Twitter

Follow palashbiswaskl on Twitter

Friday, November 15, 2013

চাপড়ামারিতে ট্রেনের ধাক্কায় ৭ হাতির মৃত্যু

চাপড়ামারিতে ট্রেনের ধাক্কায় ৭ হাতির মৃত্যু

এই সময়, শিলিগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার: ফিরে এল ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বরের রাত৷ সে বার বানারহাটের মরাঘাট জঙ্গলের কাছে ঝাঝা এক্সপ্রেসের ধাক্কায় মারা গিয়েছিল সাতটি হাতি৷ তিন বছরের মাথায় আবার একসঙ্গে সাতটি হাতির মৃত্যু৷ পাঁচটি পূর্ণবয়স্ক, দু'টি শাবক৷ সেই উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের শিলিগুড়ি-আলিপুরদুয়ার শাখা৷ এ বার চালসার কাছে জলঢাকা রেলসেতুতে ওঠার মুখে ডিব্রুগড়গামী কবিগুরু এক্সপ্রেসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হাতির দলের৷ জখম অন্তত দশটি হাতি৷ মৃতের সংখ্যাও বাড়তে পারে বলে বনকর্তাদের আশঙ্কা৷

বন দন্তর সূত্রে খবর, বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ছ'টা নাগাদ চালসার জঙ্গল দিয়ে ছুটে যাচ্ছিল কবিগুরু এক্সপ্রেস৷ লাইন পার হয়ে চাপড়ামারি থেকে ডায়নার জঙ্গলের দিকে যাচ্ছিল ৬০-৬৫টি বুনো হাতির দল৷ আচমকা দলটি লাইনে উঠে পড়ায় গতি নিয়ন্ত্রণের সুযোগ পাননি চালক৷ সজোরে ধাক্কা লেগে চাকায় আটকে দলা পাকিয়ে যায় তিনটি হাতির দেহ৷ বাকি পাঁচটি হাতিও ঘটনাস্থলেই মারা যায়৷ ট্রেনের চাকায় গেঁথে যাওয়া হাতির দেহগুলি লাইন বরাবর এগিয়ে বীভত্স ভাবে ঝুলতে থাকে সেতুর মুখে গার্ডার থেকে৷ দুমড়েমুচড়ে যায় ইঞ্জিনের ব্রেক পাইপ৷ স্টার্ট বন্ধ হয়ে যায়৷ গুরুতর আহত হয়ে লাইনের আশেপাশে পড়ে যায় গোটা দশেক হাতি৷ ঘুটঘুটে অন্ধকারে হাতির পাল সেখানেই ঠায় দাঁড়িয়ে পড়ে৷ আর্তনাদ করতে করতে ট্রেনটিকে আক্রমণ করে৷ প্রবল আতঙ্ক ছড়ায় যাত্রীদের মধ্যে৷ প্রাণভয়ে তাঁরাও চিত্কার করতে থাকেন৷ ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছন এলিফ্যান্ট স্কোয়াডের কর্মীরা৷ কিন্ত্ত তাঁরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেননি৷ ততক্ষণে খবর যায় আলিপুরদুয়ার স্টেশনে৷ আটকে পড়া যাত্রীদের উদ্ধারে রিলিফ ট্রেন পাঠানো হয়৷ সাড়ে আটটা নাগাদ ট্রেনটি ঘটনাস্থলে পৌঁছলে যাত্রীদের কর্ডন করে বের করে আনা হয়৷ ডিব্রুগড়ের বাসিন্দা রহিম কলিতা বলেন, 'তীব্র গতিতে ছুটছিল ট্রেন৷ আচমকা প্রবল ঝাঁকুনি দিয়ে দাঁড়িয়ে যায়৷ প্রচণ্ড চিত্কারে অন্ধকার জঙ্গল থেকে ছুটে আসতে থাকে ক্ষিন্ত হাতিরা৷ এস ৮ কামরার জানালার শিক ভেঙে ফেলে৷ তখন ধরেই নিয়েছি বাঁচব না৷'

রাজ্যের প্রধান মুখ্য বনপাল নবীনচন্দ্র বহুগুণার নির্দেশে ঘটনাস্থলে যান জলপাইগুড়ির বিভাগীয় বনাধিকারিক বিদ্যুত্ সরকার৷ আলিপুরদুয়ারের বিভাগীয় রেল ম্যানেজার বীরেন্দ্র কুমার বলেন, 'কী করে দুর্ঘটনা ঘটল, সেটা তদন্ত সাপেক্ষ৷ পরে অনুসন্ধান করা হবে৷ আপাতত আমরা যাত্রী সুরক্ষা নিয়ে চিন্তিত৷ ট্রেনটি জঙ্গল থেকে বার করার চেষ্টা করছি৷' বনমন্ত্রী হিতেন বর্মন বলেন, 'অত্যন্ত দুভার্গ্যজনক ঘটনা৷ বারবার এ রকম ঘটছে৷ রেল দন্তরকে গতি নিয়ন্ত্রণের কথা বলা হলেও কোনও কাজ হচ্ছে না৷ বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীকে জানাব যাতে কড়া পদক্ষেপ করা সম্ভব হয়৷'

এই দুর্ঘটনায় ফের সামনে এসেছে রেল আর বন দন্তরের সমন্বয়ের অভাব৷ সন্ধ্যার পর গতি কমানো, রেলপথ বরাবর নজরদারি, রেলের কন্ট্রোল রুমে বনকর্মীদের মোতায়েন করে সমন্বয়সাধন, রেলপথের দু'ধারে জমি পরিষ্কার রাখা, ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ ইত্যাদি বিষয়ে বহুবার আলোচনা হয়েছে৷ সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে৷ কিন্ত্ত কাজ যে তেমন হয়নি, চালসার কাছে এ দিনের দুর্ঘটনা তার প্রমাণ৷ রাজ্যের প্রধান মুখ্য বনপাল নবীনবাবুর অভিযোগ, 'আমরা সর্বক্ষণ সতর্ক৷ কিন্ত্ত রেল দন্তর কোনও সহযোগিতাই করছে না৷ ট্রেনের গতি নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে না৷ ফলে মৃত্যুমিছিল বাড়ছে৷ আমি অত্যন্ত হতাশ৷'

বন দন্তরের তরফে ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে ছ'জন পশু চিকিত্সককে, যাতে আহত হাতিগুলির চিকিত্সা শুরু করা যেতে পারে৷ বনকর্মীরা কয়েকটি দলে ভাগ হয়ে জখম হাতির সন্ধানে জঙ্গলে চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছেন৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছে জলপাইগুড়ির বিভাগীয় বনাধিকারিক বিদ্যুত্ সরকার বলেন, 'মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে৷ তবে আসল দুশ্চিন্তা হল, চাপড়ামারির জঙ্গলেই রয়েছে ক্ষিন্ত হাতির পাল৷ ওরা ফিরে এলে কী হবে ভাবতে পারছি না৷ আপ্রাণ চেষ্টা করছি নজর রাখতে৷ মাঝে মাঝেই অন্ধকার ভেদ করে বেসে আসছে স্বজনহারা হাতির বিকট চিত্কার৷ সেই গর্জন শুনেই আর এগোতে ভয় পাচ্ছেন বনকর্মীরা৷ জখম হাতিগুলির চিকিত্সার ব্যবস্থা করছি৷'

রেল কর্তৃপক্ষ অবশ্য যথারীতি ঘটনার দায় স্বীকারে নারাজ৷ আলিপুরদুয়ারের বিভাগীয় কমার্শিয়াল ম্যানেজার অলকানন্দ সরকারের দাবি, 'ওই রুটে অভিজ্ঞ চালক দিয়েই ট্রেন চালানো হয়৷ তা ছাড়া, যে এলাকায় দুর্ঘটনা ঘটেছে সেটি এলিফ্যান্ট করিডর নয়৷ কাজেই গাফিলতির কথা বলা যাচ্ছে না৷ আপাতত কোচবিহার-জলপাইগুড়ি ভায়া ফালাকাটা রুটে ট্রেন চালানো হবে৷'

No comments:

Post a Comment

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Welcome

Website counter

Followers

Blog Archive