dhaka: Bangladesh's main opposition alliance on Friday called another round of nationwide strike from Sunday morning demanding national elections under a non-party caretaker government. After a meeting of ex-prime minister Khaleda Zia's Bangladesh ...

Bangladesh arrests key opposition leaders

NDTV - ‎Nov 9, 2013‎

Police said three top Bangladesh Nationalist Party (BNP) leaders, including an ex-deputy prime minister, were arrested late Friday and two key aides of main opposition leader Khaleda Zia including a leading businessman were taken into custody early ...

Bangladeshi cabinet ministers step down amid political crisis

Press TV - ‎5 hours ago‎

Bangladesh villagers look at a motorbike set alight by opposition supporters during a nationwide strike called by the opposition BNP party in Ishurdi, on October 27, 2013. Mon Nov 11, 2013 1:50PM. Share | Email | Print. Bangladesh cabinet ministers have ...


http://www.prothom-alo.com/bangladesh

  1. বাংলাদেশে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের লক্ষ্যে মন্ত্রীদের পদত্যাগ - BBC

  2. www.bbc.co.uk/.../131111_sm_cabinet_bangladesh_resignations.shtml

  3. ৪ ঘন্টা আগে - বাংলাদেশের মন্ত্রীপরিষদের সদস্যরা সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তবে কর্মকর্তারা বলেছেন, এই পদত্যাগের মাধ্যমে মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দেয়া হয়নি বরং নির্বাচনকালীন সরকারের জন্য সেটি পূর্ণগঠন করা হবে।

  4. নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের দিকে যাচ্ছে সরকার - BBC Bangla - খবর

  5. www.bbc.co.uk/bengali/news/.../131108_mh_interim_government.shtml

  6. ৩ দিন আগে - বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন উপদেষ্টা নিশ্চিত করেছেন যেনির্বাচনকালীন অন্তর্বর্তী মন্ত্রিসভা গঠনের পরিকল্পনা নিয়ে সরকার এগিয়ে চলেছে। প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম জানান, তবে বিএনপি চাইলে এখনো মন্ত্রিসভায় অংশগ্রহণের সুযোগ রয়েছে।

  7. নির্বাচনকালীন সরকার: সুজনের প্রস্তাব - BBC Bangla - মাল্টিমিডিয়া

  8. www.bbc.co.uk/bengali/.../131101_mb_sujon_politics_proposal.shtml

  9. ১ নভেম্বর, ২০১৩ - বাংলাদেশে নির্বাচনকালীন সরকারের বিকল্প দুটো রূপরেখা প্রস্তাব করেছে দেশের শীর্ষ নাগরিক সংগঠন সুজন। সুজনের সংবাদ সম্মেলন. ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলন প্রস্তাব দুটি তারা তুলে ধরেন শুক্রবার। প্রকটি প্রস্তাবে তারা বলছেন দুটো জোট থেকে পাঁচজন করে দশজন এমপি এবং দল-নিরপেক্ষ একজনকে নিয়ে সরকার হতে পারে। আরেকটি বিকল্প ...

  10. বাংলাদেশে মন্ত্রীরা পদত্যাগ শুরু করেছেন - BBC Bangla - খবর

  11. www.bbc.co.uk/bengali/.../131107_mb_bd_mp_resignation_starts.shtml

  12. ৪ দিন আগে - আগামী নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সরকার ও বিরোধীদলের মতপার্থক্য এখন চরমে. বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রস্তাবিত 'সর্বদলীয় সরকার' গঠনের জন্য মন্ত্রীরা পদত্যাগ করতে শুরু করেছেন। এই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বুধবার রাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দেবার কথা বিবিসিকে নিশ্চিত করেছেন ...


বিবিসির খবর,ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বলছেন চলতি মাসের ২৫ তারিখের মধ্যেই নির্বাচনকালীন 'সর্বদলীয়' মন্ত্রীসভা গঠন করা হবে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম জানিয়েছেন সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী দলগুলোকে নিয়েই 'সর্বদলীয়' মন্ত্রীসভা গঠন করা হবে।

তবে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি যে সেখানে থাকছে না সেটি এখন অনেকটাই পরিষ্কার। কিন্তু বিএনপি যদি যোগ না দেয় , তাহলে সেটিকে কি 'সর্বদলীয় মন্ত্রীসভা' বলা যাবে?

" আমরা তো আশা করছি বিএনপি এ সরকারে যোগ দেবে। বিএনপি যোগদান না করলে এটা অনেকটাই অসম্পূর্ণ রয়ে যাবে", মি: আলম বিবিসিকে বলেন।

জাতীয় পার্টিকে নিয়ে গুঞ্জন

বিএনপি ছাড়াও ক্ষমতাসীন মহাজোটের দ্বিতীয় বৃহত্তম শরীক জাতীয় পার্টিকেও নিয়ে আছে নানা গুঞ্জন। নির্বাচনকালীন সরকারে যোগ দেবার ব্যাপার জাতীয় পার্টি স্পষ্টই দ্বিধাদ্বন্দ্বে।

দলের কোন কোন নেতা অনানুষ্ঠানিক ভাবে ইঙ্গিত দিচ্ছেন যে তারা হয়তো শেষ পর্যন্ত নির্বাচনকালীন সরকারে যোগ দিলেও দিতে পারেন। কিন্তু কোন কোন নেতা আবার বলছেন, বিএনপি না থাকলে জাতীয় পার্টি সে সরকারে যোগ দেবেনা।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর আহমেদ বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে তাদের দলের অবস্থান এখন পরিষ্কার।

বিএনপির ডাকে ৪-দিনের হরতালের দ্বিতীয় দিনে ঢাকার গুলিস্তান

"কোন অবস্থাতেই জাতীয় পার্টি তথাকথিত সর্বদলীয় সরকারে অংশগ্রহণ করবে না "

কাজী জাফর আহমেদ

" কোন অবস্থাতেই জাতীয় পার্টি তথাকথিত সর্বদলীয় সরকারে অংশগ্রহণ করবে না । আমাদের পার্টির চেয়ারম্যান বারবার পরিষ্কার করে এই কথা বলে দিয়েছেন", মি: আহমেদ বিবিসিকে বলেন।

অন্যদিকে, বর্তমান সংসদে আন্দালিব রহমান পার্থর নেতৃত্বে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির একটি আসন, আর কর্নেল (অব:) অলি আহমদের নেতৃত্বে এলডিপির একটি আসন রয়েছে। এই দুটি দলই বিএনপির নেতৃত্বে আঠারো দলীয় জোটের সাথে আছে।

আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে তারাও সর্বদলীয় সরকারে যোগ দেবে না।

কিন্তু বর্তমান মহাজোট সরকারের অংশীদার বামপন্থী দলগুলো যে নির্বাচনকালীন সরকারে দেবে সেটি নিশ্চিত।

ক্ষমতাসীন দলের অংশীদার তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদ, রাশেদ খান মেননের নেতৃত্বে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব রয়েছে। কিন্তু দীলিপ বড়ুয়ার নেতৃত্বে সাম্যবাদী দলের সংসদে প্রতিনিধিত্ব না থাকলেও তিনি মন্ত্রীসভায় ছিলেন।

'সর্বদলীয়' পথ সুগম?

রাশেদ খান মেনন মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 'সর্বদলীয়' সরকারের যে প্রস্তাব দিয়েছেন সেটি সংকট সমাধানের জন্য একটি সূত্র হিসেবে কাজ করবে।সেজন্যই তার দল নির্বাচনকালীন মন্ত্রীসভায় যোগ দেবার বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এদিকে ক্ষমতাসীন দলের কোন কোন নেতা অনানুষ্ঠানিক ভাবে ধারনা দিচ্ছেন শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি বিবেচনায় সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী দলগুলোর বাইরে আরও কোন পরিবর্তন আসবে কিনা সেটি নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর।

আইনমন্ত্রী শফিক আহমদ বলেছেন, মন্ত্রীরা পদত্যাগপত্র জমা দিলেও রাষ্ট্রপতি সেটি কার্যকর না করা পর্যন্ত মন্ত্রীদের কাজ চালিয়ে যেতে কোন বাধা নেই।

"নির্বাচনকালীন মন্ত্রীসভা গঠনের আগ পর্যন্ত মন্ত্রীরা তাদের দাপ্তরিক কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন এবং সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন," মি: আহমেদ বলেন।

বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী চাইলে মন্ত্রীসভা যে কোন সময় সংকুচিত কিংবা সম্প্রসারিত করতে পারেন। তাহলে পদত্যাগপত্র জমা নেয়া এবং সেটি কার্যকর করার মতো এতো আয়োজন কেন?

আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ এ বিষয়টিতে পরিষ্কার কোন উত্তর দিতে না পারলেও তিনি মনে করেন, নির্বাচনকালীন 'সর্বদলীয়' মন্ত্রীসভা গঠনের পথ সুগম করতে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে।



নির্বাচনের আগে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে রবিবার থেকে একটানা ৮৪ ঘণ্টার সাধারণ ধর্মঘটের প্রথম দিনেই অশান্তি৷


ধর্মঘটের সমর্থনকারী বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি (বিএনপি)-সহ ১৮ শরিকের বিরোধী জোটের সঙ্গে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশকর্মীদের প্রত্যক্ষ সংঘর্ষে রবিবার অন্তত একজনের মৃত্যু হয়েছে৷ আহত শতাধিক৷ আহতদের বেশ কয়েক জনের শারীরিক অবস্থা উদ্বেগজনক৷


অশান্তির প্রথম খবর আসে বন্দর শহর চগ্রাম থেকে৷ পুলিশের সঙ্গে বিরোধীদের সংঘর্ষে প্রাণ হারান ৪০ বছরের এক ব্যক্তি৷ একাধিক পুলিশকর্মী-সহ আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন৷ ব্রাহ্মণবেড়িয়াতেও বিএনপি কর্মীরা পুলিশের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন৷ দু'পক্ষের লড়াইয়ে আহত ৫২৷


ঘরোয়া সামগ্রী দিয়ে তৈরি বোমা বিস্ফোরণ এবং ব্যাপক হারে লুঠপাট চালানোর অভিযোগ মিলেছে ব্রাহ্মণবেড়িয়া, কিশোরগঞ্জ, সাতক্ষীরা, রাজশাহি, বগুরা, ঝেনিদা, কুমিল্লা ও রাজধানী ঢাকা থেকে৷ শুধু ব্রাহ্মণবেড়িয়াতেই পর পর ১০০টি পেট্রল বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে৷


বিরোধীদের ডাকা প্রথম দিনের বন্ধে বাংলাদেশে যে ভাবে অশান্তি ছড়িয়েছে, তার পিছনে বিরোধী সংগঠনের হাতই দেখতে পাচ্ছে আওয়ামি লিগ৷ আইনমন্ত্রী কামরুল ইসলাম রবিবার এক বিবৃতিতে রীতিমতো ঝাঁঝালো সুরে বলেন, 'বন্ধের মোড়কে পরিকল্পিত ভাবে সন্ত্রাস ছড়িয়ে দিতে চাইছে বিএনপি৷ হিংসার রাজনীতি বন্ধ না হলে বিরোধী নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেন্তারি পরোয়ানা জারি করতে বাধ্য হবে শেখ হাসিনা প্রশাসন৷' - পিটিআই


হরতালে অবরুদ্ধ সরকার : বিচ্ছিন্ন ঢাকা : দ্বিতীয় দিনের হরতালে ৩২ জেলায় সংঘর্ষ ভাংচুর ককটেল হামলা : শতাধিক আহত, বগুড়া ও কুড়িগ্রামে রেলের স্লিপার উত্পাটন, মিরসরাইয়ে আগুন

স্টাফ রিপোর্টার

*

টানা হরতালে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে রাজধানী ঢাকা। পুলিশ-র্যাব-বিজিবির কড়া পাহারার মধ্যে অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে ঢাকায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে সরকার। বিভাগীয় শহর থেকে জেলা-উপজেলা এমনকি তৃণমূল পর্যন্ত পিকেটারদের সরব উপস্থিতিতে দেশজুড়ে নজিরবিহীন সফল হরতাল পালিত হচ্ছে।

তবে আন্দোলন দমনে নিরাপত্তা বাহিনী নির্মম নিপীড়ন চালাচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে রণসাজে সজ্জিত নিরাপত্তা বাহিনী আন্দোলনকারীদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে। এসবরে মধ্যেই বিক্ষোভ মিছিল, গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, সড়ক অবরোধ, রেললাইন উপড়ে ফেলা, ককটেল নিক্ষেপ চলছে সমানতালে।

এদিকে হরতালের দ্বিতীয় দিনে গতকাল অন্তত ৩২ জেলায় সংঘর্ষ, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও বিপুল সংখ্যক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় শতাধিক আহত হয়েছে। বগুড়া ও কুড়িগ্রামে রেলের স্লিপার উত্পাটন এবং মিরসরাইয়ে অসংখ্য গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে।

টানা হরতালে অচল হয়ে পড়েছে দেশ। সর্বত্র বিরাজ করছে অচলাবস্থা। দূরপাল্লার কোনো যানবাহন চলছে না। কোথাও কোথাও মালবাহী ট্রাক বের হলেও তা পিকেটারদের হামলার মুখে পড়ছে। অব্যাহত ভাংচুর ও ককটেলের বিস্ফোরণে সর্বত্র আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিশেষ করে সকাল ও সন্ধ্যায় রাজধানীর বিভিন্ন স্পটে গাড়িতে অগ্নিসংযোগ এবং ককটেলের বিস্ফোরণে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। অস্বাভাবিক এ পরিস্থিতিতে জরুরি প্রয়োজনে মানুষ রাস্তায় বের হলেও পড়ছেন ভোগান্তিতে। ঢাকার অভ্যন্তরীণ রুটে কিছু বাস চলাচল করলেও তাতে যাত্রী সংখ্যা সীমিত। সরকারি অফিস আদালত খোলা থাকলে উপস্থিতি ছিল নগণ্য। কার্যক্রমও তেমন চোখে পড়েনি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক ভবন, বিপণি বিতানগুলো ছিল বন্ধ।

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি ও শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে গত রোববার ভোর ৬টা থেকে আগামীকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত টানা চার দিনের ৮৪ ঘণ্টার হরতাল পালন করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট।

৮৪ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিনে গতকাল সোমবার রাজধানীতে মিছিল-পিকেটিং, পুলিশের সঙ্গে হরতাল সমর্থকদের সংঘর্ষ-ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। বেশ কয়েকটি স্থানে পিকেটারদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। প্রায় দুই ডজন স্পটে ঝটিকা মিছিল করে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এ সময় পিকেটারদের লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। কঠোর নিরাপত্তার বেষ্টনীর মধ্যেই গতকাল মারমুখি অবস্থানে থাকা পুলিশ, র্যাবের চোখ ফাঁকি দিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে মিছিল ও ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা।

সকালে গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালী থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। সকাল থেকেই রাজধানীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাটগুলো বন্ধ দেখা গেছে। সরকারি ও বেসরকারি অফিস খুললেও তাতে উপস্থিতি ছিল কম। হরতালে ঢিলেঢালা ভাব ছিল সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে।

হরতালে রাজধানীজুড়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। রোববার সকাল থেকেই রাজধানীর প্রতিটি মোড়ে সতর্ক অবস্থায় আছে পুলিশ ও র্যাব। রাজধানীসহ কয়েকটি জেলায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহের দৌড়ে হরতালের দ্বিতীয় দিনে রাজধানীতে মিছিল ও প্রার্থীর পক্ষে শোডাউনে অনেকটা সক্রিয় ছিল সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা। বিভিন্ন স্থান থেকে মিছিল নিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাশীরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জড়ো হয়। এর ফলে বিএনপির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষের আশঙ্কায় রাজধানীবাসীর মধ্যে অনেকটা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

দ্বিতীয় দিনের হরতাল শেষে সোমবার বিকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৮ দলীয় জোটের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, এই সরকার বেআইনি ও স্বৈরাচারী। বেআইনি সরকারের বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক লড়াইয়ে জনগণের বিজয় অবশ্যম্ভাবী। তিনি বলেন, আইনগতসহ অন্য অনেক দিক থেকেই এই সরকার এখন অবৈধ। তাই বেআইনি অস্ত্র আর পুলিশের ওপর নির্ভর করে তারা টিকে থাকতে চাচ্ছে।

সারাদেশে হরতাল চিত্র জানাতে গিয়ে রিজভী বলেন, হরতালের সমর্থনে জোটের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ এখন রাস্তায় নেমে এসেছে। সংবিধানে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে দেশের গণতন্ত্রকামী জনসাধারণ লড়াইমুখর মুহূর্ত কাটাচ্ছে। অবৈধভাবে গেড়ে বসা বর্তমান সরকারের নানামুখী নিপীড়ন নির্যাতন এবং হিংসাশ্রয়ী নিষ্ঠুরতার শিকার হয়েও এক আদর্শিক উচ্চতায় অবস্থানকৃত বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা মরণপণ চলমান হরতালের কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি জানান, গত ৯ নভেম্বর থেকে সারা দেশে বিরোধী জোটের ১২৬০ জন নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। হামলায় আহত হয়েছে ৩২০০ জনের অধিক নেতাকর্মী। মামলায় আসামি করা হয়েছে ১৩ হাজারের অধিক নেতাকর্মীকে এবং ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছে।


ঢাকায় হরতাল চিত্র

সোমবার রাতে শাহবাগে একটি বাসে অগ্নিসংযোগ করা হয়। বিজয়নগরে মিছিল শেষে একটি সিএনজি অটো রিকশায় আগ্নিসংযোগ এবং লেগুনা ভাংচুর করে পিকেটাররা। নিউমার্কেট, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, গুলশান ও মগবাজারে রাত ৮টার দিকে একযোগে ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে।

দুপুর ১টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে কে বা কারা দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মধ্য আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং তারা এদিক সেদিক ছটোছুটি করতে থাকে। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। তবে কাউকে আটক করতে পারেনি।

সকাল ১২টায় রাজধানীর গুলিস্তান মোড় থেকে হরতালবিরোধী মোটরসাইকেল মিছিল বের করে যুবলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা বিএনপি ও জামায়াত বিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দেয়। এতে পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এদিকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দলটির মনোনায়নপত্র বিক্রি করতে দেখা যায়। এ সময় ওই এলাকায় বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ভিড় করেন।

রাজধানীর অন্যতম প্রাণকেন্দ্র মতিঝিলে পুলিশ ও র্যাবের তত্পরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। হরতালের পিকেটারদের ঠেকাতে জলকামান ও রায়ট কার প্রস্তুত করে রেখেছিল পুলিশ। পুলিশের রায়ট কার ও জলকামানগুলোকে ওই এলাকায় টহল দিতে দেখা যায়। রাস্তায় পাবলিক পরিবহনের সংখ্যা ছিল কম।

সকাল সাড়ে ৬টায় রামপুরা বনশ্রী এলাকায় হরতালের সমর্থনে প্রায় ২৫ জন যুবদলের নেতাকর্মী মিছিল বের করে। এ সময় তারা বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। তখন তারা সাতটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং সড়কে পেট্রল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।


মিরপুর

সকাল সাড়ে ৭টায় প্রিন্সিপাল আবুল কাসেম সড়কে একটি মিছিল বের করে বাঙলা কলেজ শাখা ছাত্রদল। এ সময় তারা সাতটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। তখন পুলিশ মিছিলটিকে ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পরে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা সেখান থেকে চলে যায। এ ব্যাপারে মিরপুর থানার ওসি সালাউদ্দীন খান জানান, মিছিলের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। তবে সেখান থেকে কাউকে আটক করা যায়নি। মিছিলকারীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।


লালবাগে ককটেল উদ্ধার ও জামায়াতের মিছিল

দুপুর ১টার দিকে লালবাগের আজিমপুরের ইরাকি মাঠ সংলগ্ন ১৫২/১ নম্বরের একটি টিনশেড ছাত্রবাসে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশের একটি দল। এ সময় সেখান থেকে প্রায় দেড় শতাধিক ককটেল, সালফার, মারবেল, কাচের টুকরা, স্কচটেপসহ ককটেল তৈরির বিভিন্ন উপাদান উদ্ধার করা হয়। তবে কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ বিষয়ে লালবাগ থানার ওসি নুরুল মুত্তাকিম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ককটেলগুলো উদ্ধার করা হয়। অভিযান চালানোর সময় ওই ছাত্রাবাসে কেউ ছিল না। ককটেল প্রস্তুতকারীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। তাদের আটক করার জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে।

এদিকে সকাল ৭টায় হরতালের সমর্থনে নবাবগঞ্জ বাজার এলাকায় একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে জামায়াতের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই তারা সেখান থেকে চলে যায়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন লালবাগ থানা সেক্রেটারি শামীমুল বারী, জামায়াত নেতা মহসীন কবীর, নজরুল ইসলাম ও আলী আকবরী প্রমুখ।


সূত্রাপুরে শিবিরের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের যৌথ হামলা

ভ্রাম্যমাণ আদালতে তিন শিবির কর্মীর ৪ মাসের সাজা সকাল ১০টার দিকে লক্ষ্মীবাজারের শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের সামনে একটি মিছিল বের করে ছাত্রশিবিরের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতাকর্মীরা। এ সময় সেখানে সাতটি ককটেলের বিস্ফোণ ঘটে। তখন পুলিশ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা মিছিলটিকে ধাওয়া দেয়। এরপর শিবিরের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা হামলা চালায়। এতে ওই এলাকায় পথচারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং তারা এদিক-সেদিক সেদিক ছোটাছুটি করে। এরপর বিক্ষুব্ধ শিবিরের নেতাকর্মীরা সেখানে একটি লেগুনা ভাংচুর করে। বিক্ষুব্ধ শিবির নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ারশেল ও গুলি নিক্ষেপ করে। জবাবে শিবিরের নেতাকর্মীরা পুলিশকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে সেখান থেকে চারজন শিবির কর্মীকে আটক করে পুলিশ।

এদিকে শিবির জানিয়েছে, পুলিশের গুলিতে তাদের ২০ জন নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়েছে। এ ব্যাপারে সূত্রাপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, হরতালের সমর্থনে শিবিরের নেতাকর্মীরা একটি মিছিল বের করে। এ সময় পুলিশ বাধা দিলে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তিনজনকে আটক করা হয়। পরে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হস্তান্তর করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাদের প্রত্যেকেই চার মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেছে। পরে তাদেরকে জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়।


হাজারীবাগ

সকাল সাড়ে ৭টায় বিজিবির ১ নম্বর গেটের সামনে থেকে একটি মিছিল বের করে শিবিরের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা একটি যাত্রাবাহী বাস ভাংচুর করে। তখন দুটি ককটেল বিস্ফোণ ঘটে। তবে সেখান থেকে পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি।


মহাখালী

সকাল ৭টায় মহাখালীর কলেরা হাসপাতালের সামনে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। পরে পুলিশ ওই মিছিলটিকে ধাওয়া করে।


মগবাজার

সকাল ৯টায় রেলগেট মোড় থেকে রমনা থানা জামায়াতের নেতাকর্মীরা হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করে। এ সময় দুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এদিকে সকাল ৮টায় হাতিরপুলে একটি মিছিল বের করে ঢাকা কলেজ শাখা ছাত্রশিবির। মিছিলটি সেন্ট্রাল রোডের সামনের দিকে যেতে চাইলে পুলিশ তাদের পেছন থেকে ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।


যাত্রাবাড়ী

সকাল সাড়ে ৭টায় রায়েববাগের ব্রিজের কাছে হরতালের সমর্থনে ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা একটি মিছিল বের করে। এ সময় সেখানে তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। তখন বিক্ষুব্ধ শিবির কর্মীরা একটি যাত্রাবাহী সিএনজিতে আগুন লাগিয়ে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা ওই সিএনজির আগুন নিভিয়ে ফেলে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। এরপর পুলিশ অগ্নিসংযোগকারীদের আটক করার জন্য আশপাশের দোকান ও বাসাবাড়িতে তল্লাশি চালায়। এতে সেখানে সাধারণ মানুষের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে যাত্রাবাড়ী এলাকায় হরতালের পিকেটারদের ঠেকাতে যুবলীগের নেতাকর্মীরা একটি লাঠি মিছিল বের করে। এতে নেতৃত্ব দেন যাত্রাবাড়ী থানার যুবলীগের সেক্রেটারি মো. মনোয়ারুল ইসলাম। মিছিলকারীরা হরতালবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দেয়। এ সময় পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যাত্রাবাড়ীর প্রতিটি মোড়ে মোড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। পুলিশ সদস্যরা যাত্রাবাড়ী এলাকায় বন্ধ থাকা দোকানগুলো খোলার জন্য দোকান মালিকদের নির্দেশ দেয়। অন্যদিকে রাজধানীর অন্যতম বাসস্ট্যান্ড সায়েদাবাদ বাস টাার্মিনাল থেকে কোনো দূরপাল্লার বাস ছেড়ে যায়নি।


শ্যামপুর

দুপুর সোয়া ১২টায় শ্যামপুরের ধোলাইপাড় বাসস্ট্যান্ডে তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। এ ব্যাপারে শ্যামপুর থানার ওসি আব্দুর রশিদ জানান, ককটেল বিস্ফোরণকারীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।


বাড্ডা

সকাল সাড়ে ৬টায় বাড্ডার শাহজাদপুর এলাকায় হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করে শিবিরের নেতাকর্মীরা। এ সময় সেখানে দুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। পরে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় সেখানে পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। মিছিলকারীদের ধরতে আশপাশের বাসা ও দোকানের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় পুলিশ। তবে সেখান থেকে কাউকে আটক করতে পারেনি।


ডেমরা

সকাল সাড়ে ৭টায় স্টাফ কোয়ার্টার থেকে একটি মিছিল বের করে জামায়াতের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পশ্চিম সারুলিয়া বাজারে এসে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরা সদস্য কবির আহমদ, থানা আমির হাফিজুর রহমান, সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার নজরুল প্রমুখ।

অন্যদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় কারওয়ান বাজারের পেট্রোবাংলা ভবনের সামনে, ফকিরাপুলসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।


জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

হরতালকারীদের প্রতিহত করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে মহড়া দিয়েছে শাখা ছাত্রলীগ। তখন সেখানে সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জবি ছাত্রলীগের সভাপতি এফ.এম শরিফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এস.এম সিরাজুল ইসলাম।


রাজধানীতে জামায়াতের পিকেটিং, গ্রেফতার ১৮

হরতালের সমর্থনে ঢাকায় জামায়াতে ইসলামী ও ছাত্রশিবির ৭০টি স্পটে মিছিল করে। হরতালে পুলিশ অন্যায়ভাবে জামায়াত ও শিবিরের ১৮ নেতাকে গ্রেফতার ও ৪ জনকে গুলি করে আহত করেছে।

গতকাল সকালে রাজধানীর খিলগাঁওয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢ১৮ দল আয়োজিত টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালের সমর্থনে বিক্ষোভ মিছিল করে। মিছিলটি খিলগাঁও থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে সমাবেশে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ড. মুহম্মদ শফিকুল ইসলাম মাসুদ।

তিনি বলেন, জুলুমবাজ ও ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে রাজপথে নেমে এসেছে। তারা টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিনেই সারাদেশ অচল করে দিয়ে সরকারের বিদায় ঘণ্টা বাজিয়ে দিয়েছে। ফলে জনতার বিজয় এখন অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠেছে। সরকার ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাসহ গণগ্রেফতার চালিয়ে জনতার আন্দোলনকে নস্যাত্ করতে চায় । কিন্তু বীর জনতা সরকারের সে ষড়যন্ত্র কখনোই বাস্তবায়িত হতে দেবে না। তিনি টালবাহানা পরিহার করে অবিলম্বে কেয়ারটেকার সরকারের গণদাবি মেনে নিয়ে সরকারকে পদত্যাগ করার জোর দাবি জানান। তিনি দ্বিতীয় দিনের হরতাল সর্বাত্মকভাবে সফল করায় সর্বস্তরের জনতার প্রতি অভিনন্দন জানান।

সমাবেশে এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য লুত্ফুর রহমান, শিবিরের ঢাকা মহানগরী পূর্বের সভাপতি রাশেদুল হাসান রানা, খিলগাঁও থানা সেক্রেটারি সগীর বিন সাঈদ, জামায়াত নেতা অধ্যাপক রবিউল প্রমুখ।


দ্বিতীয় দিনের হরতালে ৩২ জেলায় সংঘর্ষ ভাঙচুর আগুন ককটেল হামলা

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের হরতালের দ্বিতীয় দিনে গতকাল অন্তত ৩২ জেলায় সংঘর্ষ, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আহত হয় শতাধিক। রেললাইনের স্লিপার উত্পাটন করা হয় বগুড়া ও কুড়িগ্রামে এবং মিরসরাইয়ে আগুন দিয়ে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে পিকেটাররা।

গতকাল হরতালের দ্বিতীয় দিনে বড় সংঘর্ষ ও সহিংসতার ঘটনা ঘটে বগুড়ার ধুনট ও চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে। এর মধ্যে ধুনটে ১৮ দলের মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে সংঘর্ষ বাধলে অন্তত ৩৩ নেতাকর্মী আহত হন। সীতাকুণ্ডে সাধারণ গ্রামবাসী পুলিশের বেপরোয়া ধরপাকড়ের শিকার হলে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন তারা। একপর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে ২০ জন আহত হন। এ সময় ভাঙচুর ও আগুন দেয়া হয় অন্তত ২৪টি গাড়িতে।

এসব এলাকার বাইরে সংঘর্ষ ও সহিংসতার ঘটনা ঘটে যশোর, নোয়াখালী, রংপুর, ঝিনাইদহ, কুড়িগ্রাম, সাভার, গাজীপুর, গাইবান্ধা, সিলেট, লক্ষ্মীপুর, রাজশাহী, বরিশাল, ফেনী, জয়পুরহাট, টাঙ্গাইল, নেত্রকোনা, ফরিদপুর, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা, সিরাজগঞ্জ, দিনাজপুর, ভোলা, পাবনা, কক্সবাজার, রাজবাড়ী, চাঁদপুর, নাটোর ও নারায়ণগঞ্জে।

বগুড়ায় রেলস্টেশন থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে শহরদীঘি এলাকায় হরতাল সমর্থকরা রেললাইনের ১০ ফুট কেটে ফেললে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় অল্পের জন্য দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায় লালমনিরহাটগামী 'করতোয়া এক্সপ্রেস'। জেলার ধুনটে বিএনপি-জামায়াতের মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়।

যশোরে খাজুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আওয়ামী লীগ-জামায়াত ধাওয়া-পাল্টাধাওয়াকালে বেশ কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নোয়াখালীতে দিনমনি বাজারে হরতালবিরোধী মিছিল থেকে বিএনপির অফিস ও বেশ কয়েকটি দোকানপাট ভাঙচুর করেছে আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা। এ সময় ২০-২৫টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে।

রংপুর মহানগরীর পীরপুরের ঘোড়াপীর মাজার এলাকায় হরতাল সমর্থকদের আগুনে আবদুল হাই নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের নীমতলা বাসস্ট্যান্ডে হরতাল সমর্থকরা পুলিশের গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।

কুড়িগ্রামের চিলমারীর সীমান্তবর্তী উলিপুর উপজেলার বটেরতল চুনিয়ারপাড় এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা সোমবার ভোরে রেললাইন উপড়ে ফেলে। এ সময় পার্বতীপুর থেকে ছেড়ে আসা রমনাগামী ট্রেনটি সকাল ৮টায় ওই স্থানে আটকে পড়ে।

সাভারে ১০-১২টি গাড়ি ভাঙচুর করে হরতালকারীরা। এ ছাড়া বাইপাইলে একটি লেগুনায় আগুন দেয়া হয়। গাজীপুরে গতকাল সকালে টঙ্গী-ঘোড়াশাল সড়কের মাজুখান এলাকায় পিকেটাররা ৪-৫টি গাড়ি ভাঙচুর করে।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে হরতালকারীরা বেলকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ অফিস ভাঙচুর করেছে। এছাড়া সেখানে পিকেটারদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সিলেটের গোলাপগঞ্জে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী আফছার খান সাদেকের গাড়িবহরে বোমা হামলা করেছে পিকেটাররা।

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে চরফলকন গ্রামে দুই শিবির কর্মীর বাড়িতে হামলা চালিয়েছে যুবলীগ কর্মীরা। এতে মহিলাসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। সিরাজগঞ্জে পুলিশ ও জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়।

কক্সবাজারের চকরিয়ায় হরতালের সমর্থনে পিকেটিং করার সময় পুলিশকে লক্ষ করে হাতবোমা নিক্ষেপের চেষ্টা করলে দুইজনকে আটক করা হয়। চাঁদপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বিএনপির পাঁচ কর্মী আহত হয়।

ঝালকাঠি জেলা জজ আদালতের পিপি আ. মান্নান রসূলের কার্যালয় থেকে সোমবার সকালে পাঁচটি হাতবোমা উদ্ধার করা হয়েছে। নাটোরে পাবনা-নাটোর মহাসড়কে পিকেটারদের ধাওয়ায় এক ট্রাক উল্টে চালক ও হেলপার আহত হয়।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার ও সোনারগাঁওয়ে বিভিন্ন স্থানে টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করেছে হরতাল সমর্থকরা। সিরাজগঞ্জে হরতালের সমর্থনে মিছিল থেকে ও ৮টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সর্মথকরা। এছাড়া লালমনিরহাটের বড়বাড়ী ও চাপারহাটে সড়ক অবরোধ করে হরতাল সমর্থকরা।

এদিকে বিভাগীয় শহরগুলোর মধ্যে রাজশাহীর নগরীর সোনাদীঘি মোড়ে ও শালবাগান মোড়ে হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে অন্তত ছয়জন আহত হয়। বরিশালে নগরীর সিঅ্যান্ডবি রোড কলেজ এভিনিউর মুখে বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) ময়লা বহনকারী একটি ট্রাক ভাঙচুর করে পিকেটাররা। সিলেটে নগরীর জিন্দাবাজারের সিটি সেন্টারের পুলিশ-পিকেটার সংঘর্ষে ৫ জন আহত হয়।

প্রসঙ্গত, নির্দলীয় সরকারের অধীনে আসন্ন সংসদ নির্বাচনের দাবি এবং বিএনপির শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে রোববার থেকে সারা দেশে ৮৪ ঘণ্টার হরতাল ডাকে ১৮ দলীয় জোট। গতকাল ছিল হরতালের দ্বিতীয় দিন।


ধুনটে পুলিশ-১৮ দল সংঘর্ষ, গুলি আহত ২৫

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি জানান, বগুড়ার ধুনটে হরতাল চলাকালে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশ ২ রাউন্ড শটগানের গুলি ও ১২ রাইন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এতে বিএনপি-জামায়াতের অন্তত ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ধুনট শহরের অটোরিকশা স্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ১৮ দলের টানা ৮৪ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিনে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা সকাল ৮টার দিকে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। এরপর তারা সদরের পশ্চিম ভরনশাহী গ্রামে ধুনট-শেরপুর রোডে অবস্থান নেন। সেখান থেকে হরতাল সমর্থকরা সকাল সাড়ে ৯টায় শহরের দিকে অগ্রসর হলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় হরতাল সমর্থনকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও পর পর ৫টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। তখন পুলিশ বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে ১২ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ২ রাউন্ড শটগানের গুলি ছোড়ে। প্রায় ১৫ মিনিট ধরে সহিংসতা ও পুলিশের রাবার বুলেটে বিএনপি-জামায়াতের অন্তত ২৫ নেতাকর্মী আহত হন।

আহতরা হলেন শাহিদুর রহমান সম্রাট, ফরিদুল ইসলাম, তোতন মিয়া, বুলেট খান, আশাদুল ইসলাম, বিটল রহমান, রুহুল আমিন, জাহিদুল ইসলাম, শাহাদত্ হোসেন, আলীম, রুবেল, নাজমুল হক, বল্টু, বাবু, সোহেল, মিনহাজ উদ্দিন, জহুরুল ইসলাম, আবুল কালাম, ইকবাল হোসেন, জাহিদুল ইসলাম, মোফাজ্জল হোসেন ও আব্দুল আজিজ। আহতরা স্থানীয় ডাক্তারখানায় চিকিত্সা নিয়েছেন। ঘটনার সময় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সংঘবদ্ধ হয়ে শহরের টিনপট্টি রাস্তায় অবস্থান করছিলেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি তৌহিদুল আলম মামুন বলেন, হরতালের সমর্থনে শান্তিপূর্ণ মিছিল নিয়ে শহরের দিকে অগ্রসর হওয়ার সময় পুলিশের টিয়ারশেল ও রাবার বুলেটে প্রায় ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোবারক হোসেন বলেন, হরতাল সমর্থকরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নাশকতার চেষ্টা করে। তখন তাদের ছত্রভঙ্গ করতে শটগানের গুলি ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়। তবে শটগানের গুলি বা রাবার বুলেটে কেউ আহত হয়নি।


বগুড়ায় পুলিশ-শিবির সংঘর্ষ গুলি

বগুড়া অফিস জানায়, বগুড়া শহরের কলোনি এলাকায় গতকাল সোমবার পুলিশ ও শিবিরের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ অর্ধশত রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে। সংঘর্ষ চলাকালে ৭-৮টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। সংঘর্ষে ৮ জন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, হরতালের সমর্থনে সকাল পৌনে ৯টায় শিবির মিছিল বের করে। পুলিশ এ সময় রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এক পর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

সদর থানার ওসি সৈয়দ সহিদ আলম জানান, মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে।

এদিকে সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় এবং দ্বিতীয় বাইপাসে টায়ার জ্বালিয়ে মিছিল করেছে হরতাল সমর্থকরা। তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

অপর দিকে গত রোববার রাত পৌনে ১টায় শহরতলীর শহরদীঘি এলাকায় দুর্বৃত্তরা ১০ ফুট রেললাইন উপড়ে ফেলে দেয়। ফলে সান্তাহার-লালমনিরহাট ও দিনাজপুর রুটে রেল চলাচল বন্ধ থাকে। পরে ৪ ঘণ্টা মেরামত শেষে আবার রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়।


সীতাকুণ্ডে অ্যাডিশনাল এসপি, ওসির গাড়িবহরে হামলা সংঘর্ষ ৪ গাড়িতে আগুন

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে হরতালের দ্বিতীয় দিনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পুলিশের সঙ্গে ১৮ দলীয় জোটের কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। বিক্ষুব্ধ জনতা চট্টগ্রাম (উওর) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহিদ উল্লাহ ও ওসি বদিউজ্জামানের গাড়িবহরে হামলা চালায়। এ সময় পুলিশের গুলিতে ছাত্রদল নেতা সাইফুল ইসলামসহ দু'জন গুলিবিদ্ধ ও ১৫-২০ জন আহত হয়েছে।

এদিকে দুপুর ১২টায় উপজেলার বটতলী এলাকায় পিকেটাররা একসঙ্গে ৪টি কভার্ডভ্যানে অগ্নিসংযোগ করলে উপজেলার সর্বত্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সীতাকুুণ্ডের উওর ও দক্ষিণ বাইপাস, কুমিরা, মাদামবিবিরহাট, ফৌজদারহাটসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে পিকেটারদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ভাটিয়ারী ও বাঁশবাড়িয়া বাজারে ১৫-২০টি গাড়ি ভাংচুর করে হরতাল সমর্থনকারীরা।

প্রসঙ্গত, ৮৪ ঘণ্টার হরতালের প্রথম দিনে পুলিশ নীরব থাকলেও গতকালের হরতালে সকাল থেকেই মারমুখী অস্থানে ছিল পুলিশ। বিনা উসকানিতে অ্যাডিশনাল এসপি ও ওসির নেতৃত্বে পুলিশ অতর্কিত বটতলী বাজারে চা-দোকানে নাস্তা করতে আসা ৭ গ্রামবাসীকে আটক করে। তাছাড়া শেখপাড়া, হাসান গোমস্থা, আমিরাবাদসহ বিভিন্ন গ্রামের সড়কে ঢুকে পুলিশ সাধারণ মানুষকে বেধড়ক লাঠিপেটা করার ঘটনা দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীদের মাঝে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। পুলিশের গুলি ও নগ্ন হামলার প্রতিবাদে প্রায় ২৫-৩০টি স্পটে জামায়াত-বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মী মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। সীতাকুণ্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এস.এম বদিউজ্জামান তাদের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।


যশোরে বোমা ভাংচুর, সংঘাত আটক ৬

যশোর অফিস জানায়, ১৮ দলের ডাকা টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিন গতকাল সোমবার যশোরে বোমা বিস্ফোরণ, ভাংচুর ও সহিংস ঘটনা ঘটেছে। শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও জামায়াতের ছয় কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আটকদের মধ্যে চারজনের নাম জানা গেছে। এরা হলো বিএনপি কর্মী সোহেল, জামায়াত নেতা ওয়াহিদুজ্জামান, শিবির কর্মী রাব্বি ও আবদুল মমিন।

সকাল থেকে শহরের দড়াটানা, খাজুরা বাসস্ট্যান্ড, মণিহার সিনেমা হল এলাকা, মুড়লী মোড় ও রেল রোডসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে হরতালের সমর্থনে পৃথক পৃথক মিছিল ও পিকেটিং করে বিএনপি-জামায়াতে ইসলামী ও তাদের সহযোগী সংগঠনসহ ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা। এসব মিছিলে নেতৃত্ব দেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, নগর সভাপতি ও পৌর মেয়র মারুফুল ইসলাম, জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মাস্টার নূরুননবী, শহর আমির অধ্যাপক গোলাম রসুল প্রমুখ।

এদিকে পিকেটিং চলাকালে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে খাজুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আওয়ামী লীগ কর্মীরা হরতালে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে জামায়াত কর্মীরা তাদের প্রতিরোধ করে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে হরতালবিরোধীরা পিছু হটে। পরে তারা আবার সশস্ত্র অবস্থায় এসে খাজুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বেশ কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি।

এছাড়া শহরের অন্যান্য স্থানে বেশকিছু দোকান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহনে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে গত রোববার রাতে শহরের বকুলতলায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে একটি বোমা ছুড়ে মারে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। বোমা মারার অল্প সময়ের মধ্যে যুবলীগ-ছাত্রলীগ শহরে প্রতিবাদ মিছিল করে। এই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে পুলিশ রানা ও ইব্রাহিম নামে দু'যুবককে আটক করেছে। তাদের কাছ থেকে তিনটি হাতবোমা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান কোতোয়ালি থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ।


নোয়াখালীতে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ, আহত ৬

নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান, গতকাল নোয়াখালী সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নে শাসকদলীয় ক্যাডাররা হরতালবিরোধী মিছিল বের করে। মিছিল থেকে শাসকদলীয় শসস্ত্র ক্যাডাররা এলাকায় নাশকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। এ সময় তারা বিএনপির অফিস ও বিএনপি সমর্থিত বেশ কয়েকটি দোকানপাট ভাংচুর করেছে। এ সময় ২০-২৫টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। খবর পেয়ে বিএনপি কর্মীরা ধাওয়া করলে উভয়ের মধ্যে থেমে থেমে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধাওয়া করলে আ.লীগ ক্যাডাররা পিছু হটে। এ সময় এক শিশুসহ অন্তত ৬ ব্যক্তির আহতের খবর পাওয়া গেছে। তবে আহতদের নাম পাওয়া যায়নি। এদিকে বিএনপি অফিস ভাংচুরকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সকাল ১১টার দিকে অশ্বদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা দিনমনি বাজারে হরতালবিরোধী সশস্ত্র মিছিল বের করে। মিছিলটি বিভিন্ন বাজার প্রদক্ষিণ করার সময় বিএনপি-জামায়াত কর্মীদের ধাওয়া করে। এ সময় দিনমনি বাজারে জাতীয়তাবাদী ফোরামের কার্যালয়সহ কয়েকটি দোকানপাট ভাংচুর করা হয়। এরপর ডাক্তারহাট, জামার দোকান, ব্যাল্লাকোট্টায় বেশ কয়েকটি দোকান ভাংচুর করে। দু'পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানের কারণে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিভিন্ন বাজারে অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

ওই এলাকা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নির্বাচনী এলাকা। এ সময় যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরীর ছবি সংবলিত বিলবোর্ড, সকাল থেকে বিভিন্ন স্থানে অন্তত ২০-২৫টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। এতে শিশুসহ ৬ জন আহত হয়। আহতদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিত্সা দেয়া হয়।

অশ্বদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন সায়েম অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ কর্মীরা দিনমনির হাট, ডাক্তার হাট, জামার দোকান, ব্যাল্লাকোট্টাসহ বিভিন্ন বাজারে বিএনপি কার্যালয় ও তাদের দল সমর্থিতদের কয়েকটি দোকানপাটে ভাংচুর করে। পরবর্তীতে ১৮ দলীয় জোট নেতাকর্মীর সংঘবদ্ধ হয়ে দাওয়া করলে সশস্ত্র আ.লীগ ক্যাডাররা পালিয়ে যায়।

অশ্বদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম হোসেন বাবলু অভিযোগ করেন, হরতালে রোববার রাতে বিএনপি কর্মীরা মিছিল থেকে ককটেল বিস্ফোরণ ও ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও একরামুল করিম চৌধুরী এমপির ছবি সম্বলিত বেশ কিছু বিলবোর্ড ও দলীয় কর্মী সমর্থকদের দোকানপাট ভাংচুর করে। এর প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ সোমবার সকাল থেকে অশ্বদিয়ার বিভিন্ন বাজারে একযোগে হরতালবিরোধী মিছিল বের করে। মিছিল থেকে ভাংচুরের অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

সুধারাম থানার উপ-পরিদর্শক চিরঞ্জীব জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বড় ধরনের সহিংসতা এড়াতে ঘটনাস্থলে পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।


অচল নোয়াখালী

নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল, গুম খুন হত্যা বন্ধ ও নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দেয়া সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তির দাবিতে দেশব্যাপী ১৮ দলীয় জোটের ডাকা টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিন নোয়াখালী অচল হয়ে গেছে। নোয়াখালীতে সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদী, দত্তের হাট, সোনাপুর, মাইজদী বাজার, জেলার প্রধান বাণিজ্যিক শহর চৌমুহনী, সোনাইমুড়ী, চাটখিল, কবিরহাট, কোম্পানীগঞ্জ, সুবর্ণচর উপজেলাসহ মহাসড়কের পাশের বাজারগুলোর দোকানপাট বন্ধ ছিল। স্কুল কলেজ ব্যাংক বীমা অফিস আদালত অধিকাংশ বন্ধ ছিল। হাতেগোনা কয়েকটি খোলা থাকলেও উপস্থিতি ছিল কম। সড়কে সীমিত সংখ্যক রিকশা ছাড়া কোনো যান চলাচল করেনি। হরতাল চলাকালে জেলার রাজপথ ছিল ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের দখলে। মানুষ আতঙ্কে একেবারেই জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হন না। জনমনে চরম উত্কণ্ঠা উদ্বেগ আতঙ্ক বিরাজ করছে। হাট-বাজারে স্বল্প সংখ্যক জনসাধারণের উপস্থিতি থাকলেও সবার চোখে-মুখে ছিল আতঙ্ক, উদ্বেগ আর উত্কণ্ঠা। তবে বিকালে হরতালের সমর্থনে মিছিলের জন্য ১৮ দলের অল্প কিছু সংখ্যক নেতাকর্মী পৌর বাজারে জড়ো হলে পুলিশি বাধার মুখে মিছিলটি পণ্ড হয়ে যায়।

এদিকে বিকালে জেলা শহর মাইজদীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে যুবলীগ নেতাকর্মীরা পুলিশি পাহারায় একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

হরতালের সমর্থনে সকাল থেকে দিনভর জেলা শহর মাইজদীসহ উপরোক্ত স্থানগুলোতে ১৮ দল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। পিকেটাররা রাস্তায় টায়ার জালিয়ে গাছের গুঁড়ি পেলে সড়ক অবরোধ করে রাখে। হরতালে সর্বস্তরের জনগণের সমর্থন ছিল নজিরবিহীন। হরতাল চলাকালে ঢাকা-নোয়াখালী-সোনাপুর-লক্ষ্মীপুর মহাসড়কে হাতেগোনা কয়েকটি রিকশা ছাড়া কোনো যান চলাচল করতে দেখা যায়নি। জেলার বিভিন্ন স্থানে মিছিলে নেতৃত্ব দেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন সেলিম, এডভোকেট মো. সাহাদাত হোসেন, সহিদুল ইসলাম কিরন, সোনাইমুড়ী উপজেলা বিএনপি সভাপতি আনোয়ারুল হক কামাল, সোনাইমুড়ী পৌর মেয়র ও পৌর বিএনপি সভাপতি মোতাহের হোসেন মানিক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক আবদুল করিম মুক্তা, জেলা ছাত্রদল সভাপতি নূরুল আমিন খান, সাধারণ সম্পাদক সাবের আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু হাসান মো. নোমান, ছাত্রশিবিরের নেয়ামত উল্যা শাকের, মো. মায়াজ প্রমুখ।


রংপুরে দগ্ধ মোটরসাইকেল আরোহী

রংপুর প্রতিনিধি জানান, রংপুর মহানগরীর পীরপুরের ঘোড়াপীর মাজার এলাকায় হরতাল সমর্থকদের আগুনে আবদুল হাই নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। রোববার দিবাগত রাত সাড়ে নয়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আবদুল হাই নগরীর পিরপুর স্টেশন এলাকার আবদুল আউয়ালের ছেলে।

রাতে আবদুল হাই মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে শহরে যাচ্ছিলো। পিরপুর স্টেশন এলাকায় পৌঁছার পর হরতাল সমর্থকরা মোটরসাইকেলটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

রংপুরের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবীর বলেন, এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এছাড়া নগরীর শালবন এলাকায় এক অটোরিকশা চালককে পিটিয়েছে যুবদলের নেতাকর্মীরা। আহত রিকশা চালককে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


সুন্দরগঞ্জে আ.লীগ অফিস ও গাড়ি ভাংচুর

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানান, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় দ্বিতীয় দিনে গতকাল সোমবার বেলকা ইউনিয়ন আ.লীগ অফিস ও গাড়ি ভাংচুরসহ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে হরতাল পালিত হয়।

গতকাল সোমবার টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতাল চলাকালে সকাল ১০টার দিকে হরতাল সমর্থকরা মিছিল সহকারে বেলকা ইউনিয়ন আ.লীগ অফিস ভাংচুর করে। এছাড়া পিকেটিং করতে থাকলে হরতাল সমর্থক ও আ.লীগ নেতাকর্মীর মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। অপরদিকে ধর্মপুর, শোভাগঞ্জ, বেলকা, ছাইতানতলা, তারাপুরের মাঝিপাড়া, ডোমেরহাট, কদমতলাসহ অনেক স্থানে পিকেটাররা মাইক্রোবাস, অ্যাম্বুলেন্স, মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। এছাড়া জাসদ উপজেলা শাখার সভাপতি মুসলিম মাস্টারের মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়। পিকেটাররা সাংবাদিকদেরও লাঞ্ছিত করে। এ ঘটনার পর থেকে উপজেলার সর্বত্র র্যাব ও পুলিশের টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। এদিকে পুলিশ হরতাল সমর্থকদের কমপক্ষে ২৫টি বাইসাইকেল আটক করে থানায় নিয়ে আসে।


কালীগঞ্জে পুলিশের গাড়িতে হামলা, ককটেল বিস্ফোরণ

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ শহরের নিমতলা বাসস্ট্যান্ডে হরতাল সমর্থনকারীরা পুলিশের গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে। অবশ্য এ হামলায় ঘটনায় কোনো হতাহত হয়নি। রোববার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

কালীগঞ্জ থানা অফিসার-ইন-চার্জ মনির উদ্দীন মোল্যা জানান, মহেশপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান করে পুলিশের একটি গাড়ি ঝিনাইদহ পুলিশ লাইনে ফিরে যাচ্ছিল। পথে কালীগঞ্জের নিমতলা বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছলে পিকেটিংকারীরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়ে ভাংচুর করে।

এছাড়া শহরের মেইন বাসস্ট্যান্ডে রাত সাড়ে ৭টার দিকে কে বা কারা একটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটনায়।


চিলমারীতে রেললাইন উপড়ে ফেলেছে হরতাল সমর্থনকারীরা

চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, কুড়িগ্রামের চিলমারীর সীমান্তবর্তী উলিপুর উপজেলার বটেরতল চুনিয়ারপাড় এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা সোমবার ভোরে রেললাইন উপড়ে ফেলে। এ সময় পার্বতীপুর থেকে ছেড়ে আসা রমনাগামী ট্রেনটি সকাল ৮টায় ওই স্থানে আটকা পড়ে। এতে করে যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ে। অপরদিকে চিলমারীতে হরতালের সমর্থনে ১৮ দলীয় জোট পিকেটিং ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ ছিল। যান চলাচল করতে দেখা যায়নি।


ধামরাইয়ে বাসে অগ্নিসংযোগ, ককটেল বিস্ফোরণ

সাভার প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের সাভার বাসস্ট্যান্ডে রোববার রাতে নিউমার্কেটের সামনে দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। এছাড়া একই স্থানে হরতাল সমর্থকরা এক ঘণ্টার ব্যবধানে মহাসড়কের আইল্যান্ডের ওপর রাখা মাছের বেশ কিছু ককসিটে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে পুলিশ আগুন নিভিয়ে ফেলে। বাইপাইলে হরতাল সমর্থকরা একটি লেগুনা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় এবং ১০-১২টি যানবাহন ভাংচুর করে। অপরদিকে ধামরাইয়ে পাল সিএনজি ফিলিং স্টেশনের কাছে রোববার রাতে থামিয়ে রাখা একটি বাসে অগ্নিসংয়োগ করেছে দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।


গাজীপুরে গাড়িতে আগুন

গাজীপুর প্রতিনিধি জানান, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ১৮ দলের ডাকা টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালে গাজীপুরে নাশকতা ঠেকাতে গতকাল সোমবার সকাল থেকে ৩ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। তবে বেলা ৩টা পর্যন্ত জয়দেবপুর-চৌরাস্তা সড়কে ১টি সিএনজিতে অগ্নিসংযোগ করে পিকেটাররা কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এছাড়া কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া জেলার কোথাও বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শাহনেওয়াজ দিলরুবা খান জানান, জেলার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে সহায়তার জন্য ৩ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি জেলার স্পর্শকাতর এলাকায় তারা টহল দিচ্ছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গাজীপুর (দক্ষিণ) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ভিভিআইপি ডিউটির জন্য গাজীপুর থেকে কিছু সংখ্যক পুলিশ সদস্য অন্যত্র পাঠানোর কারণে তাদের স্থলে সাময়িক বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ জেলায় ফিরে এলে বিজিবি সদস্যরা চলে যাবে।

হরতালের সমর্থনে গাজীপুর শহর শাখা জামায়াত ও গাজীপুর সদর উপজেলা জামায়াতের উদ্যোগে জয়দেবপুর-চৌরাস্তা সড়ক ও শালনা এলাকায় পিকেটিং করার খবর পাওয়া গেছে।

গাজীপুরের টঙ্গী-ঘোড়াশাল সড়কের মাজুখান এলাকায় সোমবার সকাল আটটার দিকে পিকেটাররা একটি ট্যাক্সিক্যাব ও একটি সিএনজিচালিত স্কুটারে অগ্নিসংযোগ করে। এ সময় তিনটি হালকা যানবাহনের গ্লাস ভাংচুর করে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মীরা বাধা দিলে পিকেটারদের সঙ্গে আওয়ামী লীগ কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।

গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পিকেটাররা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। এতে কেউ হতাহত হয়নি।

এদিকে জেলার কালিয়াকৈরে হরতালের পক্ষে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ১৮ দলীয় জোট নেতাকর্মীরা। সকালে কালিয়াকৈর উপজেলা বিএনপি অফিসের সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে সাহেববাজারে গিয়ে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তব্য করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী ছাইয়েদুল আলম বাবুল, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য হুমায়ুন কবীর খান প্রমুখ।

এদিকে গাজীপুর জেলার ৬টি থানা এলাকা থেকে পুলিশ ২৪ ঘণ্টায় ১৩ জনকে আটক করেছে। হরতালে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে তাদের আটক করা হয় বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ কন্ট্রোল রুম।


বিয়ানীবাজারে আওয়ামী লীগ নেতার গাড়িবহরে বোমা হামলা

বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি জানান, সিলেট-৬ বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী আফছার খান সাদেকের গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছে হরতাল সমর্থক পিকেটাররা। এ ঘটনায় মুখোমুখি অবস্থান নেয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা। অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় শহরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি গত রোববার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

গতকাল সোমবার বেলা ১টার দিকে তিনি গাড়িবহর নিয়ে সিলেট শহর থেকে নিজ বাড়ি বিয়ানীবাজারে যাওয়ার পথে গোলাপগঞ্জ শহরে পৌঁছামাত্র হামলার শিকার হন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় উপজেলা বিএনপির সদস্য-সচিব রাজু তালুকদারসহ সিনিয়র নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। আফছার খান ছাদেক জানান, পিকেটাররা তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালায়। বিষয়টি নিয়ে তার পক্ষ থেকে মহানগর যুবলীগ নেতা ইমরান চৌধুরী ইমন বাদী হয়ে গোলাপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন বলে তিনি জানান।


কমলনগরে শিবিরকর্মীদের বাড়িতে যুবলীগের হামলা, মহিলাসহ আহত ৫

কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি জানান, লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে চরফলকন গ্রামে দুই শিবিরকর্মীর বাড়িতে হামলা চালিয়েছে যুবলীগকর্মীরা। এতে মহিলাসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন ওই গ্রামের পলোয়ান বাড়ির শিবিরকর্মী জুলহাস, তার ছোট ভাই রিয়াজ, মা বিবি মরিয়ম, বোন পারভীন বেগম ও শিবিরকর্মী মোহাম্মদ রাসেল।

স্থানীয় লোকজন জানান, ওই বাড়ির যুবলীগকর্মী মাহমুদকে সকালে হাজিরহাট বাজারে শিবির পিকেটাররা ধাওয়া করে। এ ঘটনার জের ধরে একই বাড়ির যুবলীগকর্মীরা দুপুরে শিবিরকর্মী মোহাম্মদ জুলহাস ও রাসেলকে পিটিয়ে আহত করে। ওই সময় বাধা দিতে গেলে তারা শিবিরকর্মীদের দুটি বসতঘরে হামলা চালায়। এতে মহিলাসহ ৫ জন আহত হয়।

কমলনগর থানার এএসআই মোহাম্মদ মহসীন চৌধুরী বলেন, আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঘটনাস্থল ও এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।


রাজশাহীতে পিকেটার-পুলিশ সংঘর্ষ

গতকাল দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী নগরীর সোনাদীঘি মোড়ে ও শালবাগান মোড়ে হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে অন্তত ছয় জন আহত হয়েছে।

পুলিশ নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে পাঁচ হরতাল সমর্থককে আটক করেছে। বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, সোনাদীঘি মোড়ে ছাত্রদলকর্মীরা রাস্তায় আগুন দিয়ে বিক্ষোভ করার সময় সেখানে পুলিশ পৌঁছলে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশ কয়েক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

ওসি বলেন, একই সময় শালবাগান মোড়ে ছাত্রদলকর্মীরা রাস্তায় অবরোধ করে গাড়ি ভাংচুরের চেষ্টা করে। এ সময় সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় বিজিবির একটি গাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে তারা। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ছোড়ে।

নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে পাঁচজন হরতাল সমর্থককে আটক করা হয় বলে ওসি জিয়া জানান।


বরিশালে সিটি করপোরেশনের গাড়ি ভাংচুর

বরিশালে সকালে নগরীর সিঅ্যান্ডবি রোডে কলেজ এভিনিউর মুখে বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) ময়লা বহনকারী একটি ট্রাকে ভাংচুর করেছে পিকেটাররা।

সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র দাস জানান, কলেজ এভিনিউর মুখে জমে থাকা ময়লা অপসারণের জন্য ট্রাক নিয়ে সেখানে যান পরিচ্ছন্নকর্মীরা।

এ সময় একদল যুবক আকস্মিকভাবে ট্রাকটি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে ট্রাকের সামনের গ্লাস ভেঙে যায়।


ফেনীতে ককটেল বিস্ফোরণ

ফেনীতে জেলা শহরে কয়েকটি স্থানে হাতবোমার বিস্ফোরণ করেছে হরতাল সমর্থকরা। এছাড়া হরতালের সমর্থনে বিএনপি ও শিবির শহরের বিভিন্ন স্থানে ঝটিকা মিছিল করেছে।

এর আগে রোববার রাতে পিকেটারদের ধাওয়ায় দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে তিন আরোহী আহত হয়েছেন। সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি সার্কেল) মো. সামছুল আলম সরকার জানান, ভোরে জেলা শহর থেকে দুই বিএনপি ও দুই শিবিরকর্মীকে আটক করা হয়েছে। একই সময়ে ছাগলনাইয়া উপজেলায় এক বিএনপিকর্মীকে আটক করে পুলিশ।


সিরাজগঞ্জ পুলিশ-জামায়াত সংঘর্ষে আহত ১০

সিরাজগঞ্জে পুলিশ ও জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। এদিকে, সদর থানা এলাকায় হাতবোমা নিক্ষেপের ঘটনায় পুলিশ সাত জনকে আটক করেছে। সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাসুদেব সিনহা জানান, কাজিপুর-সিরাজগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে ফকিরপাড়া মোড়ে সকালে পুলিশ ও পিকেটারদের বিক্ষিপ্ত ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

এতে রাবার বুলেটের স্পিল্গটারের আঘাতে বিএনপিকর্মী শাহ আলম, আবু সামা, সুইট, মিজান, তারিকুল, মামুন, ফজেল হক, কামরুল ইসলাম, ফারুক হোসেনসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়। শহরের বিভিন্ন স্থানে ভোরে টায়ার জ্বালিয়ে হরতাল সমর্থকদের পিকেটিং করেছে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলাম জানান, থানায় হোতবোমা নিক্ষেপের ঘটনায় রোববার রাতে ও সোমবার সকালে শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।


দিনাজপুরে বিএনপি-আ.লীগ সংঘর্ষে আহত ৫

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জনকে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বীরগঞ্জ থানার ওসি আরমান হোসেন জানান, গোলাপগঞ্জ বাজারে আওয়ামী লীগ একটি হরতাল বিরোধী মিছিল বের করে এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার আহ্বান জানায়। একই সময়ে বিএনপি হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করে।

এর কিছুক্ষণ পর দু'পক্ষের সংঘর্ষ বেধে যায়। পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।


ভোলায় সড়ক অবরোধ অগ্নিসংযোগ

গতকাল সকালে ভোলা-চরফ্যাশন সড়কের ঘুইংগারহাট এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের সময় পুলিশ বাবুল ও আলামিন নামের দুই পিকেটারকে আটক করেছে। এছাড়া রোববার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত আর ১৫ জন বিএনপি-জামায়াতকর্মীকে আটক করেছে। পিকেটাররা ঘুইংগারহাটসহ বিভিন্ন এলাকায় কয়েকটি অটোরিকশা ও মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান আটকের খবর নিশ্চিত করেছেন।


চকরিয়ায় পুলিশের ওপর বোমা নিক্ষেপ

গতকাল দুপুর ১২টার দিকে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় দুটি হাতবোমাসহ যুবদলের দুই কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় বোমা তৈরির সরঞ্জামও উদ্ধার করা হয়। চকরিয়া থানার ওসি রঞ্জিত কুমার বড়ুয়া জানান, হরতালের সমর্থনে পিকেটিং করার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা নিক্ষেপের চেষ্টা করলে দুজনকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে বোমা তৈরির সরঞ্জামও উদ্ধার করা হয় বলে তিনি জানান।


রাজবাড়ীতে পুলিশ-পিকেটার সংঘর্ষ

সকালে জেলা শহরে পিকেটারদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পিকেটাররা ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে ছয় জন আহত হয়। পুলিশ জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকসহ আট জনকে আটক করেছে।


বগুড়ায় রেলপথে নাশকতা

হরতাল সমর্থকরা রোববার রাত ১২টার দিকে বগুড়া রেল স্টেশন থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে শহরদীঘি এলাকায় রেল লাইনের ১০ ফুট কেটে ফেলে। খবর পেয়ে রেল কর্তৃপক্ষ বগুড়া-সান্তাহার রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। নতুন রেল লাইন সংযোজনের পর রাত সোয়া ৩টা থেকে ট্রেন চলাচল আবার স্বাভাবিক হয়।

নাশকতার এই ঘটনায় বগুড়া রেলওয়ের প্রকৌশল শাখার পক্ষ থেকে বোনারপাড়া রেলওয়ে থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। এর আগে গত ৩ এপ্রিল জামায়াতের ডাকা হরতালে একই এলাকার ২০০ মিটার রেলপথের ৯৯৮টি ইলাস্টিক রেল ক্লিপ-ইআরসি (রেল পথকে স্লিপারের সঙ্গে যুক্ত রাখার ক্লিপ) খুলে ফেলা হয়। এর পর ১৫ এপ্রিল রাতেও সেখানকার ৩০০ মিটার পথের ৮০০টি ক্লিপ খুলে ফেলা হয়েছিল।

বগুড়া রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আফজাল হোসেন জানান, রাত ১২টার দিকে রেলপথ পাহারায় নিয়োজিত কর্মীদের কাছ থেকে খবর পাওয়ার পর পরই ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহযোগিতায় ঘটনাস্থলে মেরামত কাজ শুরু হয়। নতুন রেল লাইন সংযোজন শেষে রাত ৩টা ১৫ মিনিটে ওই পথে ট্রেন চলাচল আবার শুরু হয়।

বগুড়া রেল স্টেশন মাস্টার বেঞ্জুরুল ইসলাম জানান, নাশকতামূলক তত্পরতার খবর পাওয়ার পর সান্তাহার থেকে ছেড়ে আসা লালমনিরহাটগামী 'করতোয়া এক্সপ্রেস' ট্রেনটিকে কাহালু স্টেশনে থামিয়ে রাখা হয়। প্রায় একই সময়ে লালমনিরহাট থেকে ছেড়ে আসা সান্তাহারগামী 'করতোয়া এক্সপ্রেস' এর অপর একটি ট্রেনকে বগুড়া রেলওয়ে স্টেশনে থামিয়ে রাখা হয়। তিনি বলেন, 'আমরা দ্রুত খবর না পেলে লালমনিরহাটগামী ট্রেনটি নিশ্চিত দুর্ঘটনায় পড়ত।'


চাঁদপুরে সংঘর্ষে আহত ৫, আটক ৪

চাঁদপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বিএনপির পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন। এ সময় জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম কাজী জুয়েলসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিএনপির নেতাকর্মীরা সকালে একাধিক ব্যানারে মিছিল নিয়ে জড়ো হয় বাসস্ট্যান্ড এলাকায়। এ সময় বিএনপি দুই কর্মীর মধ্যে মারামারি হয়। এতে নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে গেলে বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া দিলে সংঘর্ষ বাধে। চাঁদপুর মডেল থানার ওসি মাহবুব মোরশেদ জানান, বড় ধরনের সহিংসতার আগেই পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থল থেকে জুয়েলসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে। নতুন সহিংসতা এড়াতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলেও জানান ওসি মাহবুব।


ঝালকাঠির পিপির অফিসে হাতবোমা

ঝালকাঠি জেলা জজ আদালতের পিপি আ. মান্নান রসুলের কার্যালয় থেকে গতকাল সকালে পাঁচটি হাতবোমা উদ্ধার করা হয়েছে।

পিপি আ. মান্নান রসুল জানান, সকালে তিনি ও তার সহকারী পুলিশ কনস্টেবল বজলুর রশিদ অফিসের তালা খুলে হাতবোমাগুলো দেখতে পান। একটি হাতবোমা তার টেবিলের ওপর এবং চারটি ছিল ফ্লোরে।

ঝালকাঠি সদর থানার ওসি আবদুল মান্নান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ আদালত চত্বরে অবস্থিত পিপির অফিস থেকে হাতবোমাগুলো উদ্ধার করে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তিনি জানান, জেলা ও দায়রা জজ শহিদুল্লাহ বকাউল এবং পুলিশ সুপার মজিদ আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ওসি মান্নান জানান, ১৮ দলের ৮৪ ঘণ্টার হরতালে আতঙ্ক ছড়াতে হাতবোমাগুলো সেখানে রাখা হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে।


নাটোরে পিকেটারদের ধাওয়ায় ট্রাক উল্টে চালক-হেলপার আহত

১৮ দলের ডাকা ৮৪ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিনে পাবনা-নাটোর মহাসড়কে পিকেটারদের ধাওয়ায় এক ট্রাক উল্টে চালক ও হেলপার আহত হয়েছেন। পিকেটারদের ধাওয়ায় ট্রাক উল্টে চালক-হেলপার আহত। তারা হলেন, চালক শাহাদত হোসেন ও হেলপার রফিকুল ইসলাম।

শাহাদত হোসেনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও রফিকুল ইসলামকে বনপাড়া 'আমিনা ক্লিনিকে' ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল ভোরে বড়াইগ্রাম উপজেলার আহম্মেদপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঝলমলিয়া হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজলুর রহমান জানান, ভোর ৪টার দিকে পাবনা থেকে নাটোরগামী একটি খালি ট্রাক আহম্মেদপুর এলাকায় পিকেটাদের ধাওয়ায় দ্রুত পালাতে গিয়ে রাস্তার পাশে উল্টে যায়। এতে তারা আহত হন।


সিলেটে বিএনপি-পুলিশ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত ৫

সিলেট নগরীতে বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচজন আহত হয়েছেন। এ সময় দু'জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নগরীর জিন্দাবাজারের সিটি সেন্টারের সামনে সকাল ১১টায় জড়ো হন বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। পরে সেখান থেকে তারা মিছিল বের করে বন্দরবাজার করিম উল্লাহ মার্কেটের সামনে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন। সাড়ে ১১টায় সমাবেশ শেষ হওয়ার পর নেতাকর্মীরা একটি রিকশায় আগুন দেয় ও কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় পুলিশ এগিয়ে এলে শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৮ রাউন্ড শটগান ও ৬ রাউন্ড টিয়ার গ্যাস ছোড়া হয়েছে বলে জানান পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহম্মদ আয়ূব। পরে পুলিশ ধোপাদীঘির পূর্বপার থেকে দু'জনকে আটক করে।

তবে বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতারা দাবি করেছেন, আটকরা তাদের কর্মী নয়।


নারায়ণগঞ্জে অবরোধ

হরতালের দ্বিতীয় দিনের নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার ও সোনারগাঁওয়ে বিভিন্ন স্থানে টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করেছে হরতাল সমর্থকরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ৭টায় বিএনপির সমর্থকরা আড়াইহাজার উপজেলার পাঁচরুখি এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় তারা বেশ কয়েকটি হাতবোমাও ফাটায়।

তবে পুলিশ আসার আগেই তারা পালিয়ে যায়।

আড়াইহাজার থানার ওসি আখতারুজ্জামান জানান, মহাসড়কের যে স্থানে এ ঘটনা ঘটেছে, সেটি নরসিংদীতে পড়েছে। পুলিশ গিয়ে কাউকে পায়নি। তবে সড়ক থেকে পোড়া টায়ার সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

এদিকে কাছাকাছি সময়ে সোনারগাঁয়ের বস্তুল এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে ঢাকা বাইপাস সড়ক অবরোধ করে স্বেচ্ছাসেবক দলের সমর্থকরা। কয়েকটি হাতবোমাও ফাটানো হয় এ সময়।

এছাড়া সোনারগাঁ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মান্নানের নেতৃত্বে হরতালকারীরা ভুলতা-মদনপুর-জয়দেবপুর সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে এবং ভাঙচুর ও বোমাবাজি করে।

এছাড়া সোনারগাঁ বারদী এলাকার শান্তিবাজার সড়ক অবরোধ করে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে থানা বিএনপির কর্মীরা। পরে পুলিশ গেলে কিছু সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে।

সোনারগাঁও থানার ওসি আতিকুর রহমান বলেন, 'হরতালে বড় কোনো গোলযোগ ঘটেনি। বিচ্ছিন্নভাবে কিছু মিছিল হলেও পুলিশ সতর্ক আছে।'

সকাল ৮টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে শিবিরকর্মীরা। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

রূপগঞ্জ থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, শিবিরকর্মীরা সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। এ সময় দুই শিবিরকর্মীকে আটক করা হয়।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) এস এম আশরাফুজ্জামান জানান, নাশকতার অভিযোগে রোববার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের ১২ কর্মীকে আটক করা হয়েছে।


মিরসরাইয়ে ছাত্রলীগের গুলিতে জামায়াত কর্মীসহ আহত ৩

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ছাত্রলীগের গুলিতে এক জামায়াত কর্মীসহ তিনজন আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ জামায়াত কর্মী নুরুল মোস্তফাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে উপজেলার ১৪ নম্বর হাইতকান্দি ইউনিয়নের পূর্ব বালিয়াদীতে এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আবদুল আউয়াল চৌধুরী জানান, সোমবার সকালে বালিয়াদী এলাকায় বিএনপি ও যুবদল কর্মীরা পিকেটিং করে। এ সময় বড় দারোগাহাট থেকে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ছাত্রলীগের একটি দল এসে তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় নুরুল মোস্তফাকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে ছাত্রলীগ কর্মীরা। পরে স্থানীয় লোকজন মোস্তফাকে উদ্ধার করে প্রথমে সীতাকুণ্ড মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি করায়। অবস্থার অবনতি দেখে তাকে পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন উপজেলা জামায়াতের আমির নুরুল করিম, সেক্রেটারি নুরুল কবির, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক শাহীদুল ইসলাম চৌধুরী।

এদিকে ৮৪ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিনে মিরসরাইয়ে রেল স্লিপারে আগুন দিয়েছে পিকেটারারা। ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বড়তাকিয়া ব্র্যাক অফিসের সামনে কয়েকটি স্থানে কয়েকটি সিএনজি ভাঙচুর করে পিকেটাররা। পরে পুলিশ ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। ভোর ৫টায় উপজেলার সোনাপাহাড় এলাকায় রেল স্লিপারে আগুন ধরিয়ে দেয় ছাত্রদল-যুবদল কর্মীরা। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ধুমঘাট, মস্তাননগর, নয়দুয়ারিয়া এলাকায় পিকেটিং করে তারা। এছাড়া বারইয়ারহাট ও বড় কমলদহ এলাকায় পিকেটিং করে ছাত্রশিবিরের কর্মীরা। এদিকে উপজেলা চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের নেতৃত্বে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শোডাউন করে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।


সিরাজগঞ্জে ককটেল বিস্ফোরণ

১৮ দলীয় জোটের ডাকা ৮৪ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিনের সর্মথনে সিরাজগঞ্জে মিছিল ও আটটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। একই সময় এসএস রোড থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি তাজা ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবারের হরতাল সমর্থন করে স্থানীয় বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীরা রেলগেট এলাকায় একটি মিছিল বের করে। একপর্যায়ে পুলিশ বাধা দিলে পিকেটাররা পুলিশকে লক্ষ করে ৩টি ককটেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশ ফাঁকা গুলি করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

অপরদিকে রাত পৌনে ৯টার সময় হরতাল সমর্থকরা শহরের বাহিরগোলা ও বগুড়া বাস টার্মিনাল রোডে পৃথক দুটি মিছিল বের করে। এ সময় তারা টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে বেশ কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলাম বলেন, 'আতঙ্ক সৃষ্টি করতেই ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।'


চট্টগ্রামে ভাঙচুর-অবরোধে

ককটেল বিস্ফোরণ, যানবাহনে আগুন, সমাবেশ ও খণ্ড খণ্ড মিছিলের মধ্য দিয়ে ১৮ দলের ৮৪ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হয়।

মহানগরীর নাসিরাবাদ পলিটেনিক্যাল এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর, গাড়িতে আগুন এবং বড় বড় গাছের গুঁড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পিকেটিং করেছেন শিবির কর্মীরা। সকাল সাড়ে ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে এসব ঘটনা পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে নগরীর নাসিরাবাদ পলিটেকনিকেল মোড় এলাকায় পিকেটাররা একটি যাত্রীবাহী লেগুনা গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় যাত্রীরা তাড়াহুড়া করে নেমে যায়। এ সময় ৪-৫ জন আহত হয়। এ স্থানে পিকেটারেরা তিনটি টেম্পো ভাঙচুর করেছে। একটি টেম্পোতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করলেও টেম্পো চালক দ্রুত পালিয়ে গেলে আগুন থেকে রক্ষা পান। সকাল থেকে পিকেটারেরা সড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে। হরতালের সমর্থনে মিছিল করে তারা বেশ কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণও ঘটায়।


হরতালে লালমনিরহাটে সড়ক অবরোধ

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ডাকা টানা ৮৪ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিনে লালমনিরহাটের বড়বাড়ী ও চাপারহাটে সড়ক অবরোধ করে হরতাল সমর্থকরা।

তারা সোমবার সকাল থেকে সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর কুড়িগ্রাম রোডের বড়বাড়িতে এবং কালীগঞ্জ উপজেলার চাপারহাটে লালমনিরহাট হাতিবান্ধা বাইপাস সড়ক অবরোধ করে রাখে। গাছের গুঁড়ি আর টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে লাঠিমিছিল করে হরতাল সমর্থকরা।

এদিকে কালীগঞ্জ উপজেলার চাপারহাটে মিছিল শেষে এক সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রোকন উদ্দিন বাবুল, চন্দ্রপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ডা. নাজির হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শামছুজ্জামান সবুজ।

এদিকে পাটগ্রামে পুলিশের গুলিতে নিহত ছাত্রদল নেতা নাসিরের হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলার আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়ন ছাত্রদল। পরে ছাত্রদলের সভাপতি অহেদুজ্জামান আবিরের নেতৃত্বে একটি মিছিল মহিষখোচা বাজার থেকে বের হয়ে পাঁচ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে উপজেলা বিএনপি দলীয় কার্যালয়ে শেষ হয়। সেখানে লালমনিরহাট বুড়িমারী মহাসড়ক অবরোধ করে সমাবেশ করেন তারা।


ঝিনাইদহে ককটেল বিস্ফোরণ, গ্রেফতার ৬

ঝিনাইদহে জেলা শহরের হামদহ বাসস্ট্যান্ডে গতকাল সোমবার সকালে ছাত্রদল ঝটিকা মিছিল করে। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটায়।

পুলিশ পৌর যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক সবুজ হোসেন, বিএনপি কর্মী চাঁদ মিয়া ও সরুজকে আটক করে। অন্যদিকে শৈলকূপায় হরতালে যানবাহন ভাঙচুরের ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনে ১৪ বিএনপি নেতাকর্মীর নামে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলার পর আজ সোমবার ভোরে ৩ বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন সম্রাট, সোহেল ও কিবরিয়া।

http://www.amardeshonline.com/pages/details/2013/11/12/224232#.UoEyM3CBkQN


নির্বাচনকালীন সরকারের পাল্টা প্রস্তাব খালেদার

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ১৮:৫০, অক্টোবর ২১সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন খালেদা জিয়া। ছবি: সাজিদ হোসেন

১৯৯৬ ও ২০০১ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারে থাকা ২০ উপদেষ্টার মধ্যে থেকে ১০ জনের সমন্বয়ে একটি নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের প্রস্তাব করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি বলেছেন, ওই ২০ জন থেকে আওয়ামী লীগ পাঁচজন এবং বিএনপি পাঁচজনের নাম প্রস্তাব করবে। সর্বজন গ্রহণযোগ্য একজন ব্যক্তিকে ওই সরকারের প্রধান করা হবে। প্রয়োজনে তাঁদের এই সংসদ ভেঙে যাওয়ার আগে নির্বাচিত করে আনা যেতে পারে, যেভাবে সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচন করা হয়।


১৮ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর সর্বদলীয় সরকার গঠনের প্রস্তাবের তিন দিনের মাথায় পাল্টা এই প্রস্তাব তুলে ধরলেন বিরোধীদলীয় নেতা। আজ সোমবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়া তাঁর এই নতুন প্রস্তাব তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর এই প্রস্তাব গ্রহণ করবেন এবং দ্রুত আলোচনার উদ্যোগ নেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

খালেদা জিয়া তাঁর বক্তব্যে ভবিষ্যতে ক্ষমতায় গেলে নতুন ধারার রাজনীতি করা, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া ও আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। 'অতীতের ভুল' সামনে আর না করারও অঙ্গীকার করেন। ভবিষ্যতে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে সরকার কেমন হবে তারও একটি ধারণা দেন দলের চেয়ারপারসন।

সংবাদ সম্মেলন হলেও এখানে সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্ন করার সুযোগ ছিল না।

প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য হয়নি

প্রধানমন্ত্রী সর্বদলীয় সরকারের যে প্রস্তাব দিয়েছেন তা 'গ্রহণযোগ্য হয়নি' দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী সর্বদলীয় সরকারের যে প্রস্তাব দিয়েছেন তা অস্পষ্ট। সে সরকারের প্রধান কে হবেন তা খোলাসা করেননি। এই প্রস্তাবে সংশয় রয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী সংসদ বহাল রেখে, প্রশাসনকে কুক্ষিগত রেখে অসম প্রতিযোগিতার আহ্বান জানাচ্ছেন বলে দাবি করেন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, 'নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের গণদাবি সম্পর্কে কোনো আলোচনার অবকাশ না রেখে একতরফাভাবে শুধু নিজের সুবিধা অনুযায়ী একটি প্রস্তাব তুলেছেন। তিনি কেবল নির্বাচনের তারিখ নিয়ে বিরোধী দলের পরামর্শ চেয়েছেন। তাঁর এ বক্তব্যে জাতি হতাশ হয়েছে। আমি এখনো মনে করি, আলোচনার মাধ্যমেই বিষয়টির সুরাহা করা দরকার।'

খালেদা জিয়া বলেন, গণতান্ত্রিক ধারা অক্ষুণ্ন রেখে শান্তিপূর্ণ পথে ক্ষমতা হস্তান্তর নিশ্চিত করতে হলে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ এবং সব দলের অংশগ্রহণের ভিত্তিতে একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই। এ জন্যই তাঁরা জাতীয় নির্বাচনকালীন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের দাবি তুলেছেন। এ দাবি এখন জাতীয় দাবিতে পরিণত হয়েছে।

খালেদা জিয়া বলেন, সরকার জনগণের দাবির প্রতি সম্মান দেখাবে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রত্যাশার অনুকূলে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবে বলে তাঁরা আশা করেছিলেন। কিন্তু সরকারের অনড় অবস্থান এবং জনসাধারণ ও বিরোধী দলের প্রতি যুদ্ধংদেহী আচরণ সবাই হতাশ করেছে।

ভুলের পুনরাবৃত্তি নয়

অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে সামনে এসব ভুল না করার অঙ্গীকার করেন বিরোধীদলীয় নেতা। তিনি বলেন, 'মানুষ ভুল-ত্রুটির ঊর্ধ্বে নয়। এ কথা স্বীকার করতে আমার কোনো দ্বিধা নেই যে অতীতে আমাদেরও ভুলভ্রান্তি হয়েছে। তবে একই সঙ্গে আমি বলতে চাই যে আমরা ওই সব ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েছি। ভবিষ্যতে একটি উজ্জ্বল, অধিক স্থিতিশীল ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের পথে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে আমরা ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি। আমি সেই প্রবচনের সঙ্গে একমত যে ইতিহাস থেকে শিক্ষা না নিলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটে। তাই আমরা অতীতের ভুলগুলোর পুনরাবৃত্তি করব না।'

'ক্ষমা ঘোষণা'

খালেদা জিয়া বলেন, পরিবর্তনের কথা কেবল মুখে বলাই যথেষ্ট নয়। কেননা, এ দেশের জনগণ অতীতেও পরিবর্তনের অঙ্গীকার রাজনীতিকদের কণ্ঠে শুনেছে। তাই তিনি 'একটি কথা বলে' পরিবর্তনের সূচনা করতে চান। তাঁকে যারা ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছেন তাদের তিনি 'ক্ষমা ঘোষণা' করেন।

খালেদা জিয়া বলেন, 'আমি দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা করছি যে যাঁরা আমার এবং আমার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অতীতে নানা রকম অন্যায়-অবিচার করেছেন, ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছেন এবং এখনো করে চলেছেন, আমি তাঁদের প্রতি ক্ষমা ঘোষণা করছি। আমি তাদেরকে ক্ষমা করে দিলাম। সরকারে গেলেও আমরা তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো প্রতিশোধ নেব না। আমি কথা দিচ্ছি, আমার দৃষ্টি নিবন্ধ থাকবে বাংলাদেশের জন্য একটি উজ্জ্বল ও অধিক নিরাপদ ভবিষ্যত্ নিশ্চিত করার কাজে। প্রতিশোধ নেওয়ার, প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার মতো কোনো ইচ্ছা ও সময় আমার নেই। আমি প্রতিশোধ-প্রতিহিংসা মেটানোর জন্য কোনো সময় ব্যয় করব না।'

বিএনপি চেয়ারপারসন দাবি করেন, তাঁর কাছে প্রধানমন্ত্রী, তাঁর পরিবারের সদস্যরা ও আত্মীয়স্বজন সম্পর্কে বিস্তর অভিযোগ ও তথ্য থাকা সত্ত্বেও এ নিয়ে তিনি কোনো কথা বলতে চান না। খালেদা জিয়া বলেন, 'আমি মনে করি, অনেক হয়েছে। বাংলাদেশের সুরুচিবান মানুষ আর এসব শুনতে চান না।'

সরকার হবে জাতীয় ঐক্যের

খালেদা জিয়া জানিয়েছেন ভবিষ্যতে তাঁর দল যে সরকার গঠন করবে তা হবে সব 'নাগরিকের প্রতিনিধিত্বকারী সরকার'। মেধা ও মননশীলতার সরকার। জাতীয় ঐক্যের সরকার। 'যারা সমাজের জন্য অবদান রাখতে পারেন, যাঁরা দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনেন, যাঁরা সত্-যোগ্য-দক্ষ, যাঁরা সুষ্ঠু পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে পারেন, যাঁরা নেতৃত্ব দিতে পারেন, রাজনৈতিক মত-ধর্ম-নৃতাত্ত্বিক পরিচয় নির্বিশেষে সেই সব মেধাবী ও যোগ্য নাগরিকদের' আগামী দিনের জাতীয় ঐক্যের সরকারের সঙ্গে কাজ করার আগাম আমন্ত্রণ জানান খালেদা জিয়া।

বাংলাদেশের মাটি সন্ত্রাসীদের জন্য নয়

আওয়ামী লীগের আমলে বিভিন্ন বোমা হামলার ঘটনার উল্লেখ করে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিস্তার আওয়ামী লীগের বিগত সরকারের আমলেই ঘটেছিল। আওয়ামী লীগ কোনো বিচার করেনি। বিএনপি ক্ষমতায় এসে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে।

খালেদা জিয়া বলেন, 'আওয়ামী লীগের আমলে সৃষ্ট এই জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস আমাদের সরকারের আমলেও অব্যাহত ছিল। তবে আমরা জঙ্গিদের শনাক্ত করতে সক্ষম হই। তাদের সংগঠন ও তত্পরতা নিষিদ্ধ করি। শীর্ষ জঙ্গিনেতাদের গ্রেপ্তার ও তাদের বিচারের ব্যবস্থা করি। আমাদের সরকারের আমলেই শীর্ষ জঙ্গিদের বিচারে মৃত্যুদণ্ড হয়, পরে তা কার্যকর করা হয়েছে। আমাদের সর্বাত্মক প্রয়াসে জঙ্গিবাদের নেটওয়ার্ক সম্পূর্ণ ভেঙে দেওয়া সম্ভব হয়।'

বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ভবিষ্যতে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী লড়াই শুধু অব্যাহতই থাকবেই না, সন্ত্রাসবিরোধী আন্তর্জাতিক কোয়ালিশনের সক্রিয় সদস্য হিসেবে অন্যান্য দেশ ও সংস্থার সঙ্গে মিলে এই সহযোগিতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

খালেদা জিয়া বলেন, 'বাংলাদেশের মাটিকে দেশীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অথবা অন্য কোনো ধরনের সন্ত্রাসী তত্পরতায় কখনো ব্যবহার করতে না দেওয়ার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ গ্রহণে আমরা দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ।'

আঞ্চলিক সহযোগিতা

ভবিষ্যতে আঞ্চলিক সহযোগিতা আরও জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, 'আমরা জনগণের সমর্থনে ভবিষ্যতে সরকারে গেলে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে মিলে আমরা একযোগে কাজ করব। বিদ্যমান সম্পর্ক বহাল রাখার পাশাপাশি রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, নিরাপত্তা, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক খাতে সহযোগিতা বাড়ানোর নতুন পথের সন্ধান আমরা করব।'

শান্তি, স্থিতি, নিরাপত্তা ও আঞ্চলিক সহযোগিতা এই অঞ্চলের জনগণের জীবনমানের উন্নয়ন ও বিকাশের ভিত্তি উল্লেখ করে খালেদা জিয়া বলেন, 'কোনো দেশ ও অঞ্চলই এখন আর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হয়ে থাকতে পারে না। তাই আমাদেরকে বিশ্বসমাজের শরিক হিসেবে ভূমিকা ও অবদান রাখতে হবে। বাংলাদেশ অস্থিতিশীল হলে দক্ষিণ এশিয়া অস্থিতিশীল হবে। আর দক্ষিণ এশিয়া অস্থিতিশীল হলে বিশ্বসমাজে তার প্রভাব পড়বে। সে কারণেই আমরা এমন নীতি গ্রহণ করব যা দেশের এবং আঞ্চলিক শান্তি, স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা জোরদার করবে। শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ এক বিশ্বসমাজ গড়ে তুলতে বাংলাদেশ ও আমাদের প্রতিবেশী সব দেশ যাতে ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে ভবিষ্যতে আমাদের সরকার সেভাবেই কাজ করবে।'

http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/56763/%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%9A%E0%A6%A8%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%80%E0%A6%A8_%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0_%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE_%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%AC_%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%A6%E0%A6%BE%E0%A6%B0

Transfer fear slows down work at secretariat

NOVEMBER 12, 2013

DHAKA, NOV 11: Work at the secretariat, the hub of the administration, has slowed down as bureaucrats are unable to take decisions, fearing consequences if there is a change of guard. Files which could be cleared at deputy or joint secretary levels are being forwarded to secretaries due to lack of confidence among the junior officers in the secretariat. The officers are also mentioning on the notes of the concerned files the names of ministers, MPs and influential officials, who had issued DO letters to avoid harassment in future. Senior officials are thus unable to expedite the work at the secretariat despite repeated directives, sources said on condition of anonymity.

FULL STORY

ACC Bill-2013 controversial, says Chairman

NOVEMBER 12, 2013

Chairman of Anti-Corruption Commission (ACC) M Badiuzzaman has called the Anti-Corruption Commission Bill-2013 controversial and unclear. He said it on Monday while briefing the journalists in the head office of the Commission at Segunbagicha in the city. "The Constitution guarantees equal rights for all the citizens of the State. But the new law, which the Parliament passed on Sunday, is contradictory," he said.

M. Badiuzzaman said, the Commission previously had authority to file cases against the government officials on charge of practising corruption. But according to the new law, the ACC will be required to obtain prior permission from the government before filing cases.

FULL STORY

2nd day of hartal - Rivals clash, people suffer

NOVEMBER 12, 2013

The second day of the 84-hour countrywide hartal  at the call of  the BNP-led 18-party alliance was observed amid sporadic violence, incidents of bomb explosions, arson attacks, vandalism and arrest of opposition activists.

Besides the capital city, several incidents of clashes between pro and anti-hartal activists took place in different parts of the country causing immense suffering to common people. Widespread vandalism also occurred in port city of Chittagong, Bogra, Laxmipur, Chandpur, Naogaon, Gazipur, Brahmanbaria and Nogaon.

FULL STORY

100 RMG units shut - Fresh workers' unrest in Ashulia: BGMEA sees conspiracy

NOVEMBER 12, 2013

Production was suspended at 100 readymade garment (RMG) factories located in Ashulia industrial belt on Monday as workers' unrest erupted afresh over the implementation of minimum wage.

Police said workers of a garment factory at Zirabo area in the industrial belt brought out a procession in the morning, demanding immediate implementation of pay hike that the government's wage board proposed last week.

Few minutes later, several thousand workers of the adjoining factories joined them and started demonstration which later erupted to the factories located at both sides of Jamgara- Baipail road.

FULL STORY

No scope to halt polls for boycott by any party: Shah Nawaz

NOVEMBER 11, 2013

Dhaka, Nov 11 (UNB) – Election Commissioner Md Shah Nawaz on Monday said the Election Commission has the constitutional obligation to hold the general election in due time even if any major political party boycotts it.

FULL STORY

Canada hopeful of Hasina-Khaleda dialogue: Envoy

NOVEMBER 11, 2013

Dhaka, Nov 10 (UNB) – Canada is still hopeful of a dialogue between Prime Minister Sheikh Hasina and Opposition Leader Khaleda Zia to find a way to resolve the country's ongoing political crisis over polls-time government.   "We hope the Prime Minister and Khaleda Zia will hold a dialogue to resolve the ongoing political crisis and promote the country's business," Canadian High Commissioner in Dhaka Heather Cruden told a function at BGMEA Bhaban in the capital on Sunday. - See more at: http://unbconnect.com/canada-politics/#&panel1-1

FULL STORY

One-sided polls to spurt violence

NOVEMBER 11, 2013

DHAKA, NOV 10: With the ruling party heading towards holding the next general election even without the main opposition BNP, experts and civil society leaders feel that such a move would escalate the ongoing political violence, endangering the lives and property of the common people. Vehemently opposing the plan of holding a lopsided election, they suggested that the government should start talks immediately by releasing the detained opposition leaders.  They also urged the opposition to be responsive to negotiations over poll-time government by shunning the path of violence.

The ruling Awami League (AL), on Sunday, started selling its nomination forms among the aspirant MP candidates for the forthcoming  10th parliamentary elections to be held by January 24.

FULL STORY

One killed, 100 hurt on 1st day of hartal

NOVEMBER 11, 2013

DHAKA, NOV 10: At least one person was killed and over 100 others injured in stray violence during the first day of the nationwide 84-hour hartal, enforced by the Bangladesh Nationalist Party (BNP)-led 18-party alliance, on Sunday. As many as 50 vehicles were also vandalised and several hundred cocktails basted on Sunday when police detained more than 50 hartal supporters, mainly Jamaat-Shibir activists, from different places in the country.

Rail communication between Dhaka and northern districts remained suspended for over five hours as hartal supporters uprooted rail tracks in Natore.

FULL STORY

Level-playing field for all after polls schedule: CEC

NOVEMBER 11, 2013

The Election Commission (EC) will ensure a level-playing field for all political parties and candidates after the announcement of the election schedule. "We'll work to create a level-playing field after the announcement of the election schedule," CEC Kazi Rakib Uddin Ahamed told reporters replying to a query as to how the EC will create a level-playing field as a party sells nomination papers when top leaders of other parties are in jail.

FULL STORY

US envoy meets Hasan Mahmud - Khaleda Zia not under house arrest

NOVEMBER 11, 2013

Environment and Forest Minister Dr Hasan Mahmud has said that the top BNP leaders who were arrested on Friday for having sponsored the 84-hour hartal may be freed if the Opposition joins dialogue leaving the path of violence.

"They were arrested for making provocative public speeches," Dr Mahmud said on Sunday.

He was talking to the newsmen after a meeting with acting US ambassador to Dhaka, Jon Danilowicz, at the Secretariat.

FULL STORY

Blast in Ctg IHC Spl security in Baridhara diplomatic zone

NOVEMBER 11, 2013

Special security measures have been taken surrounding the Baridhara diplomatic zone in the city to ensure safety to the foreign missions and diplomats, official said on Sunday. They said the step was taken following a crude bomb attack on Indian High Commission office in Chittagong yesterday evening.

Officer-in Charge of Gulshan Police station told The New Nation over phone that the members of law enforcing agencies have been increased in the area to ensure fool-proof security to the foreign mission in the wake of opposition's hartal.

FULL STORY

Adilur and Elan's indictment on Nov 17

NOVEMBER 10, 2013

The duo will appear before the Cyber Crime Tribunal.On Sunday a Dhaka Cyber Crime Tribunal fixed the date, November 17, for the indictment hearing of human rights organisation Odhikar's secretary Adilur Rahman Khan and its director AKM Nasiruddin Elan.

Cyber Crime Tribunal Judge AKM Shamsul Alam passed the order.

FULL STORY

'Resolve crisis in Parliament'

NOVEMBER 10, 2013

Speaker Shirin Sharmin Chaudhury has said the ruling and the opposition parties can talk in the parliament if they want to resolve the political crisis as the parliament is still on session. "We'll have to continue this session for a few more days as parliament's nod to several important bills is pending," she told journalists on the sidelines of the 'Indian Technical and Economic Cooperation (ITEC) Day' celebration on Saturday evening. She, however, could not specify how long this session would continue. "It will depend on the passage of bills. You know after placing a bill in the parliament it goes to the standing committee and then again come back to the parliament for its nod.

FULL STORY

Admn shake-up ahead of polls on cards

NOVEMBER 10, 2013

DHAKA, NOV 9: The government is planning a major reshuffle of its top mandarins, at the secretary and additional secretary levels, in different ministries and divisions. Restructuring is also on the cards at the divisional commissioner and deputy commissioner levels, ahead of the general elections, sources in the public administration ministry said. As part of the shake up in the top administration, the authorities concerned have planned to transfer the secretaries of the public administration, LGRD, home affairs, health, communications, primary education and commerce ministries. The divisional commissioners of Dhaka, Khulna and Rajshahi may also be transferred as might be the deputy commissioners, who are serving for past two years in different districts, sources added.

FULL STORY

Admn shake-up ahead of polls on cards

NOVEMBER 10, 2013

DHAKA, NOV 9: The government is planning a major reshuffle of its top mandarins, at the secretary and additional secretary levels, in different ministries and divisions. Restructuring is also on the cards at the divisional commissioner and deputy commissioner levels, ahead of the general elections, sources in the public administration ministry said. As part of the shake up in the top administration, the authorities concerned have planned to transfer the secretaries of the public administration, LGRD, home affairs, health, communications, primary education and commerce ministries. The divisional commissioners of Dhaka, Khulna and Rajshahi may also be transferred as might be the deputy commissioners, who are serving for past two years in different districts, sources added.

FULL STORY

84hr hartal begins today

NOVEMBER 10, 2013

The Bangladesh National Party-led opposition alliance  will enforce an 84-hour countrywide shutdown beginning this morning  in the third spell of hartal in two weeks  to press for holding of the next general elections under a 'non-party' government and immediate release of it senior leaders.

On the eve of the shutdown, pickets set fire to vehicles, vandalised transports, exploded bombs and clashed with law enforcers in Dhaka and elsewhere, causing panic among the people.

Border Guard Bangladesh personnel were deployed to the capital on Saturday evening to assist civil administration in maintaining order while the paramilitary troops were kept standby in other major cities.

FULL STORY

Vengeance on vehicles on Dhaka-Ctg highway

NOVEMBER 10, 2013

Traffic on Dhaka-Chittagong highway, the country's economic lifeline, remained suspended for hours since Friday night as hundreds of vehicles got stranded after opposition activists torched and damaged dozens of transports and blocked stretches of the highway in protest against the arrest of senior leaders.

The blockade continued into early Saturday and traffic resumed at the intervention of Border Guard Bangladesh troops but protesters once again put blockade on stretches of the highway at Sitakunda on Saturday afternoon after the border guards were withdrawn to barracks.

Activists of Bangladesh Nationalist Party and its major ally Jamaat-e-Islami went on the rampage on the highway at Barabkunda and Bara Aulia points in Sitakunda upazila after the news of the arrest of top BNP leaders Moudud Ahmed, MK Anwar and Rafiqul Islam Mia in the capital reached there around 11:00pm.

FULL STORY

http://newsfrombangladesh.net/new/national


No comments:

Post a Comment

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Welcome

Website counter

Followers

Blog Archive